বাজারে আসছে দুরন্তের ইলেকট্রিক বাইসাইকেল

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:১৬ এএম, ০৮ জুন ২০২২

জ্বালানি সাশ্রয়ী, পরিবেশ বান্ধব ও নিরাপদ হওয়ায় সারাবিশ্বেই চাহিদা বাড়ছে ইলেকট্রিক বাইসাইকেলের। বাংলাদেশের বাজারেও এই ধরনের বাইসাইকেলের আনার ঘোষণা দিয়েছেন দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্পগ্রুপ আরএফএলের বাইসাইকেল ব্র্যান্ড ‘দুরন্ত’। আগামী ৫ বছরের মধ্যে দুরন্তের ইলেকট্রিক বাইসাইকেলের সারাদেশে পৌঁছে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন এ শিল্পগোষ্ঠীর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আরএন পাল।

মঙ্গলবার (৭ জুন) রাজধানীর বাড্ডায় আরএফএল গ্রুপের কার্যালয়ে অযথা গাড়ির হর্ন বাজানো বন্ধে জনসচেতনতা তৈরিতে ‘শব্দত্রাস’ নামে কর্মসূচি উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এই ঘোষণা দেন।

প্রাণের গ্রুপের অন্যান্য পণ্যের মতো জাঁকজমক অনুষ্ঠানের মাধ্যমেই ইলেকট্রিক দ্বিচক্রযানটির সঙ্গে সবার পরিচয় করিয়ে দেওয়া হবে বলেও জানান আরএন পাল।

তিনি বলেন, আমরা নিয়ে আসছি দুরন্ত ই-বাইক। ব্যাটারি ও প্যাডেল উভয়েই থাকায় যানটি যাত্রীকে দ্রুত গন্তব্যে পৌঁছে দেবে। পাশাপাশি প্যাডল চালিয়ে যাত্রী শারীরিক পরিশ্রম বা ব্যায়াম করতে পারবেন। এর ফলে যানটি স্বাস্থ্য সম্মত ও নিরাপদ হবে। আমরা আশা রাখি আগামী ৫ বছরের মধ্যে এই যানটিকে সারাদেশে ছড়িয়ে দিতে সক্ষম হবো। এটার গতি হবে সর্বোচ্চ ৬০ কিলোমিটার। এই যানটির মাধ্যমে পরিবেশ দূষণ হবে না, শব্দ দূষণ হবে না।

দুরন্ত বাইসাইকেলের প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা মাহমুদুর রহমান বলেন, যত বেশি সাইকেল ব্যবহার করা যাবে তত বেশি মানুষ সুস্থ থাকবে। পরিবেশের দূষণ কম হবে। আমরা অচিরেই ই-বাইকের অপশন চালু করছি। বৈদ্যুতিক হওয়ায় এটাকে ব্যাটারির চার্জের মাধ্যমে চালানো যাবে। আবার এতে প্যাডেলের ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে।

তিনি বলেন, ব্যাটারিচালিত সাইকেল উন্নত দেশে জনপ্রিয়তা পেলেও বাংলাদেশে এর ব্যবহার খুব কম। বেশ কিছু চাইনিজ ই-সাইকেল থাকলেও এ খাতে দেশীয় বিনিয়োগ নেই বললেই চলে।

এসএম/আরএডি

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]