হাসপাতাল তত্ত্বাবধায়কের কাছে ক্ষমা চাইলেন সেই আ’লীগ নেতা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নোয়াখালী
প্রকাশিত: ০৬:২২ পিএম, ২৯ নভেম্বর ২০২১

নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ককে লাঞ্ছনার ঘটনায় সমঝোতা বৈঠকে ‘ক্ষমা চেয়েছেন’ জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহীন।

সোমবার (২৯ নভেম্বর) দুপুরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে হাসপাতালের চিকিৎসক, কর্মচারী ও আওয়ামী লীগ নেতাদের এ সমঝোতার বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

নোয়াখালী জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ খোরশেদ আলম খান সন্ধ্যায় জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, জনদুর্ভোগ লাঘবে উদ্যোগ নিয়ে দুপক্ষের মধ্যে সমঝোতা করা হয়েছে। এতে জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. হেলাল উদ্দিন সেদিনের ঘটনার বর্ণনা দেন এবং প্রতিকার দাবি করেন। পরে আওয়ামী লীগ নেতারা ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন।

এ সময় নোয়াখালী পুলিশ সুপার (এসপি) মো. শহীদুল ইসলাম, জেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক অধ্যক্ষ খায়রুল আনম সেলিম, যুগ্ম আহ্বায়ক ও নোয়াখালী পৌরসভার মেয়র শহীদ উল্যাহ খান সোহেল, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) জেলা সভাপতি ডা. এম এ নোমান, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের (স্বাচিপ) জেলা সভাপতি ডা. ফজলে এলাহী খান, হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) মহিউদ্দিন আবদুল আজিমসহ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

স্বাচিপ সভাপতি ডা. ফজলে এলাহী খান জাগো নিউজকে বলেন, জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে সমঝোতা বৈঠকে ঘটনার জন্য নিঃশর্ত ক্ষমা চেয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহীন। পরে বাকি অভিযুক্তদের গ্রেফতারের অঙ্গীকারে চিকিৎসক-কর্মচারীরা ধর্মঘট প্রত্যাহার করে কাজে ফিরেছেন।

অ্যাডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহীন জাগো নিউজকে বলেন, আমি ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ (সরি) করেছি। এছাড়া আসামিদের গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছি।

সুধারাম মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাহেদ উদ্দিন বলেন, এ ঘটনায় আটজনের নামসহ অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

এর আগে রোববার (২৮ নভেম্বর) দুপুর ১টায় হাসপাতালের এমএসআর সামগ্রী ক্রয়ের দরপত্র কিনতে গিয়ে তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. হেলাল উদ্দিনকে লাঞ্ছনা করেন জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট শিহাব উদ্দিন শাহীন ও তার অনুসারীরা।

এ ঘটনার পর হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স, কর্মকর্তা-কর্মচারীরা একযোগে কর্মবিরতির ঘোষণা দিয়ে কর্মস্থল থেকে সরে পড়েন। এতে জেলার ৯ উপজেলা থেকে হাসপাতালে আসা রোগীরা চরম দুর্ভোগে পড়েন। পরে সোমবার সকালে চিকিৎসক-কর্মচারীরা মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশ করে সন্ত্রাসীদের কুশপুতুল দাহ করেন।

ইকবাল হোসেন মজনু/এসজে/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]