কাশি সারাতে চকোলেট খান!

লাইফস্টাইল ডেস্ক
লাইফস্টাইল ডেস্ক লাইফস্টাইল ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২:১০ পিএম, ১৪ জানুয়ারি ২০১৯

শীতের তীব্রতা অনেকটাই কমেছে। এখন ভারী ভারী শীত পোশাক না পরলেও চলে। আবহাওয়ার এই পরিবর্তনে সর্দি-কাশি, নাক বন্ধ এবং জ্বরে কাবু হয়ে পড়ছেন অনেকেই। তাই বলে হুট করে কাফ সিরাপ মুখে ঢালবেন না যেন! ওষুধও খেতে হবে না। বরং চকোলেট খান। অনেক ভালো কাজ করবে।

ইংল্যান্ডের ইউনিভার্সিটি অব হালের হৃদরোগ ও শ্বাসযন্ত্র বিভাগের প্রধান অ্যালিন মরিস। সংবাদমাধ্যম ডেইলিমেল-এ একটি সমীক্ষা তুলে ধরেছেন তিনি। তাতে জানা গিয়েছে, সর্দি-কাশির নানা ওষুধ পাওয়া যায় বাজারে। কিছু ওষুধের অন্যতম উপাদান কোকোয়া। যে ওষুধে কোকোয়া রয়েছে, সেগুলি খেলে তাড়াতাড়ি সুস্থতা লাভ করা যায়।

Kashi-2

লন্ডনের ইম্পেরিয়াল কলেজের বিজ্ঞানীরা জানান, সর্দি-কাশির ওষুধে কোডিনও ব্যবহার করা হয়। যাতে মাথা ধরা, কাশি এবং কফের সমস্যা দূর হয়। কিন্তু তার চেয়ে দ্রুত গতিতে কাজ দেয় কোকোয়া। মাত্র ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে সমস্যা কাটানো যায়। ঘুমেও ব্যাঘাত ঘটে না।

চকোলেটই দুইভাবে কাজ করে। প্রথমত, মধুর মতো গলায় আঠালো একটা আস্তরণ তৈরি করে চকোলেট। তাতে স্নায়ুপ্রান্তগুলি ঢাকা পড়ে যায়। তাই ঠান্ডা লাগলেও গলা খুসখুস করা বন্ধ হয়ে যায়। দ্বিতীয়ত, কোকোয়ার মধ্যে থিওব্রমিন নামের বিশেষ ধরনের অ্যালকালয়েড থাকে, যা কাশির মাধ্যমে বারবার কাফ ফেলার শারীরিক প্রয়োজন কমিয়ে দেয়। সাধারণ ওষুধের চেয়ে কোকোয়া বেশি আঠালো হয়। তাই গলার মধ্য তুলনামূলক মোটা আস্তরণ তৈরি করতে সক্ষম হয়। তাতেও কমে যায় কাশি।

Kashi-3

হট চকোলেটে কাজ হবে না বলে জানিয়েছেন গবেষকরা। কারণ হালকা গরম দুধের সঙ্গে চকোলেট মিশিয়ে খেলে, তাড়াতাড়ি গলা বেয়ে নেমে যাবে সেটি। মোটা আস্তরণ আর গড়ে উঠবে না গলায়। ওজন নিয়ে চিন্তা থাকলে, মিষ্টিছাড়া ডার্ক চকোলেট খেতে পারেন নিশ্চিন্তে। সরাসরি কোকোয়াও খাওয়া যেতে পারে।

এইচএন/পিআর

বিনোদন, লাইফস্টাইল, তথ্যপ্রযুক্তি, ভ্রমণ, তারুণ্য, ক্যাম্পাস নিয়ে লিখতে পারেন আপনিও - [email protected]

আপনার মতামত লিখুন :