অসুস্থ বাবাকে দেখতে গিয়ে তিন বোন-দুলাভাইসহ নিহত ৭

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি দিনাজপুর
প্রকাশিত: ০৩:৫৪ পিএম, ০৬ জুলাই ২০২০

দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলায় বিআরটিসির বাসের চাপায় ব্যাটারিচালিত একটি ভ্যানের সাত যাত্রী নিহত হয়েছেন। এদের মধ্যে তিন বোন, বোনের স্বামী, মেয়ে, নাতনি ও ভ্যানচালক রয়েছেন।

সোমবার (০৬ জুলাই) দুপুর ২টার দিকে দিনাজপুর-ঠাকুরগাঁও মহাসড়কের উপজেলার পঁচিশ মাইল এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় গুরুতর আহত অবস্থায় দুইজনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

নিহতরা হলেন- বীরগঞ্জ উপজেলার ভাবকী এলাকার ইদ্রিস আলীর স্ত্রী নাসরিন বেগম (৪৫) ও তার মেয়ে রুপা আক্তার (৮), তাদের নাতনি লামিয়া আক্তার (৭), কাহারোল উপজেলার দেবীপুর গ্রামের আবদুল গণির ছেলে আবুল হোসেন (৬০) ও তার স্ত্রী আসমা বেগম (৫০), একই এলাকার আতিয়ার রহমানের স্ত্রী নারগিস আক্তার (৩৫) ও ভ্যানচালক।

স্থানীয় সূত্র জানায়, বড় বোন আসমা বেগমের বীরগঞ্জ উপজেলার ৮ নম্বর ভোগনগর ইউনিয়নের ভাবকী গ্রামের বাড়িতে মেয়ে রুপা ও ছোট বোন নার্গিস বেগমকে নিয়ে সোমবার সকালে একত্রিত হন মেজো বোন নাসরিন বেগম। সবার উদ্দেশ্য ছিল অসুস্থ বাবা আছিম উদ্দিনকে দিনাজপুরের বীরগঞ্জ উপজেলার ৭ নম্বর মোহাম্মপুর ইউনিয়নের রনপাড়ায় দেখতে যাবেন।

দুপুরে খাওয়া-দাওয়া শেষে ভগ্নিপতি আবুল হোসেন ব্যাটারিচালিত ভ্যান ভাড়া করে নিয়ে আসেন। ওই ভ্যানে আবুল হোসেন, স্ত্রী আসমা বেগম এবং নাতনি লামিয়া, আসমার বোন নাসরিন বেগম, তার মেয়ে রুপা ও বীরগঞ্জ উপজেলার ৫ নম্বর সুজালপুর ইউনিয়নের মুড়িয়ালা গ্রাম থেকে আসা ছোট শ্যালিকা নার্গিস বেগমকে নিয়ে রওনা দেন রনপাড়ায় অসুস্থ বাবাকে দেখার জন্য। দুপুর ২টার দিকে দিনাজপুর-ঠাকুরগাঁও মহাসড়কের উপজেলার পঁচিশ মাইল এলাকায় বিআরটিসি বাস পেছন দিক থেকে ব্যাটারিচালিত ভ্যানটির ওপর উঠিয়ে দেয়।

এতে ঘটনাস্থলেই নাসরিন বেগম, তার মেয়ে রুপা ও নাতনি লামিয়া নিহত হন। বীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে নেয়ার পর মারা যান আসমা বেগম ও ভ্যানচালক। দিনাজপুরের এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালের জরুরি বিভাগে বিকেল সাড়ে ৩টায় আবুল হোসেন ও নার্গিস বেগম মারা যান। তবে মৃত ভ্যানচালকের পরিচয় পাওয়া যায়নি।

বীরগঞ্জ থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল মতিন প্রধান বলেন, উপজেলার পঁচিশ মাইল বাজার এলাকায় ব্যাটারিচালিত ভ্যানের ওপর ওঠে যায় বিআরটিসির বাস। এতে ঘটনাস্থলেই তিনজনের মৃত্যু হয়। আহত অবস্থায় হাসপাতালে নেয়ার পর আরও চারজন মারা যান। গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি আছেন দুইজন। তবে এ দুর্ঘটনায় বাসের বাসের যাত্রীদের তেমন কোনো ক্ষতি হয়নি।

এমদাদুল হক মিলন/এএম/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]