এক বিয়েতেই হুমকিতে ইহুদিদের অস্তিত্ব!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ১১:০৩ এএম, ১৩ অক্টোবর ২০১৮

দুই ধর্ম আর দুই ভাষার প্রেমিক-প্রেমিকার বিয়ে নিয়ে সরব হয়েছেন ইসরায়েলের ডানপন্থীরা। তারা এ বিয়েকে সহজভাবে মেনে নিতে পারছেন না। তারা মনে করছেন এই ধরনের বিয়েতে গোটা ইসরায়েলই হুমকির মুখে পড়বে।

হিব্রুভাষী আরব সংবাদ পাঠিকা লুসি আহারিশ আর আরবিভাষী ইহুদি জাচি হালেভি বিয়ে করেছেন সম্প্রতি। চার বছর ধরে প্রেম করলেও বিষয়টি এতদিন গোপন রেখেছিলেন তারা।

বিয়ের পর ইসরায়েলের হায়োম পত্রিকাকে এই সেলিব্রিটি জুটি হাস্যরসাত্মক ভঙ্গিমায় বলেন, ‘আমরা একটি শান্তিচুক্তি সই করলাম।’

৩৭ বছর বয়সী আহারিশের বাবা-মা মুসলিম এবং তিনি ইসরায়েলি টেলিভিশনের ইতিহাসে প্রথম হিব্রুভাষী আরব উপস্থাপক। অন্যদিকে হালেভি নেটফ্লিক্স শো ‘ফাউদা’-তে সিক্রেট এজেন্টের ভূমিকায় অভিনয় করে বেশ জনপ্রিয় হয়েছেন।

আহারিশ-হালেভির জুটির ব্যাপারে ইসরায়েলের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং ডানপন্থী পার্লামেন্টারিয়ান আরিয়ে দেরি মনে করেন, এমন বিয়ের ফলে ইহুদিদের অস্তিত্বও পড়ছে হুমকিতে। বিশ্বজুড়ে ইহুদিদের যেভাবে অন্যরা গ্রাস করছে, তা খুবই পীড়াদায়ক।’

ইসরায়েলের আর্মি রেডিওকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘এটা তাদের ব্যক্তিগত ব্যাপার। কিন্তু একজন ইহুদি হিসেবে আমি বলতে পারি, আমি এমন কাজের বিরুদ্ধে। আমাদের উচিত ইহুদিদের সুরক্ষার ব্যবস্থা করা। (তাদের) বাচ্চারা বড় হবে, স্কুলে যাবে, পরে বিয়েও করতে চাইবে এবং তখন তাদের বিশাল সমস্যায় পড়তে হবে।’

তিনি ধর্মান্তরের প্রক্রিয়া নিয়েও কথা বলেন। তিনি বলেন, ‘সে (আহারিশ) চাইলে ইহুদি ধর্ম গ্রহণ করতে পারে।’

এদিকে দেশটির লিকুদ পার্টির এমপি ওরেন হাজেন এক টুইটার বার্তায় মন্তব্য করেছেন, ‘আন্তঃধর্ম বিয়ে ইহুদিদের বিশুদ্ধতা নষ্ট করছে। আমি লুসি আহারিশকে দোষ দিচ্ছি না। কিন্তু তিনি এক ইহুদি আত্মাকে বিপথে নিয়ে দেশের ক্ষতি করছেন এবং আরেকটি ইহুদি প্রজন্মকে ধ্বংস করে দিলেন।’

তবে উগ্রপন্থীদের এমন মন্তব্যের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়ে আরব-ইহুদি বিয়েকে স্বাগতও জানিয়েছেন বেশকিছু রাজনীতিবিদ ও সাংবাদিক।

লেবার পার্টির এমপি শেলি ইয়াচিমোভিচ টুইট করে ‘এই অসাধারণ জুটির’ সুখ ও সাফল্য কামনা করে করেছেন।

জায়োনিস্ট ইউনিয়নের পার্লামেন্টারিয়ান ইওয়েল হাসোন মনে করেন, ডানপন্থী এমপিদের প্রতিক্রিয়া নেতানিয়াহুর লিকুদ পার্টির ‘অন্ধকার, বর্ণবাদী ও লজ্জাজনক চেহারা’ সামনে নিয়ে এসেছে।

বিএ/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :