দুর্ভোগের স্টেশন জামতৈল

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি সিরাজগঞ্জ
প্রকাশিত: ০৯:৫৯ এএম, ১৪ মার্চ ২০১৮

ব্রিটিশ আমলে প্রতিষ্ঠিত সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ উপজেলার জামতৈল রেলওয়ে স্টেশনটি আজও আধুনিকতার ছোঁয়া পায়নি। নানা সমস্যায় জর্জরিত হয়ে পড়েছে স্টেশনটি। আজও এই স্টেশনে মেলেনি কম্পিউটার প্রযুক্তি সম্পন্ন টিকিট বুকিং কাউন্টার। ফলে প্রায়ই এলোমেলো হয় টিকিট সরবরাহ। এতে করে চরম ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে স্টেশন মাস্টার ও যাত্রীদের।

সরেজমিনে স্টেশন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, স্টেশনের ৩নং রেললাইনে ঝুঁকি নিয়ে ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন কাচামালের পসরা সাজিয়েছেন বিক্রির জন্য। এসব দোকানে প্রতিদিন ভিড় জমাচ্ছেন শত শত নারী পুরুষ। সেই সঙ্গে স্টেশন প্ল্যাটফর্ম পুরোটাই অবৈধ দখলদারদের কবলে। রেললাইনে কেনাবেচা করায় যেকোনো সময়ে বড় ধরনের দুর্ঘটনা এমনকি প্রাণহানির আশঙ্কা থাকলেও এ ব্যাপারে কর্তৃপক্ষ পালন করছে নীরব ভূমিকা।

স্টেশন প্ল্যাটফর্মের উপর সন্ধ্যা নামলেই যেন তিল ধারণের জায়গা থাকে না। এতে ট্রেনের যাত্রীরা চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। রেললাইনের উভয় পাশে ১৫ ফুট করে জায়গা ফাঁকা রাখার বিধান রয়েছে। সে অনুযায়ী রেলওয়ের উভয় পাশে পর্যাপ্ত জায়গা রেখে সীমানা নির্ধারণ করা হয়েছে। স্টেশন মাস্টার ও রেলওয়ে প্রশাসন বিভাগের তেমন কোনো নজরদারি না থাকায় সেই জায়গায় দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে এসব ঝুঁকিপূর্ণ ও অবৈধ দোকানপাট।

জামতৈল রেলওয়ে স্টেশন সূত্রে জানা যায়, এ স্টেশনে প্রতিদিন আপ এবং ডাউনে যাত্রীবাহী ও মালবাহী ৩৫টি ট্রেন যাতায়াত করে। এসব ট্রেনের প্রায় ১ হাজার যাত্রী এই স্টেশনে ওঠা-নামা করে। বিভিন্ন সময় ক্রসিংয়ের কারণে ট্রেন ২ এবং ৩নং লাইনে দাঁড়ায়। আর তখন ২ এবং ৩নং লাইনের সঙ্গে কোনো প্ল্যাটফর্ম না থাকায় যাত্রীদের বিশেষ করে শিশু, বৃদ্ধ ও নারীদের ওঠানামা খুবই কষ্টসাধ্য হয়ে পড়ে। বিশেষ করে ৩নং লাইনের সঙ্গে অপর একটি প্ল্যাটফর্ম স্থাপন করা খুবই প্রয়োজনীয় হয়ে পড়েছে।

SIRAJGONJ-PHOTO-2

এই স্টেশনে স্টেশন মাস্টার থাকার কথা তিনজন। কিন্তু আছেন দুইজন। টিকিট বুকিং সহকারী ২ জন থাকলেও একজন জামতৈল রেলওয়ে স্টেশনের বেতন ভাতা ভোগ করে পাবনার চাটমোহর রেলওয়ে স্টেশনে অপরজন রাজশাহী স্টেশনে দায়িত্বে রয়েছেন। এতে করে এই স্টেশনের স্টেশন মাস্টারের একার পক্ষে সব কাজ পরিচালনা করা সম্ভব হচ্ছে না।

জামতৈল রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার গোলাম হোসেন মিয়া জানান, স্টেশন প্ল্যাটফর্ম ও ৩নং লাইনের উপর অবৈধ দোকানপাট উচ্ছেদের জন্য সিরাজগঞ্জ জিআরপি থানাকে অনেকবার চিঠি দেয়া হয়েছে। কিন্তু কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি কর্তৃপক্ষ।

সিরাজগঞ্জ রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইদুর রহমান জানান, জামতৈল স্টেশনের বিষয়ে আমার তেমন কোনো ধারণা নেই। তবে ওই স্টেশনের যে সমস্যাগুলো রয়েছে তা সরেজমিনে পরিদর্শন করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

কামারখন্দ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আকন্দ মোহাম্মদ ফয়সাল উদ্দীন জানান, রেলওয়ের জায়গায় আমরা সরাসরি কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারি না। তবে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ এ সকল সমস্যা সমাধানে ব্যবস্থা গ্রহণ করলে উপজেলা প্রশাসন থেকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করা হবে।

ইউসুফ দেওয়ান রাজু/এফএ/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :