২০২১ সালের শেষে উৎপাদনে যাবে রামপাল পাওয়ার প্ল্যান্ট

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক খুলনা
প্রকাশিত: ০৯:১২ পিএম, ০১ ডিসেম্বর ২০২০

বাংলাদেশ বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) চেয়ারম্যান প্রকৌশলী বেলায়েত হোসেন বলেছেন, মুজিববর্ষে দেশকে শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় আনতে আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। এ লক্ষ্যে রামপাল পাওয়ার প্ল্যান্টের কাজ দ্রুতগতিতে এগিয়ে নেয়া হচ্ছে। আমরা আশা করছি, ১৩২০ মেগাওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন দুই ইউনিটবিশিষ্ট মৈত্রী সুপার থার্মাল পাওয়ার প্ল্যান্টের প্রথম ইউনিট ২০২১ সালের শেষ দিকে এবং ২০২২ সালের প্রথম দিকে দ্বিতীয় ইউনিট উৎপাদনে যাবে।

মঙ্গলবার (১ ডিসেম্বর) বিকেলে পাওয়ার প্ল্যান্টে নবনিযুক্ত প্রকৌশলীদের অভিষেক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য তিনি এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ-ভারত ফ্রেন্ডশিপ পাওয়ার কোম্পানি প্রাইভেট লিমিটেড (বিআইএফপিসিএল) রামপাল পাওয়ার প্ল্যান্ট প্রকল্প এলাকায় এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে চার মাসের প্রশিক্ষণ শেষে প্রথম ব্যাচের প্রকৌশলীরা কাজে যোগদান করেন।

পিডিবি চেয়ারম্যান প্রকৌশলী বেলায়েত হোসেন বলেন, পরিবেশগত সব আন্তর্জাতিক মান বজায় রেখেই রামপাল পাওয়ার প্ল্যান্ট নির্মাণ করা হচ্ছে। এই প্ল্যান্টে আমদানি করা উন্নতমানের কয়লা ব্যবহার করা হবে। আল্ট্রা সুপার প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে স্বল্প কয়লা ব্যবহার করে অধিক বিদ্যুৎ উৎপাদন করা যাবে। দেশে বিদ্যুৎ খাতের অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে। প্রায় ১১ বছরে ১০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যোগ হয়েছে। বর্তমান উৎপাদন ক্ষমতা ২০ হাজার ৩০০ মেগাওয়াট ছাড়িয়েছে।

khulna-Power-plant-1

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে বিআইএফপিসিএল’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক অনিমেশ জইন বলেন, নবনিযুক্ত তরুণ প্রকৌশলীদের কর্মকাণ্ডে প্ল্যান্টে আরও গতি আসবে। এ বছর সেপ্টেম্বরের পর ভারত থেকে এক হাজার ২০০ দক্ষ শ্রমিক ফিরে এসেছে। বর্তমানে প্ল্যান্টে বাংলাদেশি শ্রমিকসহ মোট ৭ হাজারেরও অধিক শ্রমিক কর্মরত। প্রকল্পটির অবকাঠামোগত কাজের শতকরা ৫৫ ভাগ এবং আর্থিক অগ্রগতির শতকরা ৬০ ভাগ শেষ হয়েছে।

অনুষ্ঠানে বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক মো. মামুনুর রশিদ, পুলিশ সুপার পঙ্কজ চন্দ্র রায়, রামপাল পাওয়ার প্ল্যান্টের প্রকল্প পরিচালক এসসি পান্ডে, উপ-প্রকল্প পরিচালক মো. রেজাউল করিমসহ প্রতিষ্ঠানের পদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আলমগীর হান্নান/আরএআর/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]