তিন সাংবাদিকের নামে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলা প্রত্যাহার দাবি

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:০০ পিএম, ১১ জুলাই ২০২১

ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে করোনা আক্রান্ত রোগীদের খাবার পরিবেশনে অনিয়মের সংবাদ প্রকাশের জেরে তিন সাংবাদিকের বিরুদ্ধে করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক অ্যাসোসিয়েশন।

একইসঙ্গে এ মামলায় জাগোনিউজ২৪.কম-এর ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি তানভীর হাসান তানুকে গ্রেফতার করার তীব্র নিন্দা জানিয়েছে সংগঠনটি। যদিও রোববার (১১ জুলাই) আদালত থেকে জামিন পেয়ে সাংবাদিক তানভীর হাসান তানু মুক্ত হয়েছেন।

রোববার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে মুঠোফোন গ্রাহক অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, স্বাস্থ্যখাতের দুর্নীতি আজ নতুন কিছু নয়। করোনা মহামারিতে এই দুর্নীতি আরও চরম আকার ধারণ করেছে। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন করার পর বলা হয়েছিল, এটি কোনো গণমাধ্যমকর্মী ও মুক্তমনা মানুষের বাকরুদ্ধ করতে ব্যবহার করা হবে না। কিন্তু ঠাকুরগাঁওয়ের হাসপাতালে দুর্নীতি নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করার কারণে তানভীর হাসান তানুর বিরুদ্ধে মামলা ও গ্রেফতারের কোনো যৌক্তিকতা আমরা দেখি না।

মহিউদ্দিন আহমেদ দ্রুত এ মামলা প্রত্যাহারের দাবি জানান। একইসঙ্গে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনটি দ্রুত সংস্কার করতে সরকারের প্রতি অনুরোধ জ্ঞাপন করেন।

গত শনিবার (১০ জুলাই) দুপুরে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. মো. নাদিরুল আজিজ বাদী হয়ে সদর থানায় তিন সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলা করেন। মামলায় জাগোনিউজ২৪.কমের ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি তানভীর হাসান তানুকে এক নম্বর আসামি করা হয়। অন্য দুই আসামি হলেন বাংলাদেশ প্রতিদিনের ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধি আব্দুল লতিফ লিটু ও নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকমের জেলা প্রতিনিধি রহিম শুভ।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ২৫(১)(ক) ২৫(১)(খ) ২৯(১)/৩১(১)/৩৫(১) ধারায় করা ওই মামলার অভিযোগে বলা হয়, গত ৫ জুলাই জাগোনিউজ২৪.কম, নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকম, বাংলাদেশ প্রতিদিন ও দৈনিক যুগান্তরের অনলাইন সংস্করণে করোনা রোগীর খাবার নিয়ে ‘মিথ্যা, ভিত্তিহীন, বানোয়াট, জনরোষ সৃষ্টিকারী মানহানিকর’ সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে।

দায়ের হওয়া মামলার বিষয়ে খবর নিতে গেলে ঠাকুরগাঁও সদর থানা পুলিশ শনিবার রাত ৮টায় সাংবাদিক তানুকে গ্রেফতার করে। রাতে তানভীর হাসান তানু থানা হাজতে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে নেয়া হয়।

পরে সকালে তানুকে ঠাকুরগাঁও চিফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করা হয়। তার আইনজীবীর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এ সাংবাদিককে জামিন দেন সিনিয়র চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আরিফুর রহমানের আদালত। জামিনের পর আদালতের হাজতখানা থেকে সাংবাদিক তানু মুক্ত হন।

এইচএস/এআরএ/এইচএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]