আন্তর্জাতিক মানের রাসায়নিক পরীক্ষাগার সংক্রান্ত বিল চূড়ান্ত

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৯:৩৫ পিএম, ০৯ আগস্ট ২০২০

বিভিন্ন রাসায়নিকের পরিমাপ নিয়ে গবেষণায় সংবিধিবদ্ধ সংস্থা তৈরিতে সংসদে উত্থাপিত আইনের খসড়া পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে চূড়ান্ত করেছে সংসদীয় কমিটি। আন্তর্জাতিক মান অনুসরণ করেই এটি করা হচ্ছে।

গত ২৩ জুন সংসদে উত্থাপিত ‘বাংলাদেশ রেফারেন্স ইনস্টিটিউট ফর কেমিক্যাল মেজারমেন্টস বিল- ২০২০’ বিলটি অধিকতর পরীক্ষা করে সংসদে প্রতিবেদন দেয়ার জন্য বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে পাঠানো হয়।

রোববার (৯ আগস্ট) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির ৬ষ্ঠ বৈঠকে এটি চূড়ান্ত করা হয়। সভাপতির বিশেষ আমন্ত্রণে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান বৈঠকে যোগ দেন।

জানা যায়, বৈঠকের শুরুতে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কালোরাত্রিতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব ও তার পরিবারের সদস্যসহ অন্যান্য যারা শহীদ হয়েছেন তাদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করা হয়।

“বাংলাদেশ রেফারেন্স ইনস্টিটিউট ফর কেমিক্যাল মেজারমেন্টস্ বিল, ২০২০” ছাড়াও “বাংলাদেশ প্রকৌশল গবেষণা কাউন্সিল বিল, ২০২০” বিলটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়। এ সময় কতিপয় সংযোজন, সংশোধন ও পরিমার্জনের পর বিল দুটি জাতীয় সংসদে পাসের উদ্দেশ্যে সংশোধিত আকারে সংসদে রিপোর্ট প্রদানের জন্য কমিটি কর্তৃক সুপারিশ করা হয়।

নতুন এই আইনের অধীনে গবেষণাগার হলে রাসায়নিক পরীক্ষা করতে বিদেশ যেতে হবে না। উল্টো অন্য কোনো দেশ এখান থেকে রাসায়নিক পরীক্ষা করতে পারবে।

নতুন আইনে এটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অধীন সংবিধিবদ্ধ ইসস্টিটিউটটে রূপান্তরিত হবে, যার প্রধান হবেন মহাপরিচালক। পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি হবেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সচিব।

এই প্রতিষ্ঠান পরিমাপ ও রেফারেন্স পরিমাণ সেবা দেবে। এছাড়া প্রফিসিয়েন্সি টেস্টিং ও ইন্টার-ল্যাবরেটরি কমপ্যারিজন সেবা দেবে। নতুন প্রতিষ্ঠান রাসায়নিক পরিমাপ বিজ্ঞান সংক্রান্ত সর্বোচ্চ আন্তর্জাতিক সংস্থাসহ অন্যান্য আঞ্চলিক সংস্থা এবং সমধর্মী দেশীয়, আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করবে।

কমিটির সভাপতি আ ফ ম. রুহুল হকের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য ইকবালুর রহিম, মো. শফিকুল আজম খাঁন, মো. মোজাফ্ফর হোসেন, মো. আক্তারুজ্জামান, শিরীন আহমেদ, সেলিমা আহমাদ ও হাবিবা রহমান খান অংশ নেন।

এইচএস/এমএআর/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]