বিসিএস শিক্ষক দ্বন্দ্বে বিপাকে শিক্ষার্থীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৫৪ পিএম, ২৭ নভেম্বর ২০১৭ | আপডেট: ০৭:৫৮ পিএম, ২৭ নভেম্বর ২০১৭

বিসিএস শিক্ষকদের কর্মবিরতিতে দুইদিন ধরে অচল দেশের সরকারি কলেজগুলো। কর্মবিরতির দ্বিতীয়দিন সোমবার কলেজগুলোতে কোনো ক্লাস হয়নি। জাতীয়করণের জন্য ঘোষিত কলেজ শিক্ষকদের ক্যাডার বহির্ভূত রেখে বিধিমালা জারির দাবিতে রোববার থেকে দুইদিনের এ কর্মবিরতি শুরু করেন সরকারি কলেজের শিক্ষকরা। ‘বিসিএস ছাড়া ক্যাডার সার্ভিস নয়’ এই শ্লোগান নিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের পাঠদান থেকে শুরু করে সকল প্রকার কর্মকাণ্ড থেকে নিজেদেরকে বিরত রেখেছেন তারা।

টানা দুদিন শিক্ষক আন্দোলনে বিপাকে পড়েছেন শিক্ষার্থীরা। শিক্ষকদের আন্দোলনে বাতিল হয়েছে তৃতীয় বর্ষের অনার্স ফাইনাল পরীক্ষা। শুধু তাই নয়, আন্দোলনে বন্ধ দেশের সাড়ে ৩০০ কলেজের পরীক্ষা, পাঠদান ও প্রশাসনিক কার্যক্রম।

মিরপুরের সরকারি বাঙলা কলেজের অনার্স দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী সজনী ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, শিক্ষকদের আন্দোলনে আমাদের ক্ষতিগ্রস্ত হতে হচ্ছে। আন্দোলনে দুইদিন কলেজে এসে আড্ডা দিয়ে বাসায় ফিরতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, সপ্তাহে পাঁচদিন থাকে পরীক্ষা, আর দুইদিন কলেজে ক্লাস হওয়ার কথা থাকলেও স্যার-ম্যাডামদের অফিসিয়াল মিটিং, প্রশাসনিক কাজের জন্য প্রায় ক্লাসে আসতে পারেন না। তার ওপর শিক্ষকদের আন্দোলন এমন করে ক্লাস বন্ধ বিপদে পড়তে হয়। অনেকেই পড়ালেখা থেকে মনোযোগ হারিয়ে ফেলবে।

বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির সভাপতি অধ্যাপক আই কে সেলিম উল্লাহ খন্দকার জানান, আমাদের একটাই দাবি বিসিএস ছাড়া বিসিএস ক্যাডার নয়। তাই প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসন মেনে ও জাতীয় শিক্ষানীতি ২০১০ এ বর্ণিত নির্দেশনা অনুসারে জাতীয়করণের জন্য ঘোষিত কলেজ শিক্ষকদের ক্যাডার বহির্ভূত রেখে বিধিমালা জারি করতে হবে। আগামী ৬, ৭ ও ৮ জানুয়ারি আবারও কর্মবিরতি পালনের ঘোষণা রয়েছে। এর আগে সরকার থেকে সিদ্ধান্ত এলে বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি এ কর্মসূচি থেকে সরে দাঁড়াবে।

শিক্ষার্থীদের ক্ষতির বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমাদের আন্দোলন চলবে, তবে আমরা শিক্ষার্থীদের পুষিয়ে দেব। প্রয়োজনে বাড়তি ক্লাসের ব্যবস্থা করা হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এমিরেটাস অধ্যাপক সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, বিসিএস ক্যাডার শিক্ষকদের সঙ্গে জাতীয়করণকৃত কলেজের শিক্ষকদের ‘ক্যাডার’ মর্যাদা দেয়া শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অযৌক্তিক সিদ্ধান্ত। বিসিএস দিয়ে যারা একটি পদের জন্য মনোনীত হয়, আর ভিন্ন একটি প্রক্রিয়ায় চাকরিতে প্রবেশ করে উভয় একই যৌগ্যতাসম্পন্ন নয়।

তিনি বলেন, জাতীয়করণ ও বিসিএস শিক্ষকদের একই কাঠামোয় গণ্য না করে পৃথক রেখে উদ্ভূত পরিস্থিতির সমাধানের উদ্যোগ নিতে হবে মন্ত্রণালয়কে। শিক্ষকদেরও দাবি আদায়ে একেবারে মাঠে নেমে আন্দোলন সংগ্রাম না করে সুশৃঙ্খলভাবে দাবির বিষয়ে সরকারের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনায় সমাধানের পথ খুঁজতে হবে।

এ শিক্ষাবিদের সঙ্গে সহমত পোষণ করেছেন সাবেক মন্ত্রিপরিষদ সচিব ও পাবলিক সার্ভিস কমিশনের (পিএসসি) সাবেক চেয়ারম্যান ড. সাদত হুসাইন। তিনি বলেন, ক্যাডার সার্ভিসে যাদের নিয়োগ দেয়া হয়, যে বাছাই প্রক্রিয়া-পরীক্ষা, সাক্ষাৎকারের মাধ্যমে নির্বাচন করা হয় যোগ্য প্রার্থী। আরেকজনকে এসব প্রক্রিয়া ছাড়াই সমকক্ষে প্রবেশ করানো যৌক্তিক হবে না।

শিক্ষাবিদ অধ্যাপক মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, শিক্ষা মন্ত্রণালয় যে বিধি দ্বারা (২০০০ সালে) ক্যাডার মর্যাদা দিয়েছে- এর কোনো আইনি ভিত্তি নেই। কলেজ জাতীয়করণ করার সিদ্ধান্ত সরকারের মহৎ উদ্যোগ, এতে কোনো সন্দেহ নেই। কিন্তু দায়িত্বশীলদের বিচক্ষণতার অভাবে এতদিনে শিক্ষাক্ষেত্রে বৈষম্যের বীজবপন করা হয়েছে। এতে জাতীয়করণকৃত শিক্ষক আর বিসিএস শিক্ষকদের মধ্যে আজীবন দ্বন্দ্ব থাকবে।

তিনি বলেন, যারা বিসিএস দিয়ে শিক্ষা ক্যাডারে প্রবেশ করবেন তারা জাতীয়করণকৃত কলেজে অন্যদের রোষানলে পড়বেন। সবসময় উভয় শিক্ষকদের মধ্যে নৈতিবাচক প্রভাব পড়বে। যা শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার ওপর প্রভাব পড়বে। পাশাপাশি এডুকেশন ক্যাডারে প্রবেশের আগ্রহ থাকবে না চাকরিপ্রার্থীদের।

উল্লেখ্য, নতুন জাতীয়করণসহ বর্তমানে দেশের সরকারি কলেজ রয়েছে ৩৩৫টি। এর মধ্যে পিএসসি’র মাধ্যমে নিয়োগ পাওয়া শিক্ষা ক্যাডার সদস্য আছেন প্রায় ১৫ হাজার। ২৮৩টি কলেজ জাতীয়করণ হলেও সেগুলোর প্রায় ৭-৮ হাজার শিক্ষক আত্তীকৃত হবেন।

এমএইচএম/বিএ

আপনার মতামত লিখুন :