কিউআর কোডে ছেলে, পরীক্ষা দিতে এলেন মেয়ে

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি কুমিল্লা
প্রকাশিত: ০৬:২৯ পিএম, ২৪ অক্টোবর ২০২১

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি) কেন্দ্রে গুচ্ছ পদ্ধতিতে ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষায় এক পরীক্ষার্থীর প্রবেশপত্রের কিউআর কোডে আরেকজনের তথ্য পাওয়া গেছে। পরে ওই ভর্তিচ্ছুর আলাদাভাবে পরীক্ষা নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। তার উত্তরপত্রও আলাদাভাবে পাঠানো হয়েছে।

রোববার (২৪ অক্টোবর) সকালে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রে ওই ভর্তিচ্ছু স্বেচ্ছাসেবীদের কাছে কেন্দ্রের তথ্য জানতে চাইলে বিষয়টি ধরা পড়ে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে জানা যায়, ৫২০১০০ রোল নম্বরধারী ওই পরীক্ষার্থীর নাম সোনিয়া আক্তার শিলা। তার প্রবেশপত্রে ‘নিউ একাডেমিক বিল্ডিং (সপ্তম তলা), কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা’ কেন্দ্র নামের একটি কেন্দ্রের নাম দেওয়া ছিল। কিন্তু তিনি হল খুঁজে না পেয়ে স্বেচ্ছাসেবীদের বিষয়টি জানান। পরে স্বেচ্ছাসেবীরা কেন্দ্রের সিট প্ল্যান দেখে ওই রোল নম্বর খুঁজে পাননি। এছাড়া প্রবেশপত্রে কেন্দ্র হিসেবে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের নামের ইংরেজি (Cumilla University) বানানেও ভুল দেখা যায়। পরে তার প্রবেশপত্রে থাকা কিউআর কোড স্ক্যান করা হলে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রে সিট পড়েছে অনিক আখন্দ নামের এক পরীক্ষার্থীর তথ্য আসে।

স্বেচ্ছাসেবীরা বিষয়টি ‘বি’ ইউনিটের আহ্বায়ক কমিটির সদস্যদের জানান। পরে পরীক্ষার্থীকে কলা ও মানবিক অনুষদের চতুর্থ তলায় আলাদাভাবে পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ করে দেওয়া হয়।

জানতে চাইলে পরীক্ষার্থী সোনিয়া আক্তার শিলা বলেন, আমি এর কিছুই জানি না। আমি ঢাকা থেকে এসেছি। প্রবেশপত্রটি দোকান থেকে প্রিন্ট করানো বলেও তিনি জানান।

গুচ্ছ পদ্ধতির কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রের ‘বি’ ইউনিটের আহ্বায়ক ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক ড. এম এম শরীফুল করিম বলেন, আমরা ওই পরীক্ষার্থীকে ‘রিপোর্টেড’ করেছি। আপাতত তাকে আলাদাভাবে পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ দিয়েছি।

তিনি আরও বলেন, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে ২৫০৫ জন শিক্ষার্থীর সিট পড়েছিল। তাদের মধ্যে তিনি নেই। তাই তার খাতা আলাদা খামে কেন্দ্রে পাঠানো হয়েছে। তারা যে সিদ্ধান্ত দেবেন সেটাই চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে।

এ বিষয়ে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও গুচ্ছ পদ্ধতির কেন্দ্রীয় পরীক্ষা কমিটির সদস্য অধ্যাপক ড. এমরান কবির চৌধুরী বলেন, আমরা কেন্দ্রীয় কমিটিকে বিষয়টি জানিয়েছি। তারা সবকিছু দেখে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন।

জাহিদ পাটোয়ারী/এসআর/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]