ঠিকমতো রয়্যালটি পেলে এদেশে কোনো শিল্পীই দুস্থ থাকবে না : কনা

মাসুম আওয়াল
মাসুম আওয়াল মাসুম আওয়াল , স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশিত: ০৩:২৬ পিএম, ১৩ আগস্ট ২০১৮

বছরের পর বছর সাধনা করে তিলে তিলে নিজেকে গড়ে তুলতে হয়। এক সময় সেই শিল্পীর গাওয়া গান ছুঁয়ে দিতে পারে মানুষের হৃদয়। আর শ্রোতাহৃদয়ে ঠাঁই পেয়ে গেলেই অমর হয়ে যান শিল্পী। ছোটবেলায় স্থির করেছিলেন বড় হয়ে ‘রুনা লায়লা’র মতো শিল্পী হবেন। সেই স্বপ্ন পূরণের পথে তিনি। এখন অনেক ছোটরাই বড় হয়ে কনার মতো শিল্পী হতে চায়।

বলছি এই সময়ের জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী কনার কথাই। তার ভালো নাম দিলশাদ নাহার কনা, মা-বা তাকে ডাকেন ‘কনু’ বলে আর বাড়ির ছোটরা ডাকে ‘কনামনা’। সবকিছু ছাপিয়ে এখন নিজের পরিচয়েই পরিচিত তিনি। এদেশের সংগীতাঙ্গনের কনা একটি ভালোবাসার নাম। মাত্র চার বছর বয়স থেকেই গানের সঙ্গে সখ্যতা। এখনও চলছে তার গানের চর্চা।

‘জ্যামেতিক ভালোবাসা’, ‘কনা’, ‘সিম্পলি কনা’ এই অ্যালবামগুলো প্রকাশ করে নিজেকে চিনিয়েছেন অনেক আগেই। যারা শুনেছেন তাদের কানে এখনো লেগে আছে তার ‘ধিমতানা’ গানের সুর। ইউটিউবের ভিউয়ের যুগেও ‘রেশমি চুড়ি’, ‘দিল দিল দিল’র মতো গান দিয়ে কোটিপতি হয়েছেন। কনার কনা হয়ে ওঠা, বর্তমান সংগীত ইন্ডাস্ট্রির অবস্থা ও নানা বিষয় নিয়ে জাগো নিউজের সঙ্গে কথা বলেছেন এই শিল্পী। লিখেছেন মাসুম আওয়াল-

জাগো নিউজ : কনা এই সময়ের একজন প্রথম সারির শিল্পী। প্রতিনিয়তই এগিয়ে যাচ্ছে সে। নিজেকে শিল্পী হিসেবে প্রতিনিয়তই এগিয়ে নেওয়ার এই মূলমন্ত্রটা কী?
কনা : একজন শিল্পীর কাজ গান গাওয়া। গান নিয়ে ভাবা। গানের ভেতর ডুবে থাকা। আসলে নিজেকে এগিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে আমার বিশেষ কোনো মূলমন্ত্র নেই। আমি শুধুই গান গেয়ে চলেছি। কোনো ছকবেঁধে কাজ করিনি। সবসময় আমার কাজের ব্যাপারে যত্নশীল ছিলাম। ধীরে ধীরে গানগুলো মানুষ পছন্দ করতে শুরু করেছে এটাই প্রাপ্তি বা আরও ভালো গানের অনুপ্রেরণা বলতে পারেন।

জাগো নিউজ : খুব ছোট বেলা থেকেই আপনি গান করেন। শিল্পী হওয়ার ইচ্ছেটা কিভাবে তৈরি হয়েছিল?
কনা : আমার জ্ঞান হওয়ার পর থেকেই গানের প্রতি ভালোবাসা তৈরি হয়ে যায়। কেমন করে সংগীত প্রেম তৈরি হলো ঠিক মনে নেই। ছোটবেলায় তো অতো বুঝতাম না। প্রথমে আব্বু-আম্মু গান শিখতে বলেছে তাই শিখেছি। গানের প্রতি ঝোঁকটা তৈরি হয়েছে দিনে দিনে। গানের স্কুলে যেতাম, গান গাইতাম। সবাই বলতো এই মেয়েটা ভালো গান করে। নিজের ভেতরে আত্মবিশ্বাস তৈরি হতে শুরু করে। তখন থেকেই ইচ্ছেরা পাখা মেলে মনে মনে যে বড় হয়ে আমি শিল্পী হতে হবে।

জাগো নিউজ : অনুপ্রাণিত হয়েছেন কার গানে?
কনা : অনেকেই আছেন। রুনা ম্যাম তো (রুনা লায়লা) সবসময়ই আমার ‘স্পেশাল ইন্সপায়ারেশন’। উনার গানই আব্বু আম্মু বেশি বেশি করে শুনাতো। আব্বু আম্মুর প্রিয় শিল্পী ছিলেন তিনি। মনের অজান্তেই উনার প্রতি টান তৈরি হয়ে গেছে। প্রতিনিয়তই নতুন নতুন শিল্পীদের গানও আমার ভালো লাগে। একেবারের নতুন যারা তাদের গানও ভালো লাগে। আগে আরিজিৎ সিংয়ের গান শুনতাম না। ইদানীং তার গান খুব মুগ্ধ করে। যার গান ভালো লাগে তার গানই শুনি।

জাগো নিউজ : আপনার গানের ওস্তাদ ছিলেন কে?
কনা : আমি প্রথম গান শিখেছি সিনথিয়া রহমানের কাছে। এরপর শিখেছি নজরুল একাডেমিতে ও মঈদুল ইসলামের কাছে। আব্বু-আম্মুর অনুপ্রেরণা আমাকে এগিয়ে নিয়েছে অনেক দূর। তারা যদি গান পছন্দ না করতেন, আমাকে গানের স্কুলে ভর্তি না করতেন এবং ওস্তাদের কাছে গান শেখার সুযোগ করে না দিতেন তাহলে শিল্পী হওয়ার স্বপ্ন দেখা হতো না হয় তো।

জাগো নিউজ : অনেক দিন থেকেই গান গাইছেন। নিজের জন্য গান নির্বাচন করেন কিভাবে?
কনা : আমি গান নির্বাচন করার সুযোগই পাইনি কখনো। কারণ এতো ছোটবেলা থেকে কাজ শুরু করেছি যে কখনো ক্লাসিক্যাল, কখনো রক, কখনো আধুনিক, কখনো ফোক যখন যেই ধরণের গান গাওয়ার সুযোগ এসেছে গেয়েছি। চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করতে করতে আমি কোনো ধরণের গানের শিল্পী এটা আলাদাভাবে আর ভেবেই দেখা হয়নি। সব ধরনের গান গাইতে গাইতে সব গানের জন্যই কণ্ঠটা তৈরি হয়ে গেছে বলে মনে করি আমি।

Kona-(2)

জাগো নিউজ : প্রতিনয়তই অনেক গীতিকার সুরকার ও সংগীত পারিচালকে সঙ্গে কাজ করা হচ্ছে। তাদের মধ্যে আপনার প্রিয় কারা। কাদের গানে বেশি সাচ্ছন্দ বোধ করেন?
কনা : এই প্রশ্নের উত্তর দেওয়া অনেক কঠিন। আর এই নামের তালিকা প্রকাশ করাও ঠিক হবে না। সবকিছু বলতে হয় না। এটাও বলা ঠিক হবে না। কারণ প্রিয় তো অনেকেই আছে। যাদের গান পছন্দ করি সবসময়। নামের তালিকাটাও বেশ দীর্ঘ হবে। বলতে গেলে কারও নাম হয় তো বাদ পড়ে যাবে। তবে আমি সবসময় অনুধাবন করি গীতিকার, সুরকার ও সংগীত পরিচালক তারা সন্তানের মতো করে তৈরি করেন একটি গান। তারা আমাকে সুযোগ করে দেন বলেই আমি গানের অংশ হতে পারি।

জাগো নিউজ : অডিও, সিনেমা নাকি জিঙ্গেল কোনটায় বেশি সাচ্ছন্দবোধ করেন আপনি?
কনা : আমি কখনই আলাদা করে দেখি না। আমার কাছে সব এক। কারণ মূল কাজ তো কণ্ঠেরই। সব জায়গাতে গানই গাইতে হয়। আমার সবই ভালো লাগে। প্রচুর ভয়েস ওভারও দেই আমি। অনেক বিজ্ঞাপনের ভয়েস ওভারও দিয়েছি। কাজটিই আসল সেটা অডিও হোক সিনেমায় হোক কিংবা বিজ্ঞাপনেই হোক।

জাগো নিউজ : বর্তমান সময়ে সংগীত ইন্ডাস্ট্রি কেমন সময় পার করছে বলে আপনি মনে করেন?
কনা : কয়েক বছর আগেই যখন আমার ‘সিম্পলি কনা’ অ্যালবাম বের হয় তখন ইন্ডাস্ট্রির অবস্থা খুব খারাপ ছিল। এখন সেই তুলনায় অনেক ভালো। তখন অডিও গান প্রকাশ করে তেমন লাভ ছিল না। এখন তো ভিডিওর সময় অনেক ভালো যাচ্ছে। কোম্পানিগুলো অনেক গান গাওয়াচ্ছেন। তারা উপার্জন করতে পারছে বলেই ইনভেস্ট করছে। নতুনদের জন্যও অনেক ভালো হয়েছে।

জাগো নিউজ : এখন যারা কাজ করছে গীতিকার, সুরকার, শিল্পী সবাই কি তাদের সঠিক প্রাপ্য বুঝে পাচ্ছে বলে আপনি মনে করেন?
কনা : এ বিষয়টি নিয়ে আমি সঠিক বলতে পারব না। সত্যি কথা বলতে নিজের গান নিয়ে অনেক ব্যস্ত থাকি। এ বিষয়ে কয়েকদিন আগেও আমাকে একজন জিজ্ঞেস করেছে। আসলে দেখা যাচ্ছে আমার সঙ্গে একরকম চুক্তি হচ্ছে। আমি ভাবছি অন্যদের সঙ্গেও তারা এভাবেই চুক্তি করছে। আমার প্রাপ্য ঠিক মতোই পাচ্ছি আমি। ইন্ডাস্ট্রি তো অনেক পিছিয়ে গিয়েছিল। কোম্পানিগুলো আবারও ঘুরে দাঁড়াচ্ছে। তাদেরকে গুছিয়ে নেওয়ারও সময় দিতে হবে আরও কিছু দিন। আমি আশাবাদী আরও গুছানো হবে সবকিছু। যেমন দেখেন আগে আমরা অডিওর জন্য গান তৈরি করতাম। পরে সেই গান নাটকে ব্যবহার করা হতো কোনো অনুমতি ছাড়াই। এখন আলাদাভাবে নাটকের জন্যই গান তৈরি করা হচ্ছে।

জাগো নিউজ : সংগীত ইন্ডাস্ট্রিকে আরও এগিয়ে নিতে কি করা প্রয়োজন বলে আপনি মনে করেন?
কনা : আমার মনে হয়, রয়্যালিটি সিস্টেম বা পেমেন্টের ব্যাপারগুলো কার কতো ভাগ এই ব্যাপারগুলো পরিস্কার হওয়া প্রয়োজন। শিল্পীর কাজ তো শুধুই গান গাওয়া। কিন্তু সারা জীবন গান গেয়ে শেষ জীবনে যদি শিল্পী না খেয়ে মারা যায় তাহলে তো হলো না! কোম্পানিকেও লাভ করতে হবে, শিল্পীকেও সসম্মানে বাঁচতে হবে। কোম্পানি, টেলকো ও কর্পোরেট যে প্রতিষ্ঠানগুলো সংগীত বিপনণের সঙ্গে আছেন তারা সৎ হলে আরও অনেক দূর এগিয়ে যাব আমরা।

জাগো নিউজ : আমাদের পাশের দেশে তাকালেই দেখি কিশোর কুমারের মতো শিল্পীর গানের জন্য তাদের সন্তানেরা এখনো রয়্যালিটি পায়।
কনা : তাদের কথা আর কি বলবেন। তারা তো রেডিওতে যেই গান বাজে সেটারও রয়্যালিটি পায়। আমরা যদি শুধু রেডিও থেকেই রয়্যালিটি পেতাম ভাবেন কতো টাকা আসতো। এক সময় হয় তো আমরাও পাবো। এগুলো ঠিক হতে হয়তো আরও সময় লাগবে। তখন আমাদের শিল্পীরা আর দুস্থ হবে না। অসুস্থ হলে তাদের তখন আর কারো কাছে হাত পাততে হবে না। কারণ সঠিক রয়্যালটি পেলে এদেশে কোনো শিল্পীই দুস্থ থাকবে না।

Kona-(3)

জাগো নিউজ : নতুন কাজ নিয়ে কথা বলি। ঈদে কি কি গান আসছে?
কনা : ঈদে বেপরোয়া সিনেমায় দুটি গান গেয়েছি একটা সিঙ্গেল ও অন্যটা শানের সঙ্গে দ্বৈত। এয়ারটেলের ‘বান্ধবী’ নামের একটা নাটকের গান করলাম। আর একটি নতুন গান ভিডিও আকারে আসছে। এর নাম ‘মন বলছে তাই’। জাগো মিউজিক থেকে এটি প্রকাশ হবে শিগগিরই। খুব রোমাািন্টক একটি গান। আরও বেশকিছু গান আসবে।

জাগো নিউজ : ভবিষ্যতে নিজেকে কোথায় দেখতে চান?
কনা : এখন আমি যে কনা এমনটাই হতে চেয়েছিলাম। এর থেকে আরও বেশি কিছু হলে খুশি হবো। বর্তমানে এখনকার আমার আমিকে নিয়ে আমি খুশি আছি। আমি বরাবরই পরিশ্রম করেছি এখনও পরিশ্রম করি অনেক। ভবিষ্যতে কী আছে সেটা সময়ের হাতেই থাক।

জাগো নিউজ : কি পাওয়া হয়নি এখনো, কিন্তু পেতে চান?
কনা : একজন শিল্পী সব চেয়ে বড় পুরস্কার শ্রোতাদের ভালোবাসা। সেটা পেয়েছি অনেক, এখনো পেয়েই যাচ্ছি। জাতীয় চলচ্চিত্র পুরষ্কার পাওয়া হয়নি এখনো।

জাগো নিউজ : গত বছর একটা সাক্ষাৎকারে বলেছিলন প্রেম যার সঙ্গে করছেন তাকেই বিয়ে করবেন। বিয়ের সুখবরটির জন্য আর কতদিন অপেক্ষা করতে হবে আপনার ভক্তদের?
কনা : হা হা হা। আমি যতদিন অপেক্ষা করবো, ততদিন সবাইকে অপেক্ষা করতে হবে।

জাগো নিউজ : শ্রোতাদের উদ্দেশ্যে কিছু বলতে চান?
কনা : আমি শ্রোতাদের শুধুই ধন্যবাদ দিতে চাই। তারা যেভাবে আমার সঙ্গে আছেন সেইভাবেই যেনো সব সময় থাকেন। আমার জন্য দোয়া করবেন। আমি যেনো এই ভালোবাসাটা ধরে রেখে ভালো গান করে যেতে পারি।

এমএবি/এলএ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]