আ.লীগের মনোনয়ন নিয়ে বিক্ষোভ, পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তি

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ঝালকাঠি
প্রকাশিত: ০৫:৪৯ পিএম, ০১ ডিসেম্বর ২০১৮

ঝালকাঠি-১ (রাজাপুর-কাঁঠালিয়া) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বিএইচ হারুনের মনোনয়ন বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ করেছে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা মনিরুজ্জামান মনিরের অনুসারীরা।

একই সঙ্গে মানববন্ধন কর্মসূচি ডাকে মনিরের অনুসারীরা। এতে বাধা দিতে আসে বিএইচ হারুনের কর্মী-সমর্থকরা। এ সময় মানববন্ধনে বাধা দিলে মনিরের সমর্থকদের সঙ্গে পুলিশের ধস্তাধস্তির ঘটনা ঘটে।

jhalokhati

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, শনিবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলা যুবলীগ অফিসে অবস্থান নিয়ে মনিরের সমর্থকরা প্রতিবাদ সভা করে মানববন্ধনের প্রস্তুতি নিলে পুলিশ তাদের অফিস থেকে বের হতে দেয়নি।

jhalokhati

প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য দেন- রাজাপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম স্বপন ও রিয়াজ মাতুব্বর, শিক্ষা ও মানবসম্পদবিষয়ক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ডেজলিং, নাসির মৃধা, উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি শহিদুল ইসলাম ও সাংগঠনিক সম্পাদক ইউসুফ সিকদার।

খবর পেয়ে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান এমপি বিএইচ হারুনের সমর্থকরা উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সামনের সড়কে অবস্থান নিয়ে নানা স্লোগান দেয়।

jhalokhati

পরে পুলিশ তাদের সরিয়ে দেয়। সেই সঙ্গে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ নেতা মনিরের সমর্থকদেরও যুবলীগ অফিস এলাকা থেকে সরিয়ে দেয় পুলিশ। এ সময় তারা মানববন্ধনের চেষ্টা করলে পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তি হয়।

উপজেলা আওয়ামী লীগের শিক্ষা ও মানবসম্পদবিষয়ক সম্পাদক ডেজলিং তালুকদার বলেন, আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়া বজলুল হক হারুনের জনপ্রিয়তা নেই। তার সঙ্গে নেতাকর্মীর সম্পর্ক নেই। টানা দুই দফায় এমপি থাকায় নিজেদের পরিবারের উন্নতি করেছেন। জামায়াতঘেঁষা হারুনকে আবারও দলের মনোনয়ন দেয়া হয়েছে, এটা আমরা মানি না। অবিলম্বে তার মনোনয়ন বাতিল করে দলের জন্য নিবেদিত কাউকে মনোনয়ন দেয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে অনুরোধ জানাই। অন্যথায় আন্দোলন চালিয়ে যাব আমরা।

jhalokhati

উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজ কল্যাণবিষয়ক সম্পাদক মোস্তফা কামাল সিকদার বলেন, এমপি হারুন সৎব্যক্তি। তাকে মনোনয়ন দেয়ায় আমরা খুশি। এমপির বিরুদ্ধে একটি মহল ষড়যন্ত্র করছে। আমরা যেকোনো মূল্যে তাদের প্রতিহত করব। নির্বাচনে কোনো সমস্যা সৃষ্টি করতে পারবে না তারা।

ঝালকাঠির সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (রাজাপুর সার্কেল) মো. মোজাম্মেল হোসেন রেজা বলেন, উভয় পক্ষের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে পরিস্থিতি শান্ত করা হয়েছে। শহরের বিভিন্ন স্থানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

আতিকুর রহমান/এএম/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :