৪৮ ঘণ্টার মধ্যে মার্কিন কূটনীতিককে ভেনেজুয়েলা ছাড়ার নির্দেশ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০১:০০ পিএম, ২৩ মে ২০১৮

ভেনেজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো দেশটিতে নিযুক্ত শীর্ষ মার্কিন কূটনীতিককে দেশ ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছেন। গত রোববার ভেনেজুয়েলায় প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এ নিয়ে দ্বিতীয় মেয়াদে প্রেসিডেন্ট হিসেবে জয়ী হয়েছেন নিকোলাস মাদুরো।

মাদুরোর জয়ের পরপরই দেশটির ওপর নতুন অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা জারি করে যুক্তরাষ্ট্র। ভেনেজুয়েলার কর্মকর্তারা যেন দেশটির তেল সম্পদ বিক্রি করতে না পারে সেজন্যই এই নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

নববির্বাচিত প্রেসিডেন্ট মাদুরো, তার মন্ত্রিসভা ও দলের অনেক শীর্ষ নেতাদের ওপর আগে থেকেই মার্কিন নিষেধাজ্ঞা জারি আছে। তার মধ্যেই নতুন নিষেধাজ্ঞা জারির কারণে মার্কিন কূটনীতিককে দেশ ছাড়ার নির্দেশ দিলেন মাদুরো।ভেনেজুয়েলার পররাষ্ট্রমন্ত্রী জর্জ আরিয়েজা যুক্তরাষ্ট্রের এ নিষেধাজ্ঞাকে আন্তর্জাতিক আইনের বিরোধী বলে অভিহিত করেছেন।

ভেনেজুয়েলার নাগরিকদের ওপর দমনপীড়ন বন্ধ করে নতুন নির্বাচন দিতে মাদুরেরা প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ভোটের আগেই যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ (ইইউ) বেশ কয়েকটি দেশ জানিয়েছিল যে, তারা এই নির্বাচনকে স্বীকৃতি দেবে না।

ভেনেজুয়েলায় নিযুক্ত চার্জ দ্য এফেয়ার্স টোড রবিনসন এবং তার ডেপুটি ব্রায়ান নারাঞ্জোকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে ভেনেজুয়েলা ত্যাগের নির্দেশ দিয়ে এক বিবৃতিতে মাদুরো বলেন, মার্কিন সামাজ্য আমাদের দেশেই আমাদের ওপর প্রভাব বিস্তার করতে পারবে না। মঙ্গলবার টেলিভিশনে দেয়া এক ভাষণে তিনি যুক্তরাষ্ট্রকে উদ্দেশ করে বলেন, তোমাদের ষড়যন্ত্র মোকাবেলায় যথেষ্ট সক্ষমতা আমাদের রয়েছে।

ভেনেজুয়েলার নির্বাচনে ওই দুই মার্কিন কর্মকর্তা নাশকতার চেষ্টা চালিয়েছেন বলে অভিযোগ করেছেন মাদুরো। বিরোধী জোট ওই নির্বাচন বর্জন করেছে এবং নির্বাচনে জালিয়াতির অভিযোগ এনেছে। প্রধান বিরোধী প্রার্থী হেনরি ফ্যালকন ভোটের ফলাফল প্রত্যাহার করেছেন এবং তিনি এই নির্বাচনকে বাতিল বলে ঘোষণা করেছেন।

এক বিবৃতিতে হেনরি বলেছেন, আমরা এই নির্বাচন প্রক্রিয়াকে বৈধ বলে স্বীকার করতে পারি না। ভেনেজুয়েলায় নতুন করে নির্বাচন হওয়া দরকার। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ও ভেনেজুয়েলার এই নির্বাচন নিয়ে সমালোচনা করেছে। নির্বাচনে ৬৮ শতাংশ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন মাদুরো। দেশের ৪৬ শতাংশ ভোটার ভোট দিয়েছে।

টিটিএন/আরআইপি