ঝুলন্ত শিশুকে উদ্ধার, স্পাইডারম্যানের খেতাব পেলেন তিনি (ভিডিও)

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৪:২৭ পিএম, ২৮ মে ২০১৮

ভবনের চতুর্থ তলার ব্যালকনিতে ঝুলন্ত এক শিশুকে দুঃসাহসিক উপায়ে উদ্ধারের পর আফ্রিকার দেশ মালির এক অভিবাসী ফ্রান্সের নাগরিকত্ব পেয়েছেন। একইসঙ্গে পুরো ফ্রান্স জুড়ে এই অভিবাসীকে এখন বীরের খেতাবে ভূষিত করা হচ্ছে।

শূন্য হাতে প্রাচীর বেয়ে চারতলা থেকে শিশুটিকে উদ্ধারের এ ঘটনার পর ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাঁক্রো তাকে কার্যালয়ে ডেকে নিয়ে ফরাসি নাগরিকত্ব দেয়ার পাশাপাশি দেশটির ফায়ার সার্ভিসে চাকরির ব্যবস্থা করেছেন।

প্যারিসে ব্যালকনিতে ঝুলন্ত চার বছরের শিশুটিকে উদ্ধারের পর ব্যাপক প্রশংসা পাচ্ছেন ম্যামোদো গাসসামা নামের মালির ওই অভিবাসী।

ভিডিওতে দেখা যায়, একেবারে ভবনের নিচ থেকে বারান্দা ধরে লাফিয়ে লাফিয়ে চতুর্থ তলার বারান্দায় উঠে শিশুকে যখন উদ্ধার করা হয় তখন প্রত্যক্ষদর্শীরা আনন্দ প্রকাশ করেন। ম্যামোদো গাসসামাকে প্রেসিডেন্টের কার্যালয় এলিসি প্রাসাদে ডেকে নিয়ে সাক্ষাতের পর এমানুয়েল ম্যাক্রোঁ বলেছেন, তিনি দেশটির স্বাভাবিক নাগরিকত্ব পাবেন।

media

একই সঙ্গে গাসসামাকে অভিনন্দন জানিয়ে তার সাহসের প্রশংসা করে একটি পদক দিয়েছেন ম্যাক্রোঁ। তাকে দেশটির ফায়ার সার্ভিসে যোগ দেয়ারও প্রস্তাব দিয়েছেন ফরাসি প্রেসিডেন্ট।

নাটকীয় এই ঘটনা ঘটেছে শনিবার সন্ধ্যায় প্যারিসের উত্তরাঞ্চলের একটি সড়কের পাশের ভবনে। গাসসামা বলেছেন, ভবনের পাশ দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় সেখানে তিনি অনেক মানুষকে জমায়েত হতে দেখেন।

ফরাসী টেলিভিশন চ্যানেল বিএফএমটিভি তিনি বলেন, ‘শিশুটিকে ব্যালকনিতে ঝুলতে দেখার পর ‘অামি কল্পনা করতে পারি নাই যে, আমি তাকে বাঁচাতে পারবো।’

‘আমি যখন তাকে নিজ হাতে তুলে নিলাম, তখন তার সঙ্গে কথা বলেছি এবং তাকে জিজ্ঞাসা করেছিলাম, ‘তুমি কেন এভাবে ঝুলে আছো?’ কিন্তু সে কোনো উত্তর দেয় নাই।’

ফরাসি ফায়ার সার্ভিস বলছে, কর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছানোর আগেই শিশুটি উদ্ধার হয়। ফায়ার সার্ভিসের এক মুখপাত্র বার্তাসংস্থা এএফপিকে বলেছেন, সৌভাগ্যবশত সেখানে কেউ একজন ছিলেন, যিনি শারীরিকভাবে ‘ফিট’ ছিলেন; যার সাহস ছিল এবং শিশুটিকে উদ্ধার করেছেন।

media

স্থানীয় কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে ফরাসী গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, ঘটনার সময় শিশুটির বাবা-মা কেউ বাসায় ছিলেন না। সঙ্গীহীন অবস্থায় বাসায় রেখে যাওয়ার জন্য শিশুটির বাবাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ। শিশুটির মা সেই সময় বাসায় ছিলেন না বলে ধারণা করা হচ্ছে।

প্যারিসের মেয়র আন্নে হিডালগো ২২ বছর বয়সী মালির ওই অভিবাসন প্রত্যাশী তরুণের নায়কোচিত কাজের প্রশসা করেছেন। একই সঙ্গে তাকে ধন্যবাদ জানানোর জন্য নিজ দফতরে ডেকেছেন।

তিনি প্যারিসের ওই ঘটনার পর সাহসী ওই তরুণকে ‘১৮ শতকের স্পাইডার ম্যান’ খেতাব দিয়েছেন। দেশের সব নাগরিকের জন্য ওই তরুণকে দৃষ্টান্ত হিসেবে তুলে ধরেছেন তিনি।

সূত্র : বিবিসি, এএফপি, আলজাজিরা।

এসআইএস/এমএস