কেনাকাটা ঘোরাঘুরিতে উষ্ণতা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৩৪ পিএম, ১১ জানুয়ারি ২০১৮

শীতের তীব্রতা কমার সঙ্গে সঙ্গে বাণিজ্য মেলায় কেনাকাটা ও ঘোরাঘুরির উষ্ণতা বেড়েছে। মেলা শুরুর পর গত ৭ ও ৮ জানুয়ারি তীব্র শৈতপ্রবাহের কারণে ক্রেতা ও দর্শনার্থীর সংখ্যা একেবারে কমে যায়। গেলো দু’দিন শীতের তীব্রতা একটু কমে যাওয়ায় ফের জমতে শুরু করে ২৩তম বাণিজ্য মেলা।

মেলার ১১তম দিনে কাঙ্ক্ষিত ক্রেতা ও দর্শনার্থীর উপস্থিতি লক্ষ্য করা গেছে। বেচাবিক্রিও ভালো বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।

বিক্রেতারা বলছেন, আগের দু’দিনের তুলনায় বিক্রি বেশ বেড়েছে। অনেকে সপরিবারে ঘুরতে আসেন। গতকাল সকাল থেকে দর্শনার্থীদের সরব উপস্থিতি ছিল। বিকাল ৩টার পর লোকসমাগম বাড়তে থাকে। ৪টার পর টিকিট কাউন্টারে লাইন দিয়ে দর্শনার্থীদের প্রবেশ করতে দেখা যায়। স্টলগুলোতে বিক্রেতারা ব্যস্ত সময় পার করেন।

fair

ঢাকার মিরপুরের বাসিন্দা কামাল পারভেজ সপরিবারে মেলায় আসেন। তিনি বলেন, বিভিন্ন কাজে এতোদিন সময় পাইনি। শুক্রবার ভিড় হবে বিধায় আজ আসা। কিন্তু এসে দেখি ব্যাপক লোকসমাগম। দেখে ভালো লাগছে।

এবারের মেলায় তৈজসপত্র ভালো বিক্রি হচ্ছে। ডেজিনি নামের দেশীয় তৈজসপত্র বিক্রেতা প্রতিষ্ঠানের মাহফুজ বলেন, মেলা উপলক্ষে ক্রেতাদের বিশেষ অফার দেয়া হচ্ছে। ৩৩ হাজার টাকার ১২ পিস পণ্য মাত্র সাড়ে ২৪ হাজার টাকায় দেয়া হচ্ছে। ১২ পিসের মধ্যে রয়েছে আধুনিক প্রযুক্তির ইটালিয়ন চুলা, ২৮ লিটারের মাইক্রোয়েভ ওভেন, মাল্টি কুকার, কারি কুকার, রাইস কুকার, স্যান্ডউইচ মেকার, পানির ফিল্টার, পাঁচটি রান্নার হাড়ি, ব্লেলেন্ডার ও রুটি মেকার। এছাড়া ক্রেতারা পছন্দ মতো পণ্য চেঞ্জ করতে পারবেন।

বাড্ডার আরমান বলেন, আজকাল পুরো পরিবার নিয়ে তেমন বিনোদনের সুযোগ হয় না। মেলায় এসে সেই বিনোদনের কিছুটা পূরণ হয়। প্রতি বছর রুটিন করে পুরো পরিবার নিয়ে মেলায় আসি। শুধু কেনাকাটাই মূল উদ্দেশ্য নয়। পরিবার নিয়ে ঘুরতে আসাটাই মুখ্য। একসঙ্গে ঘোরাঘুরি, আড্ডা দেয়া, খাওয়া-দাওয়া- বেশ মজাই হয়।

fair

খেলনা বিক্রেতা আহাদ বলেন, এবার শিশু খেলনার চাহিদা বেশ। যারা বাচ্চাদের নিয়ে মেলায় আসেন তারা কিছু না কিনলেও বাচ্চাদের জন্য অন্তত খেলনা কেনেন। তাই এবার শুরু থেকে বিক্রিও ভালো।

এবার ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় গ্রাহকদের জন্য বিশেষ অফার নিয়ে এসেছে দেশের অন্যতম বৃহৎ খাদ্যপণ্য প্রক্রিয়া ও বাজারজাতকারী প্রতিষ্ঠান প্রাণ। মেলা শুরুর প্রথম দিন থেকে জমে উঠেছে প্রাণের প্যাভিলিয়ন। বিভিন্ন অফার দেয়া হয়েছে। সেগুলো লুফে নিতে ক্রেতাদের হিড়িক চোখে পড়ার মতো। ন্যূনতম ১০০ টাকার পণ্য কিনলে ১০ টাকা ছাড় দেয়া হচ্ছে।

মেলায় প্রিমিয়ার প্যাভিলিয়নে নানা ধরনের বিস্কুট ও বেভারেজ পণ্য পাওয়া যাচ্ছে। অন্যদিকে নুডলস, কেক, মসলা, দুগ্ধপণ্য ও তৈরি পোশাক দিয়ে সাজানো হয়েছে। বিক্রেতারা জানান, দেশি-বিদেশি ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে বাণিজ্য মেলায় প্রাণের অংশগ্রহণ। এছাড়া ভোক্তাদের পণ্য সম্পর্কে জানাতে এ মেলা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

এমএ/এমএআর/আইআই

আপনার মতামত লিখুন :