জেলহাজতে থাকা ইবির সেই কর্মচারী বরখাস্ত

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক
বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক ইবি
প্রকাশিত: ১০:৩১ পিএম, ১৩ জুলাই ২০২০

রবীন্দ্রমৈত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আরাফাত হত্যা মামলায় জেলহাজতে থাকা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের সেই কর্মচারীকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে কর্তৃপক্ষ। সোমবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) এস এম আব্দুল লতিফ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বরখাস্ত ওই কর্মচারী ইলিয়াস জোয়ার্দার। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের আইসিটি সেলের নেটওয়ার্ক টেকনিশিয়ান এবং মামলার ৫ নম্বর আসামি। এদিকে এ সংক্রান্ত এক অফিস আদেশ জারি করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

আদেশে বলা হয়, শৈলকূপা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মহসীন হোসেনের গত ৮ জুলাই এক লিখিত চিঠিতে জানান, আইসিটি সেলের নেটওয়ার্ক টেকনিশিয়ান ইলিয়াস জোয়ার্দার গত ৬ জুলাই আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। আত্মসমর্পণের পর বিজ্ঞ আদালত জামিন নামঞ্জুর করে ওই কর্মচারীকে জেলহাজতে পাঠায়।

এমতাবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্মচারী দক্ষতা ও শৃঙ্খলা বিধির ১৫-এ ধারা মোতাবেক তাকে নেটওয়ার্ক টেকনিশিয়ান পদ থেকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হলো। তবে বরখাস্তকালীন জীবনধারণ ভাতা পাবেন তিনি।

তবে একই মামলায় জেলহাজতে থাকা আরেক কর্মচারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়নি কর্তৃপক্ষ। ওই কর্মচারী আব্দুর রাজ্জাক। তিনি এই মামলার ২ নম্বর আসামি। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের দৈনিক মজুরিভিত্তিক কর্মচারী ছিলেন। তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেওয়ার বিষয়ে রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) এস এম আব্দুল লতিফ বলেন, তিনি আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়োগপ্রাপ্ত কোন কর্মচারী নন। দৈনিক মজুরি ভিত্তিক কর্মচারী ছিলেন। যেহেতু তিনি আমাদের কেউ নন, তাই তার বিরুদ্ধে আমরা কোন সিদ্ধান্ত নেয়নি।

উল্লেখ্য, গত ২৮ এপ্রিল পারিবারিক কলহের জেরে ইবি ক্যাম্পাস পার্শ্ববর্তী শেখপাড়া এলাকায় প্রতিপক্ষের আঘাতে নিহত হন আরাফাত হোসেন। পরে গত ৬ জুলাই ইলিয়াস এবং ৭ জুলাই রাজ্জাক ঝিনাইদহ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (প্রথম) আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। পরে আদালত জামিন আবেদন নাকচ করে তাদের জেলহাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

রায়হান মাহবুব/এমআরএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]