পাহারা দিয়েও পেঁয়াজ ক্ষেত রক্ষা করতে পারল না গ্রামপুলিশ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি সাতক্ষীরা
প্রকাশিত: ০৬:০৯ পিএম, ১৬ জানুয়ারি ২০২০

কয়েক মাস ধরে অতিরিক্ত দামে বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ। ভারত রফতানি বন্ধ করার পর বাংলাদেশে পাইকারি ও খুচরা বাজারে পেঁয়াজের দাম হু হু করে বেড়েছিল। পেঁয়াজের এই দাম বৃদ্ধি এখনও নিয়ন্ত্রণে আসেনি।

এ অবস্থায় সাতক্ষীরার বাজারে ২৭০-৩০০ টাকা কেজিতে বিক্রি হয়েছে পেঁয়াজ। তবে বর্তমানে আগের তুলনায় পেঁয়াজের দাম কিছুটা কম। সাতক্ষীরার খুচরা বাজারে বর্তমানে প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকায়। আর মিশর ও চায়না পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৬৫-৭০ টাকায়। বলা চলে এখনও নিয়ন্ত্রণহীন পেঁয়াজের বাজার।

পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণহীন থাকায় সাতক্ষীরার বিভিন্ন গ্রামাঞ্চলের ক্ষেত থেকে পেঁয়াজ চুরির হিড়িক পড়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি পেঁয়াজ চুরির ঘটনা ঘটছে কলারোয়া উপজেলায়। প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে পেঁয়াজ চুরি ঠেকাতে সামাজিক প্রতিরোধের বিকল্প নেই।

চুরি ঠেকাতে কলারোয়া উপজেলার দিগং গ্রামের কৃষকরা পেঁয়াজের মাঠ পাহারা দিচ্ছেন। প্রতি রাতেই পেঁয়াজ চুরির ঘটনা ঘটছে। তবে চোর শনাক্ত করা যাচ্ছে না। পেঁয়াজ চুরি ঠেকাতে রাতে ক্ষেতে পাহারা দিচ্ছেন দিগং গ্রামের আশরাফুল ইসলাম।

তিনি বলেন, এলাকায় ক্ষেত থেকে পেঁয়াজ চুরির হিড়িক পড়েছে। পুরো ফসলি মাঠ রাত জেগে সব কৃষকের পক্ষে পাহারা দেয়া সম্ভব হয় না। একদিকে কৃষকরা পাহারা দিলে আরেকদিকে পেঁয়াজ চুরি করে চোরেরা। প্রতি রাতেই ঘটছে এমন ঘটনা।

satkhira-(1)

কলারোয়া উপজেলার হেলাতলা ইউনিয়ন পরিষদের গ্রামপুলিশ এজাহার আলী বলেন, গ্রামপুলিশকে সবাই সমীহ করে। কিন্তু গ্রামপুলিশ হয়েও আমার পেঁয়াজ ক্ষেত রেহাই দেয়নি চোরেরা। ক্ষেতের সব পেঁয়াজ চুরি করে নিয়ে গেছে তারা। রাত জেগে পাহারা দিয়েও রক্ষা করতে পারিনি আমার পেঁয়াজ ক্ষেত। অন্যরা এখন পেঁয়াজ ক্ষেত পাহারা দিচ্ছে। এমন ঘটনা আমি এর আগে দেখিনি। চুরির কারণে অনেক কৃষক অপরিপক্ক পেঁয়াজ তুলে বিক্রি করে দিচ্ছেন।

স্থানীয় পেঁয়াজ চাষি আবুল হোসেন বলেন, দাম বেড়ে যাওয়ার পর পেঁয়াজের বীজেরও দাম বেড়ে যায়। বেশি টাকা খরচে পেঁয়াজ চাষ করে এখন বিপাকে পড়েছি আমরা। কোনোভাবেই পেঁয়াজ চুরি ঠেকাতে পারছি না। চুরি ঠেকাতে প্রশাসনের সহযোগিতা প্রয়োজন আমাদের।

সাতক্ষীরা সুলতানপুর এলাকার বড় বাজারের ব্যবসায়ী আমির হোসেন বলেন, আগের তুলনায় বর্তমানে পেঁয়াজের দাম কিছুটা কম। খুচরা বাজারে প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ ১০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। মিশর ও চায়না থেকে আমদানিকৃত পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৬৫-৭০ টাকায়।

পেঁয়াজ চুরি ঠেকানোর বিষয়ে সাতক্ষীরা পুলিশ প্রশাসনের বিশেষ শাখার সহকারী পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম বলেন, বিভিন্ন স্থানে ক্ষেত থেকে পেঁয়াজ চুরির ঘটনা শুনেছি। চুরি ঠেকাতে সম্মিলিত প্রতিরোধের উদ্যোগ নেয়া হবে। এছাড়া সামাজিকভাবে প্রতিরোধের বিকল্প নেই। তবে চোরদের বিষয়ে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আকরামুল ইসলাম/এএম/এমকেএইচ