পাহাড়ের মাটি ভেঙে বেরিয়ে এল যুবদল নেতার মরদেহ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক চট্টগ্রাম
প্রকাশিত: ০৯:০৬ এএম, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭
পাহাড়ের মাটি ভেঙে বেরিয়ে এল যুবদল নেতার মরদেহ
ফাইল ছবি

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে অপহরণের ১৪ মাস পর যুবদল নেতা শাহাদাত হোসেন ছোটনের (৪০) মরদেহ উদ্ধার করেছে সিআইডি। বৃহস্পতিবার মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। এরআগে নিজ বাড়ি থেকে তাকে অপহরণ করে একদল সন্ত্রাসী।

নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে দুই দফা করা মামলার আসামির স্বীকারোক্তি অনুসারে কয়েক দিন আগে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিআইডি পুলিশ চট্টগ্রামের পরিদর্শক মো. শরীফ মরদেহ পুঁতে রাখার স্থানে যান। কিন্তু ওই সময় ভারি বর্ষা থাকায় সুনির্দিষ্ট জায়গা শনাক্ত করা কঠিন হয়ে পড়ে। সম্প্রতি পাহাড়ের মাটি ভেঙে যাওয়ায় গতকাল বৃহস্পতিবার মরদেহটির একটা অংশ দেখতে পান ওই এলাকার প্রতিবন্ধী এক যুবক। পরে তিনি ছোটনের মরদেহ সন্দেহে বিষয়টি তার পরিবারকে জানান।

উল্লেখ্য গত বছরের ১১ জুলাই মধ্যরাতে সীতাকুণ্ডের সলিমপুর ইউনিয়ন যুবদলের সহসভাপতি মো. শাহাদাত হোসেন ছোটনের ঘরে একদল সন্ত্রাসী হানা দিয়ে তাকে অস্ত্রের মুখে অপহরণ করে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় তার স্ত্রী সাদিয়া আক্তার বাদী হয়ে মামলা করেন।

তবে তিনি মামলার এজাহারে যেসব আসামির নাম উল্লেখ করেছেন, পুলিশ তাদের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকজনকে বাদ দিয়েছে বলে অভিযোগ তুলে আদালতে আরেকটি মামলা করেন ছোটনের ছোট ভাই মাসুদ।

এ মামলায় জঙ্গল সলিমপুরের ভূমিদস্যু বহু মামলার আসামি মো. মশিউর রহমানসহ ১১ জনকে আসামি করা হয়। এরপর দীর্ঘদিন পার হলেও মামলার তেমন কোনো অগ্রগতি ছিল না। একপর্যায়ে প্রধান আসামি মশিউর গ্রেফতার হলেও সে জামিনে ছাড়া পায়। শেষে বাদীপক্ষের তত্পরতায় চট্টগ্রামের তত্কালীন পুলিশ সুপার মামলাটি সিআইডিতে হস্তান্তর করেন।

এরপর সিআইডি মামলার তদন্ত শুরু করে এবং সলিমপুরের শাহাদাত মেম্বার, সোহেল, রানা ও কালু নামের আরো চারজনকে গ্রেফতার করে।

এদের মধ্যে রানা সম্প্রতি আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়ে ঘটনার কথা স্বীকার করেন। তিনি জানান, জঙ্গল সলিমপুরের কালিছরা কেরাডি পাহাড় এলাকায় তার মরদেহ আছে। জবানবন্দিতে আসামি রানা এ ঘটনায় জড়িত সুনির্দিষ্ট ২৬ জনের নাম উল্লেখ করে জানায় অজ্ঞাতপরিচয় আরও অনেকে এ ঘটনায় জড়িত।

এফএ/এমএস