বাণিজ্য মেলায় প্রতারণা : অভিযোগ করে দেড় লাখ টাকা পুরস্কার

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:০৪ এএম, ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮
ফাইল ছবি

ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রতারণার অভিযোগ করে ২৫ জন ভোক্তা পেয়েছেন দেড় লাখ টাকা। অভিযোগকারীদের পুরস্কার হিসেবে এসব টাকা প্রদান করে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর। বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেছেন প্রতিষ্ঠানটির সহকারী পরিচালক মো. আব্দুল জব্বার মন্ডল।

তিনি জানান, প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী পণ্য না দেয়া, অতিরিক্ত মূল্য আদায়, মিথ্যা বিজ্ঞাপনসহ নানা অভিযোগে মেলায় প্রায় ৫০টির মতো প্রতিষ্ঠানকে ৭ লাখ ৫২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। এর মধ্যে ভোক্তাদের অভিযোগের ভিত্তিতে পাঁচ লাখ ৯১ হাজার টাকা এবং মেলা চলাকালীন সময়ে অভিযান চালিয়ে ১ লাখ ৬১ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

আব্দুল জব্বার মন্ডল বলেন, এবার মেলায় ভোক্তারা বিভিন্নভাবে প্রতারিত হয়ে ৪০টি লিখিত অভিযোগ করেন। এর মধ্যে চারটির প্রমাণ পাওয়া যায়নি এবং ১১টি অভিযোগ সমঝোতার মাধ্যমে নিষ্পত্তি করা হয়। বাকি ২৫টি অভিযোগের প্রমাণ পাওয়া যায়। ফলে ২৫ প্রতিষ্ঠানকে মোট পাঁচ লাখ ৯১ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। আইন অনুযায়ী জরিমানার ২৫ শতাংশ পুরস্কার হিসেবে ১ লাখ ৪৭ হাজার ৭৫০ টাকা ভোক্তাদের প্রদান করা হয়েছে।

অধিদফতরের এ সহকারী পরিচালক বলেন, বাণিজ্য মেলার শুরু থেকে ক্রেতা-বিক্রেতাদের সচেতনতার পাশাপাশি সক্রিয় কার্যক্রম চালায় অধিদফতর। ভোক্তাদের স্বার্থে মেলায় সর্বক্ষণিক মনিটারিং ব্যবস্থা অব্যাহত ছিল। চলেছে নিয়মতি অভিযান। যারা আইনের নির্দেশনা অমান্য করে অনৈতিকভাবে ব্যবসা করছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এছাড়াও যে সব বিক্রেতাদের কাছে প্রতারিত হয়ে যেসব ক্রেতা আমাদের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছে প্রমাণ সাপেক্ষে সেসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হ‌য়ে‌ছে। একই স‌ঙ্গে জরিমানার ২৫ শতাংশ টাকা পুরস্কার হিসেবে অভিযোগকারীদেরকে প্রদান করা হয়ে‌ছে।

ভোক্তাদের উদ্দেশ্যে এ অধিদফতরের এ কর্মকর্তা বলেন, শুধু বা‌ণিজ্য মেলা নয়। সারা বছরই ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফতর বাজার মনিটরিং‌য়ের কাজ ক‌রে থা‌কে।

ভোক্তা‌দের পণ্য ও সেবা ক্রয় করার পূর্বে যাচাই-বাছাই করে ‌নেয়ার পরামর্শ দি‌য়ে ‌তি‌নি ব‌লেন, এরপরও যদি প্রতারিত হন তাহলে ভোক্তা অধিদফতরে অভিযোগ করুন। অভিযোগের প্রেক্ষি‌তে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এসআই/এআরএস