দক্ষিণ সুদানে শান্তিরক্ষায় গেলেন নৌবাহিনীর ১০০ সদস্য

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:১৩ পিএম, ০৪ অক্টোবর ২০২২

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে দক্ষিণ সুদানে (আনমিস) নিয়োজিত বাংলাদেশ ফোর্স মেরিন ইউনিট-৮ এ অংশ নিতে বাংলাদেশ নৌবাহিনীর ১০০ জন নৌসদস্যের প্রথম গ্রুপ ঢাকা ত্যাগ করেছেন।

মঙ্গলবার (৪ অক্টোবর) ভোরে তারা হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করেন। ওভারসিজ নেভাল অপারেশানন্স পরিদপ্তরের উপ-পরিচালক কমান্ডার আতিকুর রহমান ভূঁইয়া তাদের বিদায় জানান।

আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায়। আগামী ২৫ অক্টোবর দ্বিতীয় গ্রুপের ১০০ নৌসদস্য বাংলাদেশ ফোর্স মেরিন ইউনিট-৮ এ যোগদানের উদ্দেশ্যে ঢাকা ত্যাগ করবেন।

বিজ্ঞপ্তিতে আইএসপিআর জানায়, কন্টিনজেন্টটি বাংলাদেশ ফোর্স মেরিন ইউনিট-৭ এর প্রতিস্থাপক হিসেবে দক্ষিণ সুদানে দায়িত্ব পালন করবে। বর্তমানে ব্যানএফএমইউ-৭ এর অধীনে ২০০ জন নৌসদস্য নিয়োজিত রয়েছেন।

জাতিসংঘের নির্দেশনা অনুযায়ী নৌবাহিনীর ফোর্স মেরিন ইউনিট দক্ষিণ সুদানের প্রত্যন্ত এলাকায় নিত্যপ্রয়োজনীয় জ্বালানি, খাদ্যসামগ্রী, ওষুধ ও মানবিক সাহায্য বহনকারী বার্জগুলো নিরাপদ চলাচলের নিশ্চয়তা বিধান, নৌপথের জলদস্যুতা পর্যবেক্ষণ ও নিয়ন্ত্রণ, অগ্নিনির্বাপণে স্থানীয় জনগণকে সহায়তা প্রদানে কাজ করছে। এছাড়া আহত সামরিক-অসামরিক ব্যক্তিদের উদ্ধার ও জরুরি চিকিৎসাসেবা প্রদানসহ ডুবুরি সহায়তা প্রদানের কাজ করছে।

দক্ষিণ সুদানে নিয়োজিত ব্যানএফএমইউ কন্টিনজেন্টের সদস্যরা নীল নদের দীর্ঘ ৯৩৮ কিলোমিটার নদীপথে মোট ৫৪টি অপারেশন লাইফলাইন অভিযান অত্যন্ত সফলভাবে সম্পন্ন করেছে।

বিশ্বের বিভিন্ন যুদ্ধবিধ্বস্ত অঞ্চলে শান্তি প্রতিষ্ঠায় গত দুই দশকেরও বেশি সময় ধরে নৌবাহিনীর সদস্যরা অত্যন্ত আন্তরিকতা, নিষ্ঠা ও দক্ষতার সঙ্গে অর্পিত দায়িত্ব পালন করে চলেছে। নৌবাহিনীর এই গর্বিত অংশগ্রহণ আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ও সুনাম বৃদ্ধি করেছে। এছাড়া দক্ষিণ সুদানে বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠায় নিয়োজিত বাংলাদেশ ফোর্স মেরিন ইউনিটটি ২০১৫ সাল থেকে এখন পর্যন্ত এক হাজার ৪০০ নৌসদস্য অত্যন্ত আন্তরিকতা, নিষ্ঠা ও দক্ষতার সঙ্গে অর্পিত দায়িত্ব পালন করেছেন।

টিটি/বিএ/এএসএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।