লুঙ্গি রেখে পালানো সেই ধর্ষকের যাবজ্জীবন

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি চাঁপাইনবাবগঞ্জ
প্রকাশিত: ০৪:৪৩ পিএম, ১৮ মার্চ ২০১৮

চাঁপাইনবাবগঞ্জে নারীকে ধর্ষণের পর পরনের লুঙ্গি রেখে পালিয়ে যাওয়া সেই ধর্ষকের যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে তাকে এক লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও তিন বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়।

রোববার দুপুরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাব্যুনাল-২ এর বিচারক অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মো. জিয়াউর রহমান আসামির উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন। দণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তি চাঁপাইনবাবগঞ্জ পৌর এলাকার রেহাইচর-টিকরামপুর মহল্লার মো. মোজাহারের ছেলে কামরুল ইসলাম ওরফে কাইমা চোর (৪৩)।

সরকারি কৌঁসুলি আঞ্জুমান আরা মামলার বরাত দিয়ে জানান, ২০১৫ সালের তিন আগস্ট একই মহল্লার মোসা. জেরিনা খাতুন বাবার বাড়িতে রাত ১০টার দিকে ঘুমিয়ে ছিলেন।

রাত ১১টার দিকে কামরুল ইসলাম ওরফে কাইমা চোর জানালার লোহার রড ভেঙে ঘরে প্রবেশ করে জেরিনাকে ধর্ষণ করে। এ সময় জেরিনার চিৎকারে লোকজন ছুটে আসলে আসামি কামরুল ইসলাম ওরফে কাইমা চোর পরনের লুঙ্গি, টি-শার্ট ও স্যান্ডেল ফেলে পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় জেরিনার চাচাতো ভাই মো. রাজ্জাক বাদী হয়ে কামরুল ইসলাম ওরফে কাইমা চোরকে অভিযুক্ত করে ঘটনার দু’দিন পর সদর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন।

মামলার তদন্ত শেষে এসআই আতাউর রহমান একই বছরের ২৮ ডিসেম্বর কামরুল ইসলাম ওরফে কাইমা চোরকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দেন। সেই মামলায় কামরুল ইসলামকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন আদালত।

মোহাঃ আব্দুল্লাহ/এএম/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :