বর্ণবাদ নিরসনে দায়িত্বশীল হওয়ার আহ্বান ওবামার


প্রকাশিত: ০৮:৪৭ এএম, ১১ জানুয়ারি ২০১৭
বর্ণবাদ নিরসনে দায়িত্বশীল হওয়ার আহ্বান ওবামার

বর্ণবাদ সমস্যা নিরসনে মার্কিন প্রশাসনকে আরো বেশি দায়িত্বশীল হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। আজ বুধবার শিকাগোতে ওবামা তার বিদায়ী ভাষণে এ আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, বর্ণবাদ এখনো যুক্তরাষ্ট্রের জন্য বড় সমস্যা। তাই এই সমস্যা থেকে কাটিয়ে উঠতে আমাদের খুব বেশি দায়িত্বশীল হতে হবে।

ওবামা বলেন, পরিবার পরিজনের ভরণপোষণের জন্য একজন মার্কিন নাগরিক যেমন কঠোর পরিশ্রম করেন তেমনি দেশের সার্বিক উন্নয়নের জন্য প্রতিটি নাগরিককে কঠোর পরিশ্রম ও প্রচেষ্টা চালাতে হবে।

বাংলাদেশ সময় বুধবার সকালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা শিকাগোতে তার বিদায়ী ভাষণ দেন।

টানা দুই মেয়াদের প্রেসিডেন্ট হিসেবে ক্ষমতায় থাকার পর আগামী ২০ জানুয়ারি ওবামা বিদায় নেবেন। নতুন প্রেসিডেন্ট হিসেবে ওই দিন শপথ নেবেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

প্রেসিডেন্ট ওবামার বিদায়ী ভাষণ শুনতে শিকাগোতে অসংখ্য মানুষ জড়ো হন। শীতের তীব্রতা উপেক্ষা করে প্রিয় প্রেসিডেন্টের বক্তব্য শুনেন আমেরিকানরা।

ওবামার ভাষণ শোনার জন্য প্রথম দিকে টিকিট ফ্রি করা হয়েছিল। যে আগে আসবেন তাকেই টিকিট দেওয়া হয়েছে। জনপ্রতি একটি টিকিটই নির্ধারিত ছিল। কিন্তু মানুষের ভিড় বাড়ার ফলে একটি টিকিট ১০ হাজার ডলারেও বিক্রি হয়।

শিকাগোতে হাজার হাজার সমর্থকের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, প্রায় সব বিবেচনাতেই আট বছর আগের তুলনায় আমেরিকা এখন ভাল ও শক্তিশালী দেশ।

ভাষণে প্রেসিডেন্ট ওবামা তার শাসনামলের সাফল্যের খতিয়ান তুলে ধরেন, যার মধ্যে রয়েছে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, ইরানের সঙ্গে পরমাণু চুক্তি, কিউবার সঙ্গে সম্পর্ক পুনরুদ্ধার এবং সমকামী বিয়েকে বৈধতা প্রদান।

কিউবার সঙ্গে সম্পর্কের বরফ গলানো আর সমকামীদের বিয়ের অধিকার প্রতিষ্ঠাকে বড় সাফল্য বলে উল্লেখ করেছেন বিদায়ী এই মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

ওবামা বলেন, মুসলিম হোক কিংবা মেক্সিকান, অভিবাসীরা যুক্তরাষ্ট্রকে প্রতিনিয়ত সমৃদ্ধ করছে। তাদের প্রতি অবহেলা-বৈষম্যের বিন্দুমাত্র সুযোগ নেই।

হলভর্তি দর্শকের উদ্দেশে ওবামা বলেন, ‘এখানে আমি শিখেছি যে পরিবর্তন তখনই হয়, যখন সাধারণ মানুষ সম্পৃক্ত হয় এবং একত্র হয়ে এর দাবি জানায়। আপনাদের প্রেসিডেন্ট হিসেবে আট বছর দায়িত্ব পালন করার পর আমি এখনো এটাই বিশ্বাস করি। এটা শুধু আমার বিশ্বাস নয়। এটা আমাদের আমেরিকান ধারণার প্রাণ।’

ভাষণের শেষে ৮টি স্মরণীয় বছরের জন্য আমেরিকার জনগণের কাছে কৃতজ্ঞতা জানান ওবামা।

বিদায়ী ভাষণ দেয়া আমেরিকার প্রেসিডেন্টদের দীর্ঘ ঐতিহ্যের অংশ।

সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ ডব্লিউ বুশ এবং বিল ক্লিনটন তাদের শেষ ভাষণ হোয়াইট হাউজে বসেই দিয়েছিলেন। কিন্তু প্রেসিডেন্ট ওবামা শিকাগোতে গিয়ে তার শেষ ভাষণ দিয়েছেন।

এই ভাষণ দেয়ার জন্য শিকাগোকে বেছে নেয়ার কারণ হিসেবে ওবামা জানিয়েছেন, তিনি যেখান থেকে শুরু করেছিলেন সেখানেই শেষ করতে চেয়েছেন।

প্রায় বিশ হাজারের বেশি দর্শক সরাসরি সামনে বসেই ওবামার ভাষণ শুনেছেন। ২০০৮ সালে প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হন ওবামা। এর পর দুই মেয়াদে আট বছর দেশ শাসন করেছেন তিনি।

এমইউ/এআরএস/টিটিএন/পিআর