অর্থপাচারে জড়িত ৬৯ জনের তথ্য দিলো বিএফআইইউ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:১২ পিএম, ২৬ জানুয়ারি ২০২২

সুইস ব্যাংকসহ বিদেশে পাচার হওয়া অর্থ ফেরানো এবং অর্থপাচারের সঙ্গে জড়িত ৬৯ বাংলাদেশির তথ্য হাইকোর্টে জমা দিয়েছে বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইনটেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)। মূলত প্যারাডাইস ও পানামা পেপার্সে নাম আসা অর্থপাচারে জড়িত ব্যক্তি এবং প্রতিষ্ঠানের তথ্য হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এ প্রতিবেদন আকারে জমা দেওয়া হয়েছে।

বুধবার (২৬ জানুয়ারি) রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিনউদ্দিন মানিক ও সহকারী অ্যাটর্নী জেনারেল আন্না খানম কলি জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, পানামা ও প্যারাডাইস পেপার্স কেলেঙ্কারিতে নাম আসা ৬৯ ব্যক্তি–প্রতিষ্ঠানের তালিকা এবং এর মধ্যে ১০ ব্যক্তি–পরিবারের বিষয়ে গৃহীত ব্যবস্থার তথ্য উল্লেখ করে আদালতে প্রতিবেদন দেওয়া হয়েছে।

হাইকোর্টের দেওয়া তালিকায় নাম রয়েছে বিএনপি নেতা আব্দুল আউয়াল মিন্টুর দুই ছেলের। তাদের মধ্যে বারাকা পতেঙ্গা পাওয়ার লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাহতাব উদ্দিন চৌধুরী রয়েছেন।

এর আগে ১২ ব্যক্তি ও একটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ৩১০ কোটি ৮০ লাখ ১৪ হাজার ৭৪৮ টাকা বিদেশে পাচারের তথ্য দিয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

বাংলাদেশ থেকে বিদেশের বিভিন্ন ব্যাংক বিশেষ করে সুইস ব্যাংকসহ সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, দুবাই ও সংযুক্ত আরব আমিরাতে যেসব অর্থ পাচার হয়েছে তার তথ্য নিয়ে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) তাদের প্রতিবেদন জমা দিয়েছিল। গত ১৭ অক্টোবর হাইকোর্টকে এ তথ্য জানানো হয়। পরে আরও সময় নেয় বিএফআইইউ এবং দুদক।

এরই ধারাবাহিকতায় আজ (বুধবার) বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইনটেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) হাইকোর্টে এ প্রতিবেদন জমা দেয়।

একেএম আমিন উদ্দিন মানিক জানান, হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট বেঞ্চে বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ও বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটের (বিএফআইইউ)থেকে পাওয়া হলফনামা আকারে ওই প্রতিবেদন আমরা (রাষ্ট্রপক্ষ) জমা দিয়েছি। এর মধ্যে পানামা পেপার্সের ৪৩ জন এবং প্যারাডাইস পেপার্সের ২৬ জনের নামের তালিকা নিয়ে কাজ করছে বিএফআইইউ। নাম আসা ব্যক্তি–প্রতিষ্ঠানের বিষয়ে তথ্য সংগ্রহের জন্য বিভিন্ন দেশে চিঠিও পাঠিয়েছিল বিএফআইইউ।

এর মধ্যে ১০ ব্যক্তি–পরিবারের বিষয়ে আর্থিক লেনদেন, বিদেশে অবস্থান ও ব্যাংক পরিচালনার বিষয়ে তথ্য পাওয়া গেছে। প্রতিবেদনটি আগামী রোববার আদালতে উপস্থাপন করা হবে।

জানা গেছে, কর ফাঁকি দিয়ে নামে-বেনামে সম্পদের পাহাড় গড়া, আইন অমান্য করে দেশের টাকা বিদেশে পাচার ও অবৈধ আয়ে বৈধ ক্ষমতার মালিক হওয়া নিয়ে ২০১৬ সালের এপ্রিলে পানামা পেপারস নামে দুর্নীতির সংবাদ আসে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সাবেক ও বর্তমান শতাধিক রাষ্ট্রনায়ক ও রাজনীতিক, ব্যবসায়ী, খেলোয়াড়, অভিনেতা, শিল্পীসহ অনেকের নাম ছিল তালিকায়।

২০১৭ সালের ৫ নভেম্বর প্রকাশ হয় একই ধরনের আরেকটি তালিকা, যা পরিচিতি পায় প্যারাডাইস পেপারস নামে। এখনও এই পেপারে থাকা নানা নাম প্রকাশ হচ্ছে। এই দুই জায়গায় বাংলাদেশেরও বেশ কিছু ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নাম উঠে আসে।

তারই আলোকে বিদেশে অর্থপাচারের সঙ্গে জড়িত ৬৯ বাংলাদেশির তথ্য হাইকোর্টে জমা দিয়েছে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)। এ বিষয়ে আগামী রোববার (৩০ জানুয়ারি) হাইকোর্টের বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে বিস্তারিত শুনানি হবে।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিনউদ্দিন মানিক জানান, আজ পাওয়া তালিকায় ২৬ জনের নাম এসেছে প্যারাডাইস পেপারসে ও পানামা পেপারসে ৪৩ জনের নাম এসেছে। বিএফআইইউয়ের পক্ষ থেকে সুনির্দিষ্ট আবেদনের ভিত্তিতে ১০ জনের অর্থ পাচার বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য দিয়েছে বিদেশি গোয়েন্দা সংস্থা। তালিকায় নাম আছে বিএনপি নেতা আব্দুল আউয়াল মিন্টুর দুই ছেলের। বারাকা পতেঙ্গা পাওয়ার লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীর নামও রয়েছে তালিকায়।

এর আগে গত (২০২১ সালের) বছরের ৬ ডিসেম্বর পানামা ও প্যারাডাইস পেপার্সে নাম আসা অর্থ পাচারকারীদের বিরুদ্ধে কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, তা জানাতে নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) ও সিআইডিকে তা জানাতে বলা হয়। এরপর গত ৫ ডিসেম্বর পানামা ও প্যারাডাইস পেপার্সে নাম আসা অর্থপাচারের সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের তালিকা পৃথক দুটি প্রতিবেদনে হাইকোর্টে দাখিল করে দুদক।

দেশীয় ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের তথ্য বিশ্লেষণ করে ও আইসিআইজের ওয়েবসাইটে বর্ণিত দেশভিত্তিক তালিকা পর্যালোচনা করে বাংলাদেশিদের ক্ষেত্রে প্রথম পর্বে ৪৩ ব্যক্তি ও দুটি প্রতিষ্ঠানের নাম আসে। এর পরে ২৬ জনের নাম পাওয়া যায়।

দেশের ভিন্ন ভিন্ন নাগরিক ও কোম্পানি অর্থ পাচার করে সুইস ব্যাংকসহ বিদেশি ব্যাংকগুলোতে গোপনে জমা রাখা বিপুল অর্থ উদ্ধারে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে নির্দেশনা চেয়ে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী আবদুল কাইয়ুম খান ও সুবীর নন্দী দাস ২০২১ সালের ১ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় একটি রিট করেন। এর শুনানি নিয়ে ওই বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি আদালত রুলজারিসহ আদেশ দেন।

রুলের পাশাপাশি সুইচ ব্যাংকসহ দেশের বাইরে বিদেশি ব্যাংকে গোপনে পাচার করে অর্থ রাখা ব্যক্তির নাম–ঠিকানা, অর্থের পরিমাণ এবং ওই অর্থ উদ্ধারে পাচারকারীদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে, তা জানাতে বলা হয়।

এর আগে ২০২০ সালের ১৯ ও ২২ নভেম্বর বিভিন্ন গণমাধ্যমে আসা প্রতিবেদন বিবেচনায় নিয়ে হাইকোর্ট স্বপ্রণোদিত রুল দেন। এতে দেশের বাইরে অর্থ পাচারে জড়িত ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নাম, ঠিকানা ও পাচার করা অর্থে তাদের বিদেশে বাড়ি তৈরিসহ বিস্তারিত তথ্য জানতে নির্দেশ দেন।

পৃথক দুটি বিষয় গত বছরের ৫ ডিসেম্বর একসঙ্গে শুনানির জন্য ওঠে হাইকোর্টে। রিটের পরিপ্রেক্ষিতে দুদক সেদিন আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করে।

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) প্রতিবেদনে পানামা ও প্যারাডাইস পেপার্স কেলেঙ্কারি নিয়ে ৪৩ ব্যক্তি–প্রতিষ্ঠানের নামের তালিকা উল্লেখ করা হয়। দেশীয় ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের তথ্য বিশ্লেষণ এবং ইন্টারন্যাশনাল কনসোর্টিয়াম অব ইনভেস্টিগেটিভ জার্নালিস্টস (আইসিআইজে) ওয়েবসাইটে দেশভিত্তিক তালিকা পর্যালোচনা করে ৪৩ ব্যক্তি–প্রতিষ্ঠানের সংশ্লিষ্টতার তথ্য পাওয়ার কথা জানায় সংস্থাটি। প্রতিবেদনে দুদক বলেছে, মানি লন্ডারিং আইনে ২৮টি প্রেডিকেট অপরাধের মধ্যে শুধু ঘুষ ও দুর্নীতি নিয়ে দুদক কাজ করে। ওই অভিযোগ দুদকের তফসিলবহির্ভূত বলে অনুসন্ধানকাজে অগ্রসর হওয়া যাচ্ছে না।

দুদকের প্রতিবেদনের ওপর শুনানি নিয়ে গত বছরের ৬ ডিসেম্বর হাইকোর্ট মানি লন্ডারিং রোধ এবং পানামা ও প্যারাডাইস পেপারস কেলেঙ্কারিতে বাংলাদেশের যেসব ব্যক্তির নাম ও ঠিকানা এসেছে, তাদের বিরুদ্ধে বিএফআইইউ কী পদক্ষেপ নিয়েছে, তা জানাতে বলেন। এর ধারাবাহিকতায় ওই প্রতিবেদন আদালতে জমা দেওয়া হলো।

এফএইচ/কেএসআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]