ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়ায় চবি শিক্ষককে শোকজ

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়
প্রকাশিত: ০৩:৫১ পিএম, ০৯ এপ্রিল ২০১৯

 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়ায় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের যোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক খ. আর রাজীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম ক্ষুণ্ন হয়েছে অভিযোগ তুলে সোমবার সহকারী অধ্যাপক খ. আর রাজীকে এ নোটিশ দেয়া হয়েছে।

ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার কে এম নুর আহামেদ স্বাক্ষরিত নোটিশটি সোমবার সহকারী অধ্যাপক খ. আর রাজীর হাতে পৌঁছে দেয়া হয়। আগামী তিনদিনের মধ্যে নোটিশের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

এ নোটিশে বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম ক্ষুণ্ন হয়েছে দাবি করে বলা হয়, ৪ এপ্রিল শিক্ষক খ. আর রাজী তার দুটি ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে ‘গুন্ডামি করে বিশ্ববিদ্যালয় চালানো পাপ’ শীর্ষক একটি স্ট্যাটাস দেন। তার এ স্ট্যাটাসের মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম নষ্ট করা হয়েছে এবং বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনার সঙ্গে যুক্ত শিক্ষকদের সম্মানহানি হয়েছে। এছাড়া তার ওই স্ট্যাটাসে ছাত্রদের সংঘাতে উসকানি দেয়া হয়। যা বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মচারী (দক্ষতা ও শৃঙ্খলা) বিধি অনুসারে শাস্তিযোগ্য অপরাধ। তাই তার বিরুদ্ধে কেন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না- এ মর্মে তিনদিনের মধ্যে কারণ দর্শাতে বলা হয়েছে।

raji2

‘গুন্ডামি করে বিশ্ববিদ্যালয় চালানো পাপ’ শীর্ষক ওই স্ট্যাটাসে শিক্ষক আর রাজী লিখেছিলেন, ‘শিক্ষকতাকে যদি পেশা হিসেবে নিয়ে থাকেন তাহলে ছাত্র-ছাত্রীদের সঙ্গে যুক্তি-তর্ক-বিচার-বিশ্লেষণ তথা শিক্ষিত জনের মতো জ্ঞানের ভাষায় সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করেন। যদি তা না পারেন, যেটুকু পারেন সেটুকু দায়িত্ব রেখে বাকিটুকু ছেড়ে দেন। কথায় কথায় নিজের ছাত্র-ছাত্রীর বিরুদ্ধে পুলিশ লাগিয়ে দেবেন, অস্ত্র মামলায় ফাঁসিয়ে দেবেন, ভয় দেখাবেন- এসব কোনো শিক্ষকের কাজ হতে পারে না। দোহাই আপনাদের, শিক্ষকের কলুষিত মর্যাদাকে আরও কালিমালিপ্ত কইরেন না।’

তবে শিক্ষক খ. আর রাজী জানিয়েছেন, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়কে ইঙ্গিত করে তিনি ওই স্ট্যাটাস দেননি। একই সঙ্গে স্ট্যাটাসের কোথাও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম উল্লেখ করেননি তিনি।

এ বিষয়ে শিক্ষক খ. আর রাজী বলেন, স্ট্যাটাসটি দেশের বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে চলমান শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকে ঘিরে দেয়া হয়েছে। তারপরও কেন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সেটি নিজেদের করে নিয়েছেন, তা আমার বোধগম্য নয়। এ বিষয়ে আমি আমার আইনজীবীদের সঙ্গে কথা বলে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করব।

আবদুল্লাহ রাকীব/এএম/এমএস

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - [email protected]

আপনার মতামত লিখুন :