খালেদার চিকিৎসায় বিএমএ’র বিবৃতি: ‘চিকিৎসকদের শপথ ভঙ্গ’ বলছে ড্যাব

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০১:৪৮ পিএম, ০১ ডিসেম্বর ২০২১
ফাইল ছবি

লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসা ‘বাংলাদেশেই সম্ভব’ বলে বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) যে বিবৃতি দিয়েছে, সেটিকে দুঃখজনক বলে উল্লেখ করেছে ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ড্যাব)।

বিএনপিপন্থি চিকিৎসকদের এ সংগঠনটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. হারুন অর রশিদ বলেছেন, বিএমএর এমন বিবৃতিতে চিকিৎসকদের শপথের ভঙ্গ হয়েছে।

বুধবার (১ ডিসেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবের আব্দুস সালাম হলে আয়োজিত খালেদা জিয়ার সর্বশেষ শারীরিক অবস্থা, বিদেশে সুচিকিৎসা ও তার স্থায়ী মুক্তির দাবিতে ড্যাব আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

ডা. হারুন বলেন, দেশের স্বনামধন্য চিকিৎসকেরা বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় নিয়োজিত। তারা বলেছেন, তার চিকিৎসা দেশে আর সম্ভব না, এমনকি পার্শ্ববর্তী দেশগুলোতেও না। তবে এর বিপক্ষে সরকার ও বিএমএর অবস্থান অত্যন্ত দুঃখজনক।

বিএমএর বিবৃতির প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, আমরা চিকিৎসক সমাজ হিসেবে একটা হিপোক্রেটিক শপথ নেই যে, চিকিৎসার ক্ষেত্রে কখনো মিথ্যা বলবো না, অন্যায় করবো না, রোগীর স্বার্থে সবসময় কাজ করবো। আজকে তারা (বিএমএ) সেই শপথ ভঙ্গ করেছে। অসুস্থ খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে আজকে বিএমএ অবস্থান নিয়েছে।

এর আগে গত ২৯ নভেম্বর বিএমএ এক যৌথ বিবৃতিতে জানায়, বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসা ‘বাংলাদেশেই সম্ভব’। বাংলাদেশের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা বিশ্বমানের চিকিৎসাসেবা দিতে সক্ষম, তা করোনার সময়ে দৃঢ়ভাবে প্রমাণিত হয়েছে। কেননা এসময়ে দেশের প্রায় সব জটিল রোগে আক্রান্ত রোগীই দেশেই চিকিৎসা নিয়েছেন। রাজনৈতিক বিবেচনায় না নিয়ে চিকিৎসকদের পরামর্শ অনুযায়ীই খালেদা জিয়ার চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়া উচিত বলেও ওই বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়।

হারুন অর রশিদ আরও বলেন, লিভার সিরোসিস, বাংলাদেশে লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট পর্যন্ত হয় না। দুজনকে লিভার ট্রান্সপ্ল্যান্ট করা হয়েছিল, তাদের একজন মারা গেছেন, আরেকজনের অবস্থা খুবই খারাপ। আর এটা শুধু বাংলাদেশের চিকিৎসকেরা করেননি, বিদেশ থেকে টিম এসে করেছিল। লিভার সিরোসিসের চিকিৎসা বাংলাদেশে হয়, এটা ভুল তথ্য।

সঠিক সময়ে চিকিৎসকদের সংগঠন ড্যাব থেকে তথ্য না দিলে মানুষের মাঝে ভুল বোঝাবুঝি ও গুজবের সৃষ্টি হয়, আপনারা কি গুজবের সুযোগ করে দিচ্ছেন কি না, সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নে ডা. হারুন বলেন, সঠিক খবর কিন্তু খালেদা জিয়ার চিকিৎসকেরাই দিয়েছেন। যা বিশ্বাসযোগ্য। ড্যাব যদি সব তথ্য দেয় তাহলে বিভ্রান্তি তৈরি হবে।

খালেদা জিয়ার চিকিৎসায় দেশের বাইরে থেকে চিকিৎসক আনার কথা বলা হয়েছে এবং টিপসটা ভারতে করা যায় বলা হচ্ছে, এ বিষয়ে ভাবনা জানতে চাইলে ড্যাব সভাপতি বলেন, ওবায়দুল কাদেরের (আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক) চিকিৎসার জন্য তো বাইরে থেকে চিকিৎসক আনা হয়েছিল, এরপরও তাকে কেন বাইরে নেওয়া হলো। কারণ চিকিৎসার জন্য যা প্রয়োজন তার সব বাংলাদেশে নেই। বাংলাদেশে হার্টের অপারেশন হয়, এনজিও প্লাস্টিক হয়, এনজিওগ্রাম হয়। বাংলাদেশে হার্টের কাজ হয় না এমন কোনো কিছু নেই। তারপরও ওনাকে বিদেশে নেওয়া হলো।

তিনি বলেন, বিশেষজ্ঞরা বলেছেন- খালেদা জিয়ার যে চিকিৎসা প্রয়োজন সেটা ইংল্যান্ড, আমেরিকা, জামার্নিতেও সব জায়গায় হয় না। এটা সম্পূর্ণ একটা টিম ওয়ার্ক। আমরা চিকিৎসক আনলাম, পরে দেখা গেল তিনি বলছেন যে আমি একা পারবো না। তাই আমরা মনে করছি, যারা বলছেন তার চিকিৎসা দেশে হতে পারে সেটা আসলেই ভুল।

সংবাদ সম্মেলনে ড্যাব মহাসচিব ডা. মো. আব্দুস সালামসহ সংগঠনটির অন্যান্য নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

এএএম/এমকেআর/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]