টাকা ধার নিতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার গৃহবধূ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি নওগাঁ
প্রকাশিত: ০১:৩৯ পিএম, ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮
প্রতীকী ছবি

নওগাঁয় টাকা ধার দেয়ার নাম করে এক গৃহবধূকে ডেকে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি ১০ হাজার টাকার বিনিময়ে সমাঝোতাও করে দিয়েছেন গ্রামের মাতব্বররা। গত ২৭ জানুয়ারি সদর উপজেলার শীবপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটলেও সম্প্রতি তা জানাজানি হয়।

ভুক্তভোগীর পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, ওই গৃহবধূর স্বামী বিভিন্ন সময় সুদের উপর মাহবুবের কাছ থেকে টাকা নিতেন এবং যথারীতি পরিশোধ করতেন। দুই হাজার টাকার জন্য ওই গৃহবধূকে শ্বশুরবাড়ি জেলার মান্দা উপজেলার খুদিয়াডাঙ্গায় পাঠান স্বামী। কিন্তু সেখানে টাকা না পেয়ে মাহবুবের কাছে মোবাইলে বিষয়টি জানিয়ে ধার চায়।

এ সময় টাকা দিতে চেয়ে মাহবুব তাকে শনিবার বিকেলে শহরের বাইপাসে আসতে বলে। মাহবুবসহ আরো দুইজন তাকে সঙ্গে নিয়ে শীবপুর গ্রামে একজনের কাছ থেকে টাকা নিয়ে দেবে বলে জানায়। মাহবুব সময়ক্ষেপণ করে সন্ধ্যা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে বলে। এরপর সন্ধ্যায় একটি বাড়িতে নিয়ে গিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে তাকে। ভুক্তভোগী পরদিন বাড়ি ফিরে তার স্বামীকে বিষয়টি জানায়।

এদিকে বিষয়টি জানাজানি হলে মাহবুব আপোষের প্রস্তাব দেয়। গত বুধবার (৩১ জানুয়ারি) স্থানীয় সাবেক কাউন্সিলর নজরুল ইসলামসহ কয়েক জনের মধ্যস্থতায় ৩০০ টাকার স্ট্যাম্পে ১০ হাজার টাকায় ভুক্তভোগীদের স্বাক্ষর নিয়ে সমঝোতা করে দেয়া হয়।

ভুক্তভোগীর স্বামী বলেন, ঘটনার পর থেকে তার পরিবারকে বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধামকি দেয় মাহবুব। লোক লজ্জার ভয়ে বিষয়টি নিয়ে আর সামনে না এগিয়ে আমার মা সমঝোতা করেছেন।

এদিকে অভিযুক্ত মাহবুব বলেন, এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা। শাকিলের কাছ থেকে টাকা পেতাম। না দিতে পেরে পায়তারা করছে।

নওগাঁ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্ত (ওসি-তদন্ত) আনোয়ার হোসেন বলেন, ধর্ষণের বিষয়টি জানা নেই। তবে ধর্ষণের ঘটনায় কোনো সালিশ বা সমঝোতা হতে পারে না। অভিযোগ পেলে তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আব্বাস আলী/এফএ/পিআর