ঠাকুরগাঁওয়ে ডিপজল-নিশাতের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ১০

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ঠাকুরগাঁও
প্রকাশিত: ০৯:৫৩ এএম, ০২ আগস্ট ২০১৯

ঠাকুরগাঁওয়ে কোচ ও বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালকসহ ১০ জন নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন অন্তত ২২ জন। শুক্রবার সকাল ৮টায় ঠাকুরগাঁও-ঢাকা মহাসড়কের বড় খোঁচাবাড়ি বলাকা উদ্যান এলাকায় ঢাকা থেকে আসা ডিপজল পরিবহনের একটি কোচ ও দিনাজপুরগামী নিশাত পরিবহনের একটি মিনিবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হলে এ ঘটনা ঘটে।

আহতদের রংপুর মেডিকেল কলেজ ও ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নিহতরা হলেন, নিশাত বাসের চালক চায়না (৩৫), ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার বিপুল চন্দ্র (৩৫), লাহিড়ী বাজারের অনিল শাহ’র স্ত্রী স্বরশতী শাহা (৩৫),  আব্দুল আব্দুর রহমান (৪৫), মোস্তফা (৪৫), তার স্ত্রী ফাতেমা বেগম (৪০), বীরগঞ্জ উপজেলার গলিরামের মঙ্গলী রানী (৭০), একই এলাকার মনেস্বরের স্ত্রী জবা (৩৫) ও আব্দুল মজিদ (৩৬)। আরেকজনের নাম পরিচয় জানা যায়নি।

দুর্ঘটনার পর ঠাকুরগাঁও-ঢাকা মহাসড়কে ৩ ঘণ্টা যান চলাচল বন্ধ থাকে। পরে ফায়ার সার্ভিস ও থানা পুলিশ গিয়ে সড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক করে।

thakurgao1

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে সদর উপজেলার জগন্নাথপুর ইউনিয়নের ঠাকুরগাঁও-ঢাকা মহাসড়কের খোঁচাবাড়ি এলাকায় দুই বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলে পাঁচজন নিহত হন। আহতদের উদ্ধার করে ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে পাঠানোর পর সেখানে আরো দুইজন মারা যান। পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে আরও একজন মারা যান।

সদর থানা পুলিশের ওসি আশিকুর রহমান জানান, নিহতদের মধ্যে পাঁচজন নারী ও তিনজন পুরুষ। ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের কর্মীরা বাস দুটি উদ্ধার করেছে।

এদিকে দুর্ঘটনায় আহতদের দেখতে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে যান জেলা প্রশাসক কেএম কামরুজ্জামান সেলিম, সিভিল সার্জন আনোয়ারুল ইসলামসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। এ সময় জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে নিহতদের পরিবারকে ১০ হাজার টাকা করে সহায়তার ঘোষণা দেয়া হয়।

এফএ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]