‘উঠে দাঁড়াবার কালে’ : প্রেম-কাম ও দ্রোহের সমন্বয়

সাহিত্য ডেস্ক
সাহিত্য ডেস্ক সাহিত্য ডেস্ক
প্রকাশিত: ০১:৩৬ পিএম, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২০

বইমেলায় এসেছে কবি, আবৃত্তিকার ও শিল্পী কাজী নুসরাত শরমীনের প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘উঠে দাঁড়াবার কালে’। বইটি সম্পর্কে লেখক বলেন- ‘উঠে দাঁড়াবার কালে’, মলাটবদ্ধ আমার কবিতার বই। এ বইয়ে ধারণ করতে চেয়েছি সময়ের মৌলিকতাকে। জীবন বিচিত্র, দিন-রাত প্রতিটি মুহূর্তের ভাঁজে ভাঁজে জীবন বিস্তৃত করছে তার অপ্রতিরোধ্য শাখা-প্রশাখা। শেকড় আঁকড়ে ধরছে মায়ামাটি। এই যে আছি, সুখে ও অসুখে, প্রেমে-বিপ্লবে, মান-অভিমানে, এই থাকাটুকুই আমার অস্তিত্ব। সে অস্তিত্ব জানান দেবে আমার কাজ। আমি যে বেঁচে ছিলাম, কাজ তার স্বাক্ষর রেখে যাবে। আমি তো মানুষ, রক্তমাংসের, জীবনবোধ,সম্পর্ক, প্রেম-কাম ও দ্রোহের সমন্বয়। ন্যায়ের মিছিলে যেমন আলো হাতে, তেমনি অন্যায়ের বিরুদ্ধে ঝলসে ওঠা আমার জাতিগত ইতিহাস।

প্রতিরোধ প্রতিবাদ যুদ্ধের তেজ আমার রক্তে। এ বইয়ের কবিতারা তারই প্রকাশ। আধেক সত্য অনুভবে আধেক কল্পনা। ‘উঠে দাঁড়াবার কালে’ আমার প্রথম কবিতার বই। প্রথম সন্তানের মতো মায়ের অতি আদেখলাপনা থাকতে পারে এ বইয়ে। তবে কিছু কবিতায় শাসনের দৃঢ়তাও পাঠক খুঁজে পাবে, এ বিষয়ে আমি নিশ্চিত। পরবর্তী সংস্করণে বইটিকে আরও ঋদ্ধ করার পূর্ণ প্রয়াস থাকবে। তাই তো এ কাল উঠে দাঁড়াবার কাল, জাগরণের কাল। ‘উঠে দাঁড়াবার কালে’ সমালোচনা আর ভালোবাসার নিক্তিতে হৃদয়ে ঠাঁই পাক, আপাতত এইটুকু প্রত্যাশা।

আগামীকাল থেকে মেলায় পাঠক সমাবেশের স্টলে পাওয়া যাবে বইটি। যারা আমার লেখার অনুপ্রেরণা, আমার কবিতা যারা ভালোবাসেন, বইটি সংগ্রহ করতে পারেন।

এইচআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]