মাতব্বরকে ধরার গুজবে আ.লীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ফরিদপুর
প্রকাশিত: ০৮:০৬ এএম, ১৮ এপ্রিল ২০২১

ফরিদপুরের ভাঙ্গায় এক পক্ষের মাতব্বরকে ধরার গুজব ছড়িয়ে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে কমপক্ষে ১৫ জন আহত হয়েছেন। এদের মধ্যে দেলোয়ার ও আবু মোল্লা নামে গুরুতর আহত দুজনকে ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

অন্যদের ভাঙ্গা ও রাজৈর হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হয়। শনিবার (১৭ এপ্রিল) দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ঘারুয়া ইউনিয়নের রাজেশ্বরদী গ্রামে দফায় দফায় এ সংঘর্ষ হয়।

গত দুদিন যাবত এ দুই পক্ষের মধ্যে থেমে থেমে সংঘর্ষ হচ্ছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

এলাকাবাসী জানান, শাখাওয়াত মাতুব্বর ও ইদ্রিস হাওলাদার নামে স্থানীয় দুজন মাতব্বরের মাঝে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিরোধ চলে আসছে। এরা উভয়েই বর্তমান এমপি মুজিবর রহমান নিক্সন চৌধুরীর সমর্থক। শনিবার দুপুরে একপক্ষের মাতব্বর শাখাওয়াত মাতুব্বরকে পুলিশ একটি মামলায় গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যায়।

এরপর শাখাওয়াতকে প্রতিপক্ষ ইদ্রিস মাতব্বরের লোকজন ধরে নিয়ে গেছে এমন গুজব ছড়িয় পড়ে গ্রামে। এ নিয়ে শাখাওয়াতের সমর্থকরা প্রতিপক্ষের ওপর হামলা চালায়।

এরপর উভয় পক্ষ সংঘবদ্ধ হয়ে দেশীয় অস্ত্র ঢাল, সড়কি, টেঁটা ও ইটপাটকেল নিয়ে ব্যাপকভাবে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। প্রায় দুই ঘণ্টা যাবত চলে ধাওয়া পাল্টাধাওয়া ও সংঘর্ষ।

খবর পেয়ে ভাঙ্গা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সংঘর্ষকালে উভয় পক্ষের বাড়িঘর ভাঙচুর ও গবাদিপশু ও মালামাল লুট হয়।

এ ঘটনায় ভাঙ্গা থানার এসআই শহিদুল্লাহ বলেন, গত দুইদিন ধরে ওই গ্রামের দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ চলছে। উভয় পক্ষ থানায় তিনটি মামলা করেছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। সংঘর্ষ এড়াতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।

এফএ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]