এমওইউ ও চুক্তির মধ্যে পার্থক্য বিএনপি জানে না? প্রশ্ন কাদেরের

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:১২ পিএম, ১৮ নভেম্বর ২০১৯

বিএনপির নেতৃত্বে অনেক বিজ্ঞ-অভিজ্ঞ ব্যক্তি আছেন। আমি অবাক হয়ে যাই যে এমওইউ (সমঝোতা স্মারক) ও চুক্তির মধ্যে কি পার্থক্য তারা এটা বোঝে না কেন? নাকি এটা জেনেও না জানার ভান করছেন। এমনটাই প্রশ্ন রেখেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

সোমবার সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সমসাময়িক ইস্যুতে প্রেস ব্রিফিংয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রীকে চিঠি দিয়ে ভারতের সঙ্গে চুক্তি জনসম্মুখে প্রকাশের বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, চুক্তি এবং এমওইউ কিন্তু এক কথা নয়। এখানে কোনো চুক্তি হয়নি। এমওইউ হয়েছে চারটি আর তিনটি ওপেনিং।

সাংবাদিকদের উদ্দেশে কাদের বলেন, বিএনপিকে বলুন তারা এমওইউ এবং চুক্তির মধ্যে পার্থক্যটা কেন বোঝে না? এটা জেনেও কি না জানার ভান করছে? এমওইউকে কেন চুক্তি বলছে, এটা আমার প্রশ্ন? আর এখানে নাথিং সিক্রেট, এভরিথিং ইজ ওপেন সিক্রেট। এমওইউতে যা কিছু আছে কোনোটাই... সিক্রেসির এখানে কিছু নেই। এটা কোনো চুক্তি নয়।

শুদ্ধি অভিযান নিয়ে মন্ত্রী বলেন, শুদ্ধি অভিযান যে থামেনি, প্রধানমন্ত্রী পার্লামেন্টে বলে দিয়েছেন এটা আমার বলা লাগবে না। উনি বলেছেন, উপজেলা পর্যায় পর্যন্ত শুদ্ধি অভিযান চলতে থাকবে।

বিভিন্ন অপকর্ম করে দল থেকে বহিষ্কৃত অনেকেই দেশে এসেছে, তাদের মধ্যে শর্টগান সোহেল। মিরপুরের শাহাদত মিল্কি হত্যার আসামি ঢাকা আসার প্রস্তুতি নিচ্ছে- এ বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, প্রস্তুতি নিচ্ছে দেখি না, আসুক না।

একজন (শর্টগান সোহেল) তো এসে গেছে, মন্ত্রীদের সঙ্গে ছবি তুলছে, ফেসবুকে ভাইরাল করছে, আপনার সঙ্গে হয়তো তুলতে পারেনি এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘আমার মনে হয় না সেরকম স্কোপ আছে। পুলিশের নজরদারি আছে, নিশ্চয়ই তারা বিষয়টা খতিয়ে দেখছে। সে রকম কিছু হলে অবশ্যই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

‘এখানে কারো ব্যাপারে কোনো প্রকার শৈথিল্য প্রদর্শনের সুযোগ নেই। আমরা টার্গেট অ্যাচিভ করার জন্য যতো রকমের সেক্রিফাইস প্রয়োজন আমরা করব। এখানে প্রাইম মিনিস্টার তার আত্মীয়দেরও তো রেহাই দেননি, এটা তো আপনাদের বুঝতে হবে।’

ঢাকা মহানগর উত্তর স্বেচ্ছাসেবক লীগের নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান নাঈমকে নিয়ে গণমাধ্যমে বিয়ের বিষয়টি আসছে, এ বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, দেখেন কবে বিয়ে করেছে কী একটা বিষয়ক… যে কয়জন কাউন্সিলরের মধ্যে শুদ্ধি অভিযানে মিডিয়ায় রিপোর্ট এসেছে, এর মধ্যে তার নামটি নেই। কোনো প্রকার দুর্নীতি বা দুষ্মকর্মের অভিযোগ তার বিরুদ্ধে আসেনি। এখন বিয়ের অনুষ্ঠানে কবে কী একটা কী করছে সেটা এখন আসছে, তারপরও আমি বিষয়টা খতিয়ে দেখব।

শুদ্ধি অভিযানে ব্যবসায়ীরা বিশাল অঙ্কের টাকাও উঠিয়ে নিয়েছে- এ বিষয়ে কাদের বলেন, প্রমাণ দিন কোথায় কোথায় টাকা উঠিয়ে নিয়েছে, আমরা ব্যবস্থা নিচ্ছি।

এমইউএইচ/এনএফ/পিআর