মায়ের নামে পাঠাগার করলেন লেখক

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০১:১৬ পিএম, ০৯ জানুয়ারি ২০২২

শিক্ষার্থীদের পাঠাভ্যাস তৈরি ও তথ্যপ্রযুক্তিতে দক্ষ করে গড়ে তুলতে কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার আজমপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অত্যাধুনিক কম্পিউটার ল্যাব ও শাহনুর খাতুন মডেল লাইব্রেরির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়েছে।

এ উপলক্ষে শনিবার (৮ জানুয়ারি) সকালে আয়োজিত এক আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর আহমেদ জামাল ও উদ্বোধক হিসেবে অনলাইনে যুক্ত হন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি নুরুল হুদা। মায়ের নামে এই লাইব্রেরিটি স্থাপন করেছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের উপ-পরিচালক ও লেখক নাজমুল হুদা।

Libari-(5).jpg

মিরপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব কামারুল আরেফিনের সভাপতিত্বে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কুষ্টিয়া জেলা শিক্ষা অফিসার জায়েদুর রহমান, মিরপুর উপজেলা শিক্ষা অফিসার জুলফিকার হায়দার ও আমলা সরকারি ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর কামাল আহমেদ।

এ ছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মর্জিনা খাতুন, সদরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আশরাফুল ইসলাম, বিদ্যলায়ের সাবেক সভাপতি রবিউল হক ও প্রধান শিক্ষক আ.স.ম পারভেজ।

Libari-(5).jpg

বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি নুরুল হুদা বলেন, এই প্রত্যন্ত এলাকার একটি স্কুলে এরকম একটি মডেল লাইব্রেরির উদ্যোগ বাংলাদেশের একটি প্রতীকী লাইব্রেরি হিসেবে পরিচিতি লাভ করবে বলে আমার বিশ্বাস।

তিনি আরও বলেন, একটি লাইব্রেরি, যেখানে বৈচিত্র্যময় গ্রন্থের সংগ্রহ থাকে, সেখানে পৃথিবীর সর্বকালের সব ধরনের অভিজ্ঞতা, বিদ্যা, জ্ঞান এবং আবিষ্কারের সারাংশ সংরক্ষিত থাকে। একটি লাইব্রেরির অতল সমুদ্রে ডুবে থাকে জাতীয় জীবনের বহুবিধ শাখার দিক নির্ণয়ের সমস্ত উপকরণ। মানুষের পরিচয় শুধুমাত্র তার বর্তমান মুহূর্তকে ঘিরে নয়, তার পরিচয় তার অতীত, বর্তমান ও ভবিষ্যত সম্পর্কে চিন্তা-ভাবনাকে নিয়ে। এই লাইব্রেরির উদ্যোক্তা নাজমুল হুদা ঠিক তার শেখড়কে মনে রেখেছেন।’

jagonews24

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জনাব আহমেদ জামাল বলেন, ‘এখন অনেকেই বই পড়ে না। কম্পিউটার, ল্যাপটপ, স্মার্ট ফোনে অনেক তরুণদের পড়তে দেখা যায়। তবুও বইয়ের কোনো বিকল্প নেই।’

সভাপতির বক্তব্যে মিরপুর উপজেলা চেয়ারম্যান কামারুল আরেফিন বলেন, নাজমুল হুদা একসময় থাকবেন না অথচ আজকের এই মডেল লাইব্রেরি থাকবে। হাজারো বই থাকবে কিন্তু পড়ার কেউ থাকবে না তাহলে এই লাইব্রেরি গড়ে কোনো উপকারেই আসবে না। তাই বই পড়ার অভ্যাস গড়তে শিক্ষার্থীদের এগিয়ে আসতে হবে।

jagonews24

অনুষ্ঠানের শুরুতেই স্বাগত বক্তব্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের উপ-পরিচালক ও মডেল লাইব্রেরির উদ্যোক্তা নাজমুল হুদা বলেন, এই বিদ্যালয়ে পড়াকালীন ২২ বছর আগে লাইব্রেরি থেকে দুটো বই নিয়েছিলাম পড়ার জন্য, আর ফেরত দেওয়া হয়নি। এতোদিন পর সেই দায়বদ্ধতা থেকে আমি সেই স্কুলে নিজের মায়ের নামে এই মডেল লাইব্রেরি প্রতিষ্ঠা করে দিলাম, যাতে সবাই পাঠে উদ্বুদ্ধ হয়। অনুষ্ঠানে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক, অভিভাবক ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

এমএমএফ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]