রাজবাড়ীতে অপহরণের পর আটকে রেখে স্কুলছাত্রীকে ‘ধর্ষণ’

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি রাজবাড়ী
প্রকাশিত: ০৫:৪৪ এএম, ১৮ মে ২০২১

রাজবাড়ী সদর উপজেলার নবম শ্রেণি পড়ুয়া এক স্কুলছাত্রীকে অপহরণের পর এক মাসের বেশি সময় আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় মূল অপহরণকারীসহ দুইজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সোমবার (১৭ মে) সকালে এ ঘটনায় ওই ছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে তিনজনকে আসামি করে রাজবাড়ী সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

এর আগে রোববার (১৬ মে) রাতেই পুলিশ অভিযান চালিয়ে অপহৃত ছাত্রীকে উদ্ধার এবং প্রধান অভিযুক্ত শিপন (২২) ও তার মা জোস্না বেগমকে (৪২) আটক করে। মামলা দায়েরের পর তাদের গ্রেফতার দেখানো হয়। তবে মামলার অপর আসামি শিপনের ছোট ভাই বাবু পলাতক রয়েছেন।

গ্রেফতার শিপন রাজবাড়ী সদর উপজেলার রামকান্তপুর ইউনিয়নের বড়মুরারীপুর গ্রামের শুকুর আলী ওরফে সুকচানের ছেলে।

ওই ছাত্রীর বাবা বলেন, ‘শিপন ভালো ছেলে না। এলাকার মেয়েরা স্কুলে আসা-যাওয়া করার সময় শিপন তাদের উত্ত্যক্ত করতো। তার মেয়েকেও একইভাবে উত্ত্যক্ত এবং কুপ্রস্তাব দিতো। বিষয়টি তার মেয়ে তাদেরকে জানায়। পরবর্তীতে তিনি শিপনের পরিবারকে বিষয়টি জানান। এতে শিপন ক্ষিপ্ত হয়ে গত ১০ এপ্রিল সকালে তার মেয়ে স্কুলে যাওয়ার জন্য বের হলে অপহরণ করে। কিন্তু অনেক খোঁজাখুঁজি করে মেয়েকে না পেয়ে গত ২ মে রাজবাড়ী সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করি।’

তিনি আরও বলেন, ‘ঘটনার দিন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে সদর উপজেলার কাজীবাঁধা মোড় থেকে শিপনের নেতৃত্বে আসামিরা একটি মাইক্রোবাসে আমার মেয়েকে জোর করে তুলে নিয়ে যায় এবং অজ্ঞাত স্থানে আটকে রেখে তাকে ধর্ষণ করে। বিষয়টি জানার পর আমরা শিপনের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তারা মেয়েকে ফেরত দেবে বলে আজ কাল করে তালবাহানা শুরু করে। কিন্তু মেয়েকে ফেরত দেয় না। এ কারণে আমি থানায় মামলা করি।’

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও রাজবাড়ী সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সনাতন কুমার মন্ডল বলেন, অভিযোগের ভিত্তিতে শিপনের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে রোববার রাতে অপহৃত স্কুলছাত্রীকে উদ্ধার এবং মামলার আসামি শিপন ও তার মাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মামলার অপর আসামি শিপনের ভাই পলাতক রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, স্কুলছাত্রীকে উদ্ধারের পর আজ (সোমবার) রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে তার মেডিকেল টেস্ট করানো হয় এবং দুপুরে রাজবাড়ী আদালতের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে জবানবন্দি শেষে গ্রেফতার আসামিদের কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

মামলার পলাতক আসামিকে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান তিনি।

রুবেলুর রহমান/এমআরআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]