শিক্ষার্থীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগে মাদরাসার অধ্যক্ষ আটক

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নোয়াখালী
প্রকাশিত: ০৪:৫০ এএম, ১৭ এপ্রিল ২০২২

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে নবম শ্রেণির এক শিক্ষার্থীকে শ্লীলতাহানির (বলাৎকার) অভিযোগে আবু আফসার মো. মিজানুর রহমান নামে এক মাদরাসার অধ্যক্ষকে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার (১৬ এপ্রিল) দিবাগত রাতে আমানুল্লাহপুরের কেন্দুরবাগ এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়েছে।

আটক মিজানুর রহমান আমানুল্লাহপুর ইউনিয়নের বাসিন্দা ও স্থানীয় জয়নারায়ণপুর ইসলামিয়া ফাজিল মাদরাসার অধ্যক্ষ।

বেগমগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মীর জাহেদুল হক রনি আটকের বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, গত ফেব্রুয়ারি মাসে এক ছাত্রকে শ্লীলতাহানির বিষয়টি সম্প্রতি গণমাধ্যমসহ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়। পরে অভিযুক্ত অধ্যক্ষকে পুলিশের হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। বাদীর লিখিত অভিযোগ অনুযায়ী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, ওই অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে গত কয়েক মাস ধরে একাধিক শিক্ষার্থীর সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্ক স্থাপনের অভিযোগ উঠে। বিষয়টি নিয়ে অনেকে ম্যানেজিং কমিটি বরাবর অভিযোগ করেও কোনো প্রতিকার পাননি। পরে অধ্যক্ষের অপসারণ ও বিচার দাবি করে ছাত্র-শিক্ষকরা মানববন্ধনসহ আন্দোলন করলে বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে।

jagonews24

মাদরাসা পরিচালনা কমিটির সদস্য মো. আক্তার হোসেন জাগো নিউজকে বলেন, গত ফেব্রুয়ারি মাসের ১৭ তারিখ অভিযোগটি আমাদের কাছে আসে। আমরা অধ্যক্ষকে অপসারণের উদ্যোগ নিলে তিনি অফিসের কাগজপত্র বুঝিয়ে দিতে তিন মাস সময় চান। পরে সরকারি নিয়মানুযায়ী তাকে অপসারণের কাজ চলছিল। কিন্তু তিনি গত ২৮ মার্চ তিন মাসের ছুটির দরখাস্ত দিয়ে চলে যান।

এ বিষয়ে মাদরাসাটির ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মো. শহীদুল আহসানের সঙ্গে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তা সম্ভব হয়নি।

নোয়াখালীর পুলিশ সুপার (এসপি) মো. শহীদুল ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, বিষয়টি জানার সঙ্গে সঙ্গে প্রযুক্তির সহায়তায় অভিযুক্ত অধ্যক্ষের অবস্থান শনাক্ত করে তাকে আটক করা হয়েছে। তার বিরুদ্ধে অভিযোগ তদন্ত করে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

ইকবাল হোসেন মজনু/এমকেআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]