টানা দুদিন ৪১ ডিগ্রি তাপমাত্রা চুয়াডাঙ্গায়

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি চুয়াডাঙ্গা
প্রকাশিত: ০৮:৩৩ পিএম, ২৫ এপ্রিল ২০২২
গরম থেকে একটু স্বস্তি পেতে মসজিদে সময় কাটাচ্ছে মানুষ

সোমবার (২৫ এপ্রিল) চুয়াডাঙ্গা জেলায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৪১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গত আট বছরের মধ্যে জেলায় এটিই সর্বোচ্চ তাপমাত্রার রেকর্ড।

এ নিয়ে টানা চারদিন জেলায় দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা বিরাজ করছে। রাত ৮টায় আবহাওয়া অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

এর আগে রোববার (২৪ এপ্রিল) চুয়াডাঙ্গায় ৪১ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। তার আগে শনিবার (২৩ এপ্রিল) তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৩৯ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। শুক্রবার ছিল ৩৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

Hit-(3).jpg

চুয়াডাঙ্গা আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সামাদুল হক জানান, ২০১৪ সালের ২১ মে চুয়াডাঙ্গার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিলো ৪৩ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এর দীর্ঘ আট বছর পরর রোববার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৪১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বর্তমানে চুয়াডাঙ্গার ওপর দিয়ে তীব্র দাবদাহ বয়ে চলেছে। বৃষ্টি না হলে তাপমাত্রা আরও বাড়তে পারে বলে জানান এ কর্মকর্তা।

প্রচণ্ড রোদের কারণে চুয়াডাঙ্গায় রাস্তায় মানুষের চলাফেরা কমে গেছে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া মানুষ বাড়ির বাইরে বের হচ্ছেন না। দুপুরের দিকে গরম বাতাস গায়ে লাগলে মনে হচ্ছে শরীর পুড়ে যাচ্ছে। কোথাও স্বস্তি মিলছে না।

Hit-(3).jpg

বিকেলের দিকে রোদের তীব্রতা কমে গেলেও গরমে হাঁসফাঁস করেছে মানুষ। খেটেখাওয়া মানুষগুলোকে অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে।

শহরের রিকশাচালক নিনারুল হক বলেন, ‘গরমের কারণে শরীর একেবারে কাহিল অবস্থা। রোদের তেজ দেকে মানুষ ঘর থেকে বের হচ্ছে না। লোকজন ঘর থেকে বের না হওয়ায় আমরা যাত্রীও পাচ্ছি না। ফলে সারাদিনে ২০০ টাকাও ভাড়া মারতে পারছি না।’

প্রচণ্ড গরমের কারণে বাজারে তরমুজ, ডাব ও আখের রসের চাহিদা বেড়ে গেছে।

সালাউদ্দীন কাজল/এসআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]