শ্বশুরবাড়িতে ডেকে নিয়ে প্রেমিককে হত্যা, দুজনের মৃত্যুদণ্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক সিলেট
প্রকাশিত: ০৮:৪৮ এএম, ২৫ নভেম্বর ২০২১
ফাইল ছবি

সিলেটের কানাইঘাটে পরকীয়া সম্পর্ক গড়ে তুলে প্রেমিক ইমরান হোসেন (২৫) নামের এক যুবককে হত্যার দায়ে দুজনের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে প্রত্যেককে এক লাখ টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরও তিন বছরের বিনাশ্রম কারাদণ্ড প্রদান করা হয়।

অভিযোগ সন্দেহাতিতভাবে প্রমাণিত না হওয়ায় এই মামলার দুই আসামিকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন বিচারক। বুধবার বিকেলে সিলেট জেলার অতিরিক্ত দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিচারক মো. ইব্রাহিম মিয়া এ রায় ঘোষণা করেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- কানাইঘাট উপজেলার দুর্গাপুর দক্ষিণ নয়াগ্রামের সৌদিপ্রবাসী বদরুল ইসলামের স্ত্রী সুহাদা বেগম (২৫) ও সুহাদার প্রতিবেশী ও নিকটাত্মীয় জাহাঙ্গীর আলম (২৬)। এছাড়া অভিযোগ থেকে বেকসুর খালাস পেয়েছেন ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত সুহাদার ভাই ইমরান আহমদ (৩৩) ও দেবর মাসুম আহমদ (৩৫)।

সংশ্লিষ্ট আদালতের অতিরিক্ত সরকারি কৌঁসুলি (এপিপি) রঞ্জিত সরকার এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, রায় ঘোষণার সময় আসামিরা পলাতক ছিলেন। মামলায় ২৫ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৪ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হয়েছে।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬ সালের ১৯ সেপ্টেম্বর নিখোঁজ হন কানাইঘাট পৌর শহরে চয়েস টেইলার্সের মালিক ইমরান আহমদ। পৌর শহরের সোনাপুর এলাকার বাসিন্দা ইমরানকে কথিত প্রেমিকা সুহাদার শ্বশুরবাড়িতে দাওয়াত দিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর থেকে নিখোঁজ হন ইমরান আহমদ। নিখোঁজের দুই দিন পরও তার কোনো সন্ধান না পেয়ে ইমরান আহমদের বাবা আবু বক্কর কানাইঘাট থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন।

নিখোঁজের চারদিন পর আবু বক্কর ২৩ সেপ্টেম্বর কানাইঘাট থানায় সুহাদা বেগম ও তার ভাই ইমরান আহমদ, দেবর মাসুম আহমদ ও লক্ষ্মীপ্রসাদ গ্রামের জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে মামলা করেন।

মামলার পরই পুলিশ সুহাদা বেগম ও জাহাঙ্গীর আলমকে গ্রেফতার করে। পরবর্তী সময়ে তাদের দেওয়া তথ্যের ভিত্তিতে পরদিন ২৪ সেপ্টেম্বর রাতে সুহাদার শ্বশুরবাড়ির পুকুর থেকে ইমরান হোসেনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে ২৫ সেপ্টেম্বর হত্যাকাণ্ডের বিস্তারিত বর্ণনা দিয় আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন কথিত প্রেমিকা সুহাদা।

এ ঘটনায় দণ্ডপ্রাপ্ত এ দুজনসহ চারজনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দেয় পুলিশ। আদালত চাঞ্চল্যকর এই হত্যা মামলার বিচার কার্যক্রম সম্পন্ন করে বুধবার রায় প্রদান করেন।

ছামির মাহমুদ/এফএ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]