আমের মুকুলে স্বপ্ন বুনছেন বাগান মালিকরা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি মাগুরা
প্রকাশিত: ০৮:১৬ এএম, ০৩ মার্চ ২০২১

এবার শীতের প্রকোপ কিছুটা কম থাকায় একটু আগেভাগেই মুকুলে মুকুলে ছেয়ে গেছে মাগুরা শহরসহ জেলার গ্রাম অঞ্চলের আম বাগানগুলো। থোকা থোকা মুকুলের ভারে নুয়ে পড়েছে আম গাছের ডালপালা। মৌমাছির দল ঘুরে বেড়াচ্ছে গুনগুন শব্দে।

মুকুলের পাগল করা ঘ্রাণ বাতাসে মিশে সৃষ্টি করছে মৌ মৌ গন্ধ। আর মুকুলের মৌ মৌ ঘ্রাণে বাগান মালিকদের চোখে ভাসছে স্বপ্ন। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এবার জেলায় আমের বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করছেন তারা।

মাগুরা সদর উপজেলার ইছাখাদা গ্রামের কয়েকটি আম বাগান ঘুরে দেখা যায়, আম বাগানের সারি সারি গাছে শোভা পাচ্ছে কেবলই মুকুল আর মুকুল। এ যেন হলুদ আর সবুজের মহামিলন। মুকুলে ছেয়ে আছে প্রতিটি গাছের ডালপালা।

ইছাখাদা গ্রামের আরেক বাগান মালিক হরশিৎ বলেন, এবার প্রতিটি আম গাছেই মুকুল ভালো এসেছে। তবে শেষ পর্যন্ত আবহাওয়া অনুকূলে থাকলেই ফলন ভালো পাওয়া যাবে বলে জানান তিনি।

বাগান মালিক আব্দুর রহমান জানান, প্রায় গত দুই তিন সপ্তাহ আগে থেকেই তাদের বাগানের আম গাছগুলোতে মুকুল আসতে শুরু করেছে। বেশির ভাগ গাছেই মুকুল এসে গেছে। কিছু গাছে মুকুল বের হচ্ছে।

মুকুল আসার পর থেকেই তিনি গাছের প্রাথমিক পরিচর্যা শুরু করেছেন। রোগ বালাইয়ের আক্রমণ থেকে মুকুলকে রক্ষা করতে স্থানীয় কৃষি বিভাগের পরামর্শ অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ওষুধ ও কীটনাশক প্রয়োগ করছেন বলেও জানান তিনি।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক সুশান্ত কুমার প্রামাণিক জাগো নিউজকে বলেন, বাণিজ্যিক ভিত্তিতে আম্রপালি, গোপালভোগ, ফজলি ও ল্যাংড়াসহ উন্নত জাতের বিভিন্ন আমের চাষ হয়েছে।

আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় মুকুলও এসেছে ভালো। তবে ফলন নির্ভর করছে আবহাওয়ার ওপর। এ চাষ সফল করার লক্ষ্যে কৃষি বিভাগ কৃষকদের মধ্যে প্রয়োজনীয় সার ও কীটনাশক সরবরাহ নিশ্চিত করেছে বলেও জানান এ কৃষি কর্মকর্তা।

মো: আরাফাত হোসেন/এমএমএফ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]