প্রাণ-এর চিকেন বিরিয়ানি দু’টি কিনলে একটি ফ্রি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:৫০ পিএম, ১৭ জানুয়ারি ২০১৯

ঢাকা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় রান্না করা দুই প্যাকেট চিকেন বিরিয়ানি কিনলে এক প্যাকেট ফ্রি দিচ্ছে প্রাণ। আর তিন প্যাকেট চিকেন ভুনা খিচুড়ি কিনলে ফ্রি দেয়া হচ্ছে এক প্যাকেট। বাণিজ্য মেলায় অবস্থিত প্রাণ গুঁড়া মসলার প্রিমিয়ার স্টল থেকে আগ্রহী ক্রেতারা এ অফার নিতে পারবেন।

বাণিজ্য মেলার প্রধান গেট দিয়ে প্রবেশ করে সোজা দক্ষিণ দিকে এগিয়ে গেলেই পাওয়া যাবে এ প্রিমিয়ার স্টলটি। স্টলটিতে প্রাণ-এর বিভিন্ন ধরনের মসলার পসরা বসানো হয়েছে। স্টলের ডানপাশে একটি বুথ বসিয়ে বিক্রি করা হচ্ছে রান্না করা চিকেন বিরিয়ানি ও চিকেন ভুনা খিচুড়ি।

প্যাকেটজাত ২৫০ গ্রামের এক প্যাকেট চিকেন বিরিয়ানি বা চিকেন ভুনা খিচুড়ির প্রকৃত মূল্য ১৬০ টাকা। তবে স্টলটি থেকে বিক্রি করা হচ্ছে ১৫০ টাকায়। আগ্রহীরা চাইলে প্যাকেটজাত এই রান্না করা খাবার তাৎক্ষণিক খাবার উপযোগী করে দেয়া হচ্ছে। এজন্য স্টলটিতে রাখা হয়েছে মাইক্রোওয়েভ ওভেন। মাইক্রোওয়েভ ওভেনে মাত্র ২ মিনিট গরম করলেই খাবার উপযোগী হয়ে যাচ্ছে চিকেন বিরিয়ানি ও চিকেন ভুনা খিচুড়ি।

স্টলটি থেকে এক প্যাকেটের পরিবর্তে একাধিক প্যাকেট কিনলে ক্রেতারা বেশি সুবিধা পাচ্ছেন। যেমন-একসঙ্গে দুই প্যাকেট চিকেন বিরিয়ানি কিনলে দাম রাখা হচ্ছে ২৭৫ টাকা। সঙ্গে দেয়া হচ্ছে আরও এক প্যাকেট ফ্রি। সে হিসাবে প্রতি প্যাকেটের দাম পড়বে ৯২ টাকা। অর্থাৎ প্যাকেট প্রতি ৫৮ টাকা সেভ হবে।

একইভাবে চিকেন ভুনা খিচুড়ি একসঙ্গে তিন প্যাকেট কিনলে ফ্রি দেয়া হচ্ছে একটি। এক্ষেত্রে দাম রাখা হচ্ছে ৪৫০ টাকা। সুতরাং এ প্যাকেটটি নিলে প্রতি প্যাকেট চিকেন ভুনা খিচুড়ির দাম পড়বে ১১২ টাকা। এক্ষেত্রে প্রতি প্যাকেটে সেভ হবে ৩৮ টাকা।

pran

স্টলটির বিক্রয়কর্মীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্যাকেট করা প্রাণ-এর চিকেন বিরিয়ানি বা চিকেন ভুনা খিচুড়ি কেনার পর আর রান্না করতে হয় না। শুধু গরম করলেই খাওয়ার উপযোগী হয়ে যায়। আবার কেউ চাইলে প্যাকেট করা চিকেন বিরিয়ানি বা চিকেন ভুনা খিচুড়ি সংরক্ষণেও রেখে দিতে পারেন। প্যাকেটের খাবার ৯ মাস পর্যন্ত সুরক্ষিত থাকে।

এ বিষয়ে স্টলটির এক বিক্রয়কর্মী বলেন, ‘দীর্ঘদিন সংরক্ষণ করে রাখার ব্যবস্থা করা হলেও এতে কোনো কেমিক্যাল বা প্রিজারভেটিভ ব্যবহার করা হয় না। তৈরি করার পর খাবারটি রিটর্ট পাউচে ভরে পাউচটি সিল করা হয়। তারপর রিটর্ট মেশিনে ২৪০-২৫০ ডিগ্রি ফারেনহাইট তাপমাত্রায় পাউচটি গরম করা হয়। এতে প্যাকেটের ভেতরের খাবার প্রেসার কুকারে রান্নার মতোই রান্না হয়। এই পদ্ধতি নির্ভরযোগ্যভাবে সাধারণ অণুজীবগুলোকে মেরে ফেলে এবং খাবারকে পচনের হাত থেকে রক্ষা করে।’

মেলায় পরিবার নিয়ে ঘুরতে এসে স্টলটি থেকে চিকেন বিরিয়ানি কেনেন মো. খুরশিদ আলম। তিনি বলেন, ‘পরিবার থেকে আমরা তিনজন মেলায় ঘুরতে এসেছি। ঘুরতে ঘুরতে এই স্টলটি চোখে পড়ল। ২৭৫ টাকা দিয়ে তিন প্যাকেট খাবার পেয়েছি। প্রতি প্যাকেট খাবারের দাম পড়েছে একশ’ টাকারও কম। এখান থেকেই খাবার গরম করে দেয়া হয়েছে। খেতেও কোনো ঝামেলা নেই।’

তিনি বলেন, ‘প্রাণ-এর এ উদ্যোগটি খুবই ভালো উদ্যোগ। বাণিজ্য মেলায় পরিবার নিয়ে ঘুরতে আসলে দুপুরের খাবার খাওয়া বিরাট বড় একটা ঝামেলা। যে হোটেলগুলো আছে তাতে গলাকাটা দাম। আবারও এ চার্জ ও চার্জ তো আছেই। খাবারের মান নিয়েও প্রশ্ন আছে। কিন্তু এ স্টলটি থেকে নেয়া খাবার বেশ সুস্বাদু। দামও কম।’

এমএএস/এসআর/জেআইএম

আপনার মতামত লিখুন :