আ.লীগ নেতার বাড়ি থেকে ৫০০ টেঁটা উদ্ধার

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নরসিংদী
প্রকাশিত: ০৯:৩৫ পিএম, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৯

আধিপত্য বিস্তার নিয়ে নরসিংদীর চরাঞ্চলে দুই আওয়ামী লীগ নেতার দ্বন্দ্বে দুপক্ষের সংঘর্ষ হয়েছে। এ সময় উভয়পক্ষের আটজন টেঁটাবিদ্ধসহ ১০ জন হয়েছেন।

সোমবার (০৯ ডিসেম্বর) সকালে সদর উপজেলার নজরপুর ইউনিয়নের আলীপুরা গ্রামে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনার পর অভিযান চালিয়ে ৫০০ টেঁটা উদ্ধার করেছে পুলিশ। একই সঙ্গে ১৩ জনকে আটক করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ, হামলা ও ভাঙচুর ঠেকাতে টেঁটা উদ্ধারে অভিযান চালায় পুলিশ। অভিযানে ৫০০ টেঁটা উদ্ধার করা হয়। এ সময় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১৩ জনকে আটক করা হয়।

সন্ধ্যায় পুলিশ সুপারের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে নরসিংদীর পুলিশ সুপার (এসপি) প্রলয় কুমার জোয়ারদার বলেন, নরসিংদীতে টেঁটা প্রদর্শন বা হাতে দেখলেই গ্রেফতার করা হবে। নির্মম ও পৈশাচিক উপায়ে মানুষ হত্যা বা আহত করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

প্রলয় কুমার জোয়ারদার বলেন, একসময় টেঁটা দিয়ে মাছ শিকার করা হতো। এখন মানুষ হত্যা করা হয়। টেঁটা যুদ্ধ বা টেঁটা দিয়ে মানুষকে আঘাতের দৃশ্য কতটা অমানবিক এবং মর্মান্তিক তা না দেখলে বোঝার উপায় নেই। আমরা আধুনিক যুগে বসবাস করছি। আমাদের চরাঞ্চলে শিক্ষার হার বেড়েছে। অর্থনৈতিক মুক্তি মিলেছে। এরপরও কেন হবে টেঁটা যুদ্ধ।

তিনি আরও বলেন, এলাকায় আধিপত্য বিস্তার নিয়ে নজরপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক, আলীপুরা গ্রামের বাসিন্দা শাহজাহান মিয়া ও একই গ্রামের আওয়ামী লীগ নেতা কামাল মিয়ার মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে কামাল মিয়ার লোকজন সকালে ঘুমন্ত মানুষের ওপর টেঁটা নিয়ে হামলা চালায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ। পরে অভিযান চালিয়ে আওয়ামী লীগ নেতা কামাল মিয়ার বাড়ি থেকে ৫০০ টেঁটা উদ্ধার করা হয়।

সঞ্জিত সাহা/এএম/জেআইএম