করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা বাড়ছেই

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮:২৮ এএম, ২৮ জানুয়ারি ২০২০

চীনে করোনাভাইরাস মারাত্মক আকার ধারণ করেছে। সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে মৃতের সংখ্যা বাড়ছেই। এখন পর্যন্ত সেখানে ১০৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। নতুন করে এক হাজার ৩শ জন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। ফলে এখন পর্যন্ত চার হাজার ১৯৩ জন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। খবর দ্য গার্ডিয়ানের।

চীনা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, আক্রান্তদের মধ্যে অধিকাংশই হুবেই প্রদেশের বাসিন্দা। মূলত চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহরে গত বছরের ডিসেম্বরে প্রথম এই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। বর্তমানে অস্ট্রেলিয়া, নেপাল, মালয়েশিয়া, ভিয়েতনাম, সিঙ্গাপুর, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, তাইওয়ান, থাইল্যান্ড, ফ্রান্স এবং যুক্তরাষ্ট্রেও লোকজন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে।

হুবেই প্রদেশের স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সেখানে ২৪ জনের বেশি মানুষ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। সোমবার পর্যন্ত সেখানে এক হাজার ২৯১ জন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা নতুন এই ভাইরাসের নাম দিয়েছে ২০১৯ নোভেল করোনাভাইরাস। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা গেছে চীনে সফর করেছেন এমন লোকজনের মাধ্যমেই এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ছে। সে কারণে অনেক দেশই এই ভাইরাসের প্রকোপ ঠেকাতে চীন সফরে নাগরিকদের ওপর নিষেধাজ্ঞা এনেছে।

করোনা ভাইরাস আক্রান্ত হওয়ার লক্ষণ কী?

এ ভাইরাসে আক্রান্ত হলে শুরুতে জ্বর ও শুষ্ক কাশি হতে পারে। এর সপ্তাহখানেক পর শ্বাসকষ্টও দেখা দেয়। অনেক সময় নিউমোনিয়াও হতে পারে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে রোগীর অবস্থা বেশি খারাপ হওয়ায় তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা লাগে। তবে এসব লক্ষণ মূলত রোগীরা হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার পরই জানা গেছে।

সেক্ষেত্রে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার একদম প্রাথমিক লক্ষণ কী বা আদৌ তা বোঝা যায় কি-না তা এখনও অজানা। তবে নতুন এই করোনাভাইরাস যথেষ্ট বিপজ্জনক। সাধারণ ঠান্ডা-জ্বরের লক্ষণ থেকে এটি মৃত্যুর দুয়ার পর্যন্তও নিয়ে যেতে পারে।

এই ভাইরাস বিপজ্জনক হয়ে উঠছে কারণ এ বিষয়ে এখনও ভালোভাবে জানা সম্ভব হয়নি। বিশেষ করে এই ভাইরাস কতটা বিপজ্জনক এবং এটা একজন থেকে আরেকজনের শরীরে কীভাবে ছড়িয়ে পড়ছে এ বিষয়গুলো এখনও পরিষ্কার নয়।

এখন পর্যন্ত এটা জানা সম্ভব হয়েছে যে, এই ভাইরাস থেকে নিউমোনিয়া হবার আশঙ্কা রয়েছে। অনেক ক্ষেত্রেই এটা অনেক ভয়াবহ হতে পারে। অপরদিকে, করোনাভাইরাস সংক্রমণের ক্ষমতা আরও প্রবল হচ্ছে এবং সংক্রমণ আরও বাড়তে পারে বলে সতর্ক করে দিয়েছে চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন।

চীনে এই ভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে ৫৮ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে। অপরদিকে থাইল্যান্ডে ৮, জাপানে ৪, দক্ষিণ কোরিয়ায় ৪, যুক্তরাষ্ট্রে ৫, ভিয়েতনামে ২, সিঙ্গাপুরে ৫, মালয়েশিয়ায় ৪, নেপালে ১, ফ্রান্সে ৩, অস্ট্রেলিয়ায় ৫, কানাডায় ১, জার্মানিতে ১ এবং কম্বোডিয়াতে একজন এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

এদিকে, চীনের উহান শহরের গোপন জীবাণু যুদ্ধাস্ত্র গবেষণাগার থেকে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে বলে দাবি করেছেন ইসরায়েলের সামরিক গোয়েন্দা বাহিনীর সাবেক এক কর্মকর্তা। প্রাণঘাতী চীনা করোনাভাইরাস বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ার সঙ্গে উহানের গোপন ওই জীবাণু গবেষণাগারের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে বলে চাঞ্চল্যকর দাবি করেছেন তিনি।

অপরদিকে, মার্কিন সামরিক বাহিনীর এক কর্মকর্তা বলেছেন, জীবাণু অস্ত্র গবেষণাগার থেকে ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার ঘটনাকে আড়াল করতে চীনা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এখনও ভুয়া তথ্য ছড়ানো হচ্ছে। এতে বলা হচ্ছে, চীনের বিরুদ্ধে জীবাণু অস্ত্র ছড়িয়ে দেয়ার মিথ্যা ষড়যন্ত্র তত্ত্ব প্রচার করছে যুক্তরাষ্ট্র।

উহানের বেসামরিক এবং প্রতিরক্ষা গবেষণাগার থেকে নতুন করোনাভাইরাসের বিস্তার হয়েছে; এই অভিযোগ মোকাবিলার জন্য চীন প্রোপাগাণ্ডা চালানোর প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন ওই মার্কিন কর্মকর্তা।

টিটিএন/জেআইএম

করোনা ভাইরাস - লাইভ আপডেট

১৩,৪৭,৫৮৭
আক্রান্ত

৭৪,৭৮২
মৃত

২,৮৬,৪৫৩
সুস্থ

# দেশ আক্রান্ত মৃত সুস্থ
বাংলাদেশ ১২৩ ১২ ৩৩
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ৩,৬৭,৬৫০ ১০,৯৪৩ ১৯,৮১০
স্পেন ১,৩৬,৬৭৫ ১৩,৩৪১ ৪০,৪৩৭
ইতালি ১,৩২,৫৪৭ ১৬,৫২৩ ২২,৮৩৭
জার্মানি ১,০৩,৩৭৫ ১,৮১০ ৩৬,০৮১
ফ্রান্স ৯৮,০১০ ৮,৯১১ ১৭,২৫০
চীন ৮১,৭৪০ ৩,৩৩১ ৭৭,১৬৭
ইরান ৬০,৫০০ ৩,৭৩৯ ২৪,২৩৬
যুক্তরাজ্য ৫১,৬০৮ ৫,৩৭৩ ১৩৫
১০ তুরস্ক ৩০,২১৭ ৬৪৯ ১,৩২৬
১১ সুইজারল্যান্ড ২১,৬৫৭ ৭৬৫ ৮,০৫৬
১২ বেলজিয়াম ২০,৮১৪ ১,৬৩২ ৩,৯৮৬
১৩ নেদারল্যান্ডস ১৮,৮০৩ ১,৮৬৭ ২৫০
১৪ কানাডা ১৬,৬৬৭ ৩২৩ ৩,৬১৬
১৫ অস্ট্রিয়া ১২,২৯৭ ২২০ ৩,৪৬৩
১৬ ব্রাজিল ১২,২৩২ ৫৬৬ ১২৭
১৭ পর্তুগাল ১১,৭৩০ ৩১১ ১৪০
১৮ দক্ষিণ কোরিয়া ১০,৩৩১ ১৯২ ৬,৬৯৪
১৯ ইসরায়েল ৮,৯০৪ ৫৭ ৫৮৫
২০ সুইডেন ৭,২০৬ ৪৭৭ ২০৫
২১ রাশিয়া ৬,৩৪৩ ৪৭ ৪০৬
২২ অস্ট্রেলিয়া ৫,৮৯৫ ৪৬ ২,৪৩২
২৩ নরওয়ে ৫,৮৬৫ ৭৬ ৩২
২৪ আয়ারল্যান্ড ৫,৩৬৪ ১৭৪ ২৫
২৫ চেক প্রজাতন্ত্র ৪,৮২২ ৭৮ ১২১
২৬ চিলি ৪,৮১৫ ৩৭ ৭২৮
২৭ ভারত ৪,৭৭৮ ১৩৬ ৩৮২
২৮ ডেনমার্ক ৪,৬৮১ ১৮৭ ১,৩৭৮
২৯ পোল্যান্ড ৪,৪১৩ ১০৭ ১৬২
৩০ রোমানিয়া ৪,০৫৭ ১৭৬ ৪০৬
৩১ জাপান ৩,৯০৬ ৯২ ৫৯২
৩২ পাকিস্তান ৩,৮৬৪ ৫৪ ৪২৯
৩৩ মালয়েশিয়া ৩,৭৯৩ ৬২ ১,২৪১
৩৪ ইকুয়েডর ৩,৭৪৭ ১৯১ ১০০
৩৫ ফিলিপাইন ৩,৬৬০ ১৬৩ ৭৩
৩৬ লুক্সেমবার্গ ২,৮৪৩ ৪১ ৫০০
৩৭ সৌদি আরব ২,৬০৫ ৩৮ ৫৫১
৩৮ পেরু ২,৫৬১ ৯২ ৯৯৭
৩৯ ইন্দোনেশিয়া ২,৪৯১ ২০৯ ১৯২
৪০ মেক্সিকো ২,৪৩৯ ১২৫ ৬৩৩
৪১ থাইল্যান্ড ২,২৫৮ ২৭ ৮২৪
৪২ সার্বিয়া ২,২০০ ৫৮ ১১৮
৪৩ ফিনল্যাণ্ড ২,১৭৬ ২৭ ৩০০
৪৪ পানামা ২,১০০ ৫৫ ১৪
৪৫ সংযুক্ত আরব আমিরাত ২,০৭৬ ১১ ১৬৭
৪৬ কাতার ১,৮৩২ ১৩১
৪৭ ডোমিনিকান আইল্যান্ড ১,৮২৮ ৮৬ ৩৩
৪৮ গ্রীস ১,৭৫৫ ৭৯ ২৬৯
৪৯ দক্ষিণ আফ্রিকা ১,৬৮৬ ১২ ৯৫
৫০ আর্জেন্টিনা ১,৬২৮ ৫৩ ৩২৫
৫১ কলম্বিয়া ১,৫৭৯ ৪৬ ৮৮
৫২ আইসল্যান্ড ১,৫৬২ ৪৬০
৫৩ আলজেরিয়া ১,৪২৩ ১৭৩ ৯০
৫৪ সিঙ্গাপুর ১,৩৭৫ ৩৪৪
৫৫ মিসর ১,৩২২ ৮৫ ২৫৯
৫৬ ইউক্রেন ১,৩১৯ ৩৮ ২৮
৫৭ ক্রোয়েশিয়া ১,২২২ ১৬ ১৩০
৫৮ নিউজিল্যান্ড ১,১৬০ ২৪১
৫৯ মরক্কো ১,১২০ ৮০ ৮১
৬০ এস্তোনিয়া ১,১০৮ ১৯ ৬২
৬১ ইরাক ১,০৩১ ৬৪ ৩৪৪
৬২ স্লোভেনিয়া ১,০২১ ৩০ ১০২
৬৩ মলদোভা ৯৬৫ ১৯ ৩৭
৬৪ হংকং ৯১৫ ২১৬
৬৫ লিথুনিয়া ৮৮০ ১৫
৬৬ আর্মেনিয়া ৮৩৩ ৬২
৬৭ হাঙ্গেরি ৮১৭ ৪৭ ৭১
৬৮ বাহরাইন ৭৫৬ ৪৫৮
৬৯ ডায়মন্ড প্রিন্সেস (প্রমোদ তরী) ৭১২ ১১ ৬১৯
৭০ বেলারুশ ৭০০ ১৩ ৫৩
৭১ বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা ৬৭৪ ২৯ ৪৭
৭২ কাজাখস্তান ৬৭০ ৪৬
৭৩ কুয়েত ৬৬৫ ১০৩
৭৪ ক্যামেরুন ৬৫৮ ১৭
৭৫ আজারবাইজান ৬৪১ ৪৪
৭৬ তিউনিশিয়া ৫৯৬ ২২
৭৭ উত্তর ম্যাসেডোনিয়া ৫৭০ ২৩ ৩০
৭৮ বুলগেরিয়া ৫৬৫ ২২ ৪২
৭৯ লাটভিয়া ৫৪২ ১৬
৮০ লেবানন ৫৪১ ১৯ ৬০
৮১ স্লোভাকিয়া ৫৩৪
৮২ এনডোরা ৫২৫ ২১ ৩১
৮৩ কোস্টারিকা ৪৬৭ ১৮
৮৪ সাইপ্রাস ৪৬৫ ৪৫
৮৫ উজবেকিস্তান ৪৫৭ ৩০
৮৬ আফগানিস্তান ৪২৩ ১১ ১৮
৮৭ উরুগুয়ে ৪১৫ ১২৩
৮৮ আলবেনিয়া ৩৭৭ ২১ ১১৬
৮৯ তাইওয়ান ৩৭৩ ৫৭
৯০ বুর্কিনা ফাঁসো ৩৬৪ ১৮ ১০৮
৯১ কিউবা ৩৬৩ ১৮
৯২ রিইউনিয়ন ৩৪৯ ৪০
৯৩ জর্ডান ৩৪৯ ১২৬
৯৪ ওমান ৩৩১ ৬১
৯৫ চ্যানেল আইল্যান্ড ৩২৩ ২৭
৯৬ আইভরি কোস্ট ৩২৩ ৪১
৯৭ হন্ডুরাস ৩০৫ ২২
৯৮ ঘানা ২৮৭ ৩১
৯৯ সান ম্যারিনো ২৭৭ ৩২ ৩৫
১০০ ফিলিস্তিন ২৫৪ ২৪
১০১ নাইজার ২৫৩ ১০ ২৬
১০২ ভিয়েতনাম ২৪৫ ১০৬
১০৩ মরিশাস ২৪৪
১০৪ মালটা ২৪১
১০৫ নাইজেরিয়া ২৩৮ ৩৫
১০৬ মন্টিনিগ্রো ২৩৩
১০৭ কিরগিজস্তান ২২৮ ৩৩
১০৮ সেনেগাল ২২৬ ৯২
১০৯ বলিভিয়া ১৯৪ ১৪
১১০ জর্জিয়া ১৮৮ ৩৯
১১১ ফারে আইল্যান্ড ১৮৩ ১০৭
১১২ শ্রীলংকা ১৭৮ ৩৮
১১৩ ভেনেজুয়েলা ১৬৫ ৬৫
১১৪ মায়োত্তে ১৬৪ ১৫
১১৫ ড্যানিশ রিফিউজি কাউন্সিল ১৬১ ১৮
১১৬ কেনিয়া ১৫৮
১১৭ মার্টিনিক ১৫১ ৫০
১১৮ গুয়াদেলৌপ ১৩৯ ৩১
১১৯ আইল অফ ম্যান ১৩৯ ৫৫
১২০ ব্রুনাই ১৩৫ ৮২
১২১ গিনি ১২৮
১২২ কম্বোডিয়া ১১৫ ৫৮
১২৩ প্যারাগুয়ে ১১৫ ১৫
১২৪ জিব্রাল্টার ১০৯ ৫২
১২৫ ত্রিনিদাদ ও টোবাগো ১০৫
১২৬ রুয়ান্ডা ১০৫
১২৭ জিবুতি ৯০
১২৮ মাদাগাস্কার ৮২
১২৯ এল সালভাদর ৭৮
১৩০ লিচেনস্টেইন ৭৭ ৫৫
১৩১ মোনাকো ৭৭
১৩২ গুয়াতেমালা ৭৪ ১৭
১৩৩ ফ্রেঞ্চ গায়ানা ৭২ ৩৪
১৩৪ আরুবা ৭১
১৩৫ বার্বাডোস ৬০
১৩৬ জ্যামাইকা ৫৯
১৩৭ টোগো ৫৮ ২৩
১৩৮ উগান্ডা ৫২
১৩৯ মালি ৪৭
১৪০ কঙ্গো ৪৫
১৪১ ম্যাকাও ৪৪ ১০
১৪২ ইথিওপিয়া ৪৪
১৪৩ ফ্রেঞ্চ পলিনেশিয়া ৪২
১৪৪ জাম্বিয়া ৩৯
১৪৫ বারমুডা ৩৯ ১৭
১৪৬ কেম্যান আইল্যান্ড ৩৯
১৪৭ সিন্ট মার্টেন ৩৭
১৪৮ বাহামা ৩৩
১৪৯ সেন্ট মার্টিন ৩২
১৫০ গায়ানা ৩১
১৫১ ইরিত্রিয়া ৩১
১৫২ বেনিন ২৬
১৫৩ গ্যাবন ২৪
১৫৪ তানজানিয়া ২৪
১৫৫ হাইতি ২৪
১৫৬ মায়ানমার ২২
১৫৭ মালদ্বীপ ১৯ ১৩
১৫৮ লিবিয়া ১৯
১৫৯ সিরিয়া ১৯
১৬০ নিউ ক্যালেডোনিয়া ১৮
১৬১ গিনি বিসাউ ১৮
১৬২ ইকোয়েটরিয়াল গিনি ১৬
১৬৩ নামিবিয়া ১৬
১৬৪ অ্যাঙ্গোলা ১৬
১৬৫ অ্যান্টিগুয়া ও বার্বুডা ১৫
১৬৬ ডোমিনিকা ১৫
১৬৭ মঙ্গোলিয়া ১৫
১৬৮ ফিজি ১৫
১৬৯ সেন্ট লুসিয়া ১৪
১৭০ লাইবেরিয়া ১৪
১৭১ কিউরাসাও ১৩
১৭২ গ্রেনাডা ১২
১৭৩ সুদান ১২
১৭৪ লাওস ১২
১৭৫ গ্রীনল্যাণ্ড ১১
১৭৬ সিসিলি ১১
১৭৭ সুরিনাম ১০
১৭৮ মোজাম্বিক ১০
১৭৯ জিম্বাবুয়ে ১০
১৮০ সেন্ট কিটস ও নেভিস ১০
১৮১ ইসওয়াতিনি ১০
১৮২ জান্ডাম (জাহাজ)
১৮৩ চাদ
১৮৪ নেপাল
১৮৫ সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক
১৮৬ টার্কস্ ও কেইকোস আইল্যান্ড
১৮৭ ভ্যাটিকান সিটি
১৮৮ সেন্ট ভিনসেন্ট ও গ্রেনাডাইন আইল্যান্ড
১৮৯ সোমালিয়া
১৯০ কেপ ভার্দে
১৯১ বেলিজ
১৯২ মৌরিতানিয়া
১৯৩ মন্টসেরাট
১৯৪ সেন্ট বারথেলিমি
১৯৫ নিকারাগুয়া
১৯৬ বতসোয়ানা
১৯৭ সিয়েরা লিওন
১৯৮ ভুটান
১৯৯ মালাউই
২০০ গাম্বিয়া
২০১ পশ্চিম সাহারা
২০২
২০৩ এ্যাঙ্গুইলা
২০৪ ব্রিটিশ ভার্জিন দ্বীপপুঞ্জ
২০৫ বুরুন্ডি
২০৬ ক্যারিবিয়ান নেদারল্যান্ডস
২০৭ ফকল্যান্ড আইল্যান্ড
২০৮ পাপুয়া নিউ গিনি
২০৯ পূর্ব তিমুর
২১০ দক্ষিণ সুদান
২১১ সেন্ট পিয়ের এন্ড মিকেলন
তথ্যসূত্র: চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন (সিএনএইচসি) ও অন্যান্য।

টাইমলাইন