৬৮ বছর পর ভোট দেবেন বিলুপ্ত ছিটমহলের বাসিন্দারা

সফিকুল আলম
সফিকুল আলম সফিকুল আলম পঞ্চগড়
প্রকাশিত: ০৫:৫৬ পিএম, ০৮ ডিসেম্বর ২০১৮

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট দেয়ার জন্য অধীর আগ্রহে দিনক্ষণ গুনছে পঞ্চগড়ের বিলুপ্ত ছিটমহলের বাসিন্দারা। ১৯৭৪ সালের মুজিব-ইন্দিরা চুক্তির আলোকে ২০১৫ সালের ১ আগস্ট স্থলসীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়নের মাধ্যমে পঞ্চগড়ের মূল ভূখণ্ডে যোগ হয় বিলুপ্ত ৩৬ ছিটমহল এলাকা।

২০ হাজারের বেশি মানুষ পায় বাংলাদেশি নাগরিকত্ব। জেলার দুই নির্বাচনী আসনে পূর্বের ভোটারদের সঙ্গে যোগ হয় বিলুপ্ত ৩৬ ছিটমহলের ৮ হাজার ৯৩৫ জন নতুন ভোটার। এদের মধ্যে ৪ হাজার ৬৭৪ জন পুরুষ এবং ৪ হাজার ২৬১ জন নারী ভোটার ৬৮ বছর পর প্রথমবারের মতো একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তাদের ভোট দেবেন। এ নিয়ে বিলুপ্ত ছিটমহলবাসীদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা দেখা গেছে।

শুক্রবার সদর উপজেলার বিলুপ্ত গারাতি ও বোদা উপজেলার পুঠিমারি ছিটমহলের বিভিন্ন এলাকায় সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, প্রায় ৩ বছর আগে স্থলসীমান্ত চুক্তি বাস্তবায়নের পর এসব এলাকায় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ব্যাপকভাবে উন্নয়ন কাজ শুরু হয়। ইতোমধ্যে বিভিন্ন এলাকায় স্কুল-কলেজ, মসজিদ, মাদরাসা, পাকা সড়ক, ব্রিজ-কালভার্ট নির্মাণ করা হয়েছে।

southeast

বিভিন্ন এলাকায় স্বাস্থ্য, শিক্ষা, চিকিৎসাসহ অবকাঠামো উন্নয়নসহ প্রত্যেকের ঘরে ঘরে পৌঁছে দেয়া হয় বিদ্যুতের আলো। সর্বোপরি দীর্ঘ ৬৮ বছর ধরে নাগরিক সুবিধা বঞ্চিত এসব এলাকার প্রায় ২০ হাজার বাসিন্দা পেয়েছেন বাংলাদেশি নাগরিকত্ব। তাদের মাঝে স্মার্ট কার্ডও বিতরণ করা হয়। জীবনের প্রথম কোনো জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট প্রদানের জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন এসব এলাকার ভোটররা। তারা ব্যাপক উৎসাহ আর উদ্দীপনা নিয়ে নির্বাচনের দিনক্ষণ গুনছেন।

সংসদ নির্বাচন নিয়ে তাদের মধ্যে শুরু হয়েছে নানান জল্পনা-কল্পনা। বাড়ি-ঘর থেকে শুরু করে হাটবাজার, চায়ের দোকান, মুদি দোকান সর্বত্র চলছে ভোটের আলোচনা। সুষ্ঠু নির্বাচনের মাধ্যমে নতুন সরকার গঠনের পর এই পিছিয়ে পড়া এলাকায় উন্নয়ন কার্যক্রম আরও তরান্বিত হবে, তাদের সন্তানদের চাকরি হবে, স্থানীয়ভাবে বেকার সমস্যার সমাধান হবে বলে আশা করছেন এসব মানুষ।

southeast

জেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, পঞ্চগড়ের দুটি নির্বাচনী আসনে এবার মোট ভোটার সংখ্যা ৭ লাখ ১৪ হাজার ৮৩ জন। দুই আসনে নতুন ভোটারের সংখ্যা ৯৭ হাজার ৮৫০ জন। নতুন ভোটারদের মধ্যে ৪৮ হাজার ৯৫৬ পুরুষ এবং ৪৮ হাজার ৮৯৪ জন নারী ভোটার। নতুন ভোটারদের মধ্যে দুই তৃতীয়াংশই তরুণ ভোটার। এদের মধ্যে ৮ হাজার ৯৩৫ জন নতুন ভোটার তালিকাভুক্ত হয়েছেন বিলুপ্ত ৩৬ ছিটমহলে।

তেঁতুলিয়া, আটোয়ারী এবং পঞ্চগড় সদর উপজেলা নিয়ে পঞ্চগড়-১ আসনে মোট ভোটার ৩ লাখ ৭৯ হাজার ২০৭ জন। এই আসনে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তুলনায় ভোটার বেড়েছে ৫০ হাজার ২৮৮ জন। এদের মধ্যে বিলুপ্ত ৭টি ছিটমহলের সংযুক্ত হয়েছেন ১ হাজার ২৫ জন নতুন ভোটার।

এদিকে বোদা এবং দেবীগঞ্জ উপজেলা নিয়ে পঞ্চগড়-২ আসনে মোট ভোটার ৩ লাখ ৩৪ হাজার ৮৭৬ জন। এই আসনে ভোটার বেড়েছে ৪৭ হাজার ৫৬২ জন। এদের মধ্যে বিলুপ্ত ২৯টি ছিটমহলের সংযুক্ত হয়েছেন ৭ হাজার ৯১০ জন নতুন ভোটার।

southeast

সদর উপজেলার বিলুপ্ত গারাতি ছিটমহল এলাকার মাদরাসা শিক্ষক মো. মোজাম্মেল হক বলেন, দীর্ঘদিন পর ছিটমহল বিনিময় চুক্তি বাস্তবায়নের পর সরকার আমাদের এই অবহেলিত এলাকায় ব্যাপক উন্নয়ন কাজ করেছে। আমাদের এখানে কিছুই ছিল না। অন্ধকার থেকে আমাদের আলোর জগতে আনা হয়েছে। সকলের ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ দেয়া হয়েছে। আমরা ভোটার হয়েছি, স্মার্ট কার্ড পেয়েছি। এখন জাতীয় সংসদে ভোট প্রদানের পালা। এজন্য আমরা অধীর আগ্রহে ভোটের দিনটির জন্য অপেক্ষায় আছি।

বোদা উপজেলার বিলুপ্ত পুটিমারী ছিটমহলের তছলিম উদ্দিন বলেন, জীবনের শেষ বয়সে এসে সরকারি (জাতীয় সংসদ) নির্বাচনে ভোট দিতে পারবো, এটা কল্পনাও করিনি। বর্তমান সরকারের জন্য আমরা মানুষের মর্যাদা পেয়েছি, বাংলাদেশের নাগরিক হয়েছি। আমাদের এলাকায় প্রত্যাশার চেয়ে বেশি উন্নয়ন হয়েছে। আমরা এখন অপেক্ষা করছি, শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোট দেয়ার।

southeast

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. আশ্রাফুল আলম জাগো নিউজকে বলেন, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জেলার দুইটি নির্বাচনী আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৭ লাখ ১৪ হাজার ৮৩ জন। নতুন ভোটারদের মধ্যে দুই আসনের ৩৬ বিলুপ্ত ছিটমহলের ৮ হাজার ৯৩৫ জন ভোটার সংযুক্ত হয়েছেন। সাধারণ ভোটারদের মতো এরাও আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। জীবনে প্রথমবারের মতো জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটপ্রদানের জন্য তারা আসলেই অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন। এবার পঞ্চগড়-১ আসনে ১৫৫টি এবং পঞ্চগড়-২ আসনে ১৩১ ভোটকেন্দ্রে ভোটগ্রহণ হবে। আশা করছি উৎসবমুখর পরিবেশে পঞ্চগড়ের মানুষ ভোট দিতে পারবেন। সুষ্ঠুভাবে ভোটগ্রহণের জন্য সব রকম প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে।

এমএএস/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :