মায়ের জন্য তারকাদের ভালোবাসা

বিনোদন প্রতিবেদক
বিনোদন প্রতিবেদক বিনোদন প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:৪২ পিএম, ১২ মে ২০১৯

আধুনিক মা দিবসের প্রচলন হয় যুক্তরাষ্ট্রে। দিবসটির প্রবক্তা আনা মারিয়া রিভস জার্ভিস। তার মা অ্যান মারিয়া রিভস জার্ভিস ছিলেন একজন সমাজকর্মী। তিনি ‘মাদারস ডে ওয়ার্ক ক্লাব’ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। ১৯০৫ সালে অ্যান মারা যান।

তার মৃত্যুর পর মেয়ে আনা মায়ের স্বপ্ন পূরণে কাজ শুরু করেন। সব মাকে শ্রদ্ধা জানাতে একটি দিবস প্রচলনের লক্ষ্যে সচেষ্ট হন তিনি।

১৯০৮ সালে পশ্চিম ভার্জিনিয়ার একটি গির্জায় আনা তার মায়ের স্মরণে অনুষ্ঠান করেন। একই বছর মার্কিন কংগ্রেস মা দিবসকে স্বীকৃতি দিয়ে সরকারি ছুটি ঘোষণার প্রস্তাব নাকচ করে। তবে তাতে দমে যাননি আনা। ১৯১৪ সালে যুক্তরাষ্ট্রের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট উড্রো উইলসন মে মাসের দ্বিতীয় রোববারকে মা দিবস হিসেবে ঘোষণা করেন। দিনটি সরকারি ছুটি ঘোষিত হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের দেখাদেখি পরে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মে মাসের দ্বিতীয় রোববার মা দিবস হিসেবে পালিত হতে থাকে। চলতি বছরে মা দিবস পালিত হচ্ছে আজ রোববার, ১২ মে।

আর সবার মতো শোবিজের তারকারাও তাদের মায়েদের নিয়ে স্মৃতিচারণ করছেন। মাকে নিয়ে লিখছেন, জানাচ্ছেন আবেগ ও অনুভূতির নানা কথা-

রুমানা মোর্শেদ কনকচাঁপা
জনপ্রিয় এই কণ্ঠশিল্পী ফেসবুকে লিখেছেন, ‘মা তোমাকে আমি এতোটাই ভালবাসি যতটা ভালবাসি আমার নিজের অস্তিত্বকে। তুমি ছাড়া আমার অবস্থান শূন্য মা। মাগো, আমার জন্য দোয়া করো যেন কখনও তোমাকে তিল পরিমাণ কষ্ট না দেই। মা দিবসে এবং বাকি সবগুলো দিবসে ভালো থেকো মা।

আজ এই মা দিবসে সেই মাকে সালাম যিনি রোগশোকে জঠরেই বাচ্চা হারিয়েছেন। সেই মাকে সালাম যারা আসলে আমাদের কন্যা হয়েও মায়ের জায়গায় আছেন। সেই মাকে সালাম যিনি বিশেষ শিশুর অধিকারী। সেই মাকে সালাম যার সন্তান আজ মানুষ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত। সেই মাকে সালাম যার সন্তানেরা মানুষের জন্য নিজের জীবন বিলায়। সেই মাকে সালাম যার সন্তান মুক্তিযোদ্ধা। সালাম মা জননী। তোমরাই এ পৃথিবীকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছো।’

ওমর সানি
চিত্রনায়ক ওমর সানী মা দিবস উপলক্ষে কথা বলেছেন জাগো নিউজের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘আমার মা পৃথিবী ছেড়ে চলে গেছেন ১৬ বছর হলো। আর ১৬ বছর ধরে মা দিবস পালন করতে পারি না। মায়ের শূন্যতা আমার একমাত্র কন্যা ফাইজাকে দিয়ে পূরণ করতে চেষ্টা করি। কিন্তু তাতে কি আর মায়ের অভাব পূরণ হয়। মা তো মা’ই।

মাকে নিয়ে কত স্মৃতি কত কথা বলে শেষ করা যাবে না। কখনো কোনো মার্কেটে গিয়ে সুতি শাড়ি চোখে পড়লেই খুব নস্টালজিক হয়ে যাই। কারণ আমার মায়ের খুবই পছন্দের একটি পোশাক ছিলো শাড়ি। মাকে নিয়ে কথা শুরু করলে শেষ হবে না। আমার মায়ের জন্য দোয়া করবেন।’

চঞ্চল চৌধুরী
নন্দিত এই অভিনেতা মায়ের সঙ্গে ছবি ফেসবুকে পোস্ট করে লিখেছেন, ‘মা দিবস কি ???? আমার মা সেটা জানেই না.... জানার কোনো দরকারও নেই.... কারণ আমাদের আট ভাই বোনকে জন্ম দিয়ে মানুষ করতে করতেই তো তার জীবন পার হয়ে গেল.... তারপর নাতি পুতি আরো কত কিছু.... আর আমার কাছে মা দিবস তো প্রতিদিন.... প্রতিদিন প্রতিক্ষণ আমি মাকে ডাকি.... মায়ের মুখের হাসিটাই আমার সবচেয়ে বড় সম্পদ..... সকল মায়ের প্রতি আমার শ্রদ্ধা.... মা আমাদের সবাইকে এই পৃথিবীর আলো দেখিয়েছেন.....’

মেহের আফরোজ শাওন
মা দিবসে মায়ের জন্য অন্য রকম আবেগ মনে বয়ে বেড়ান অভিনেত্রী ও পরিচালক মেহের আফরোজ শাওন। তিনি বলেন, ‘জন্মের পরেই ‘মা’ শব্দটির সঙ্গে পরিচয় ঘটলেও, প্রথমবারের মতো এই শব্দটির মানে বুঝতে পেরেছি আমি যখন প্রথম মা হলাম তখন। মূলত আমার সন্তানগুলোর দিকে তাকিয়েই মায়ের যথার্থতা বুঝতে পেরেছি। আর দ্বিতীয় বার ‘মা’ শব্দটিকে নতুনভাবে আবিষ্কার করলাম যখন হুমায়ূন আহমেদ (প্রয়াত জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক) মারা গেলেন।

ওই সময়টাতে আমার পাশে মা ব্যাতীত কেউ ছিলেন না। তারপরও আমার জানা মতে, একবারই মায়ের অবাধ্য হয়েছিলাম। তাই বিশ্ব মা দিবসের এই ক্ষণে আমি মায়ের কাছে ক্ষমাপ্রার্থী এবং পৃথিবীতে সকল মায়ের প্রতি আমার ভালোবাসা।

এখন আমি একজন ‘মা’। আমার দুটি সন্তান রয়েছে। বড় ছেলে নিষাদ হুমায়ূন এবং ছোট ছেলে নিনিত হুমায়ূন। তাদের বাবা আজ পৃথিবীতে নেই। বাবার অবর্তমানে মা বাবা’র দায়িত্ব দু’টি একসঙ্গে পালন করতে হচ্ছে আমাকে। তাই আমি জানি ‘মা’ শব্দটি সন্তানের কাছে কতটা প্রিয়।’

অপু বিশ্বাস
চিত্রনায়িকা অপু বিশ্বাসের মতে, ছোট একটি শব্দ মা কিন্তু এর বিশালতা অনেক। পৃথিবীর সবচেয়ে মধুরতম ডাক হচ্ছে মা। তিনি বলেন, ‘আমি একজনকে ‘মা’ ডাকি। এখন আমিও একজনের মা। আমার ছেলে আব্রাম খান জয় যখন মা বলে আমাকে ডাকে তখন মনে হয় পৃথিবীর সব সুখ আমার হাতের মুঠোয়। এই অনুভূতিটা ভাষায় প্রকাশ করতে পারবো না।

‘মা’ সব সময় সন্তানকে খুশি রাখতে চেষ্টা করেন। যত দুঃখ কষ্টেই মা থাকুক না কেন সন্তানকে ঠিকই হাসিখুশি রাখার চেষ্টা করেন। এখন এটা আমি অনুভূব করি। আমি জীবন যুদ্ধে যতই কষ্টে থাকি না কেন, আমার সন্তানকে সুখী রাখার জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছি।

বিশ্ব মা দিবসে একটাই চাওয়া সবাই আমার সন্তানের জন্য দোয়া করবেন যেনো আমি আমার সন্তানকে মানুষের মতো মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে পারি। বিশ্বের সকল মায়ের প্রতি আমার সালাম।’

সাইমন সাদিক
চিত্রনায়ক সাইমন সাদিক মা ভক্ত ছেলে। মায়ের প্রতি তার আবেগটাও অন্য রকম। সাইমন বলেন, ‘আমার ধারণা প্রতিটি সন্তানের কাছে একদিকে পৃথিবী আর অন্যদিকে মা। মাকে নিয়ে নতুন করে কিছু বলবো না। আমার কাছে প্রতিটি দিনই মা দিবস। শুধু এটুকুই বলবো, মা তোমাকে অনেক ভালোবাসি। মা দিবসে পৃথিবীর সকল মায়ের প্রতি আমার সালাম ও ভালোবাসা রইলো।’

অর্চিতা স্পর্শিয়া
অভিনেত্রী অর্চিতা স্পর্শিয়া মা দিবসকে দেখেন মায়ের জন্য উদযাপনের একটা প্লাটফর্ম হিসেবে। তিনি বলেন, ‘আসলে মা দিবস নিয়ে নতুন কিছু বলার নেই। আমার পুরো জগৎ জুড়ে রয়েছে আমার মা। অন্য সময়গুলো বলা হয় না মা তোমাকে ভালোবাসি। কারণ বয়ফ্রেন্ড বা অন্য মানুষেদের বলে থাকি যে দেখো আমি তোমাকে অনেক ভালোবাসি। শুধু মাকে সবসময় বলা হয় না তাই মা দিবসে শুধু বলতে চাই, ‘মা আমি তোমাকে অনেক ভালোবাসি।’

ফারহান আহমেদ জোভান
ছোটো বেলায় বাবা দেশের বাহিরে চলে যাওয়ার কারণে মা আমাকে ও আমার ছোট বোনকে মানুষের মতো মানুষ করার জন্য অনেক কষ্ট করেছেন। আমাদের মুখের দিকে তাকিয়ে জীবনে তাকে অনেক ত্যাগ স্বীকার করতে হয়েছে।

আমরা যারা মধ্যবিত্ত পরিবারের সন্তান তারা মুখ ফুটে সবসময় বলতে পারি না যে, মা তোমাকে অনেক ভালোবাসি আমি। মা দিবসে সেটা জানিয়ে দিতে চাই।

আজমেরী হক বাঁধন
প্রথম দিকে পরিবারের কেউ সাপোর্ট করতেন না আমি মিডিয়াতে কাজ করি। আমি মেডিক্যালে পড়তাম। আসলে মা আমাকে ছোটবেলা থেকেই বিভিন্ন বিষয়ে শিক্ষা দিয়েছেন। ভেতরে মূল্যবোধ তৈরি করেছেন, ভালো মন্দ বিভাজন করতে শিখিয়েছে। যার কারণে আমার জীবনের পথচলাটা সহজ হয়েছে।

অনেক ঝড়-ঝাপটার পর আমি আজকের এই বাঁধন এখানে দাঁড়িয়ে আছি শুধু মায়ের ওই শিক্ষাগুলোর কারণে। বাবা-মার স্নেহ ভালোবাসার কারণে। মিডিয়ার কাজ নিয়ে যে শংকা বাবা-মার ছিল তা কেটে যায়, যখন আমি পড়ালেখা শেষ করে ঠিকঠাক মতো মিডিয়াতে কাজ করছি এবং আমার বাচ্চাকে টেক কেয়ার করছি।

ফারজানা বিথী
উৎসব বলতে সেলিব্রেশন বোঝায়। আমার জন্য প্রত্যেকটা দিনই সেলিব্রেশনের যখন মা সাথে থাকেন স্মার্টনেস ক্রেজিনেস কিংবা স্টাইল প্রত্যেকটা জিনিস একটা জায়গা থেকে আসে সেটা হলো মা। সাপোর্ট ছিল, এখনো আছে। কিন্তু অভিযোজন ক্ষমতাটা যেখান থেকে আসে সেটা হলো মাকে কখনো বলা হয়নি ভালোবাসি।

কারণ ভালোবাসাটা আমার বলার মধ্যেই সীমাবদ্ধ না। আমার প্রত্যেকটা প্রাপ্তি তাকে অনেক বেশি খুশি করে। যার কারণে এই মানুষটাকে আলাদা করে ভালোবাসি বলতে হয় না। সকল মায়েরা ভালো থাকুক আর মেয়েরা এভাবেই এগিয়ে যাক মায়েদের ভালোবাসায়।

এলএ/এমএস

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - [email protected]