বন্যপ্রাণীর নিরাপত্তা চেয়ে পল্লীবিদ্যুৎ সমিতিকে বনবিভাগের চিঠি

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ১১:৩২ এএম, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১

বন্যপ্রাণীরা যাতে নিরাপদে চলাচল করতে পারে সেজন্য বনাঞ্চলের ভেতর দিয়ে টানা বিদ্যুৎ লাইনের তারে আবরণ বা কভার লাগাতে নির্দেশনা দিয়ে মৌলভীবাজার পল্লীবিদ্যুৎ সমিতিকে চিঠি দিয়েছে বনবিভাগ। সম্প্রতি মৌলভীবাজার পল্লীবিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজারকে এ চিঠি দেওয়া হয়।

জেলার কমলগঞ্জের লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের বনাঞ্চলের ভেতর দিয়ে পল্লীবিদ্যুতের ৩৩ হাজার কেভি গ্রিডলাইন স্থাপন করা হয়েছে। এতে বনের স্তন্যপায়ী বন্যপ্রাণী হুমকিতে রয়েছে। গত তিন মাসে পাঁচটি বন্যপ্রাণীর প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে।

চিঠি সূত্রে জানা গেছে, ১৬৭ প্রজাতির বৃক্ষ, ২৪৬ প্রজাতির পাখি, ২০ প্রজাতির স্তন্যপায়ী প্রাণী, ৫৯ প্রজাতির সরীসৃপ, ২৯ প্রজাতির সাপ, ১৮ প্রজাতির লিজার্ড, দুই প্রজাতির কচ্ছপ, ২২ প্রজাতির উভচরসহ অসংখ্য বিরল ও বিপন্ন প্রজাতির বন্যপ্রাণীর আবাসস্থল ও প্রজননক্ষেত্র লাউয়াছড়া বনাঞ্চল। লাউয়াছড়ায় অভ্যন্তরীণসহ আশপাশের বিদ্যুতায়িত এলাকায় ৩৩ হাজার কেভি হাই-ভোল্টেজের বিদ্যুৎলাইনে কোনো আবরণ না থাকায় প্রতি মাসে স্তন্যপায়ী বন্যপ্রাণী উল্লুক, মুখপোড়া হনুমান, চশমাপরা হনুমান, লজ্জাবতী বানরসহ অন্যান্য প্রাণী বৈদ্যুতিক তারে জড়িয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে আহত ও নিহত হচ্ছে।

বনবিভাগ সূত্রে জানা গেছে, গত তিন মাসে বিদ্যুতের তারে জড়িয়ে পাঁচটি বিরল ও বিপন্ন জাতের বন্যপ্রাণীর মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। এখনই নিরাপত্তা না দিলে এ বনাঞ্চল থেকে প্রাণীগুলো বিলুপ্ত হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

মৌলভীবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার মো. জিয়াউর রহমান চিঠি পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

আব্দুল আজিজ/এসআর/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]