‘মধ্যপ্রাচ্য শান্তি পরিকল্পনা’ ইসরায়েলি দখলদারিত্বকে বৈধতার ফন্দি

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:৩৬ পিএম, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০

জেরুজালেমকে ইসরায়েলের অংশে রেখেই যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ‘মধ্যপ্রাচ্য শান্তি পরিকল্পনা’ ইসরাইলি দলখদারিত্বকে বৈধতা দেয়ার নতুন ফন্দি ছাড়া কিছুই নয় বলে মন্তব্য করেছে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ)।

মঙ্গলবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) দলটির সভাপতি হাসানুল হক ইনু ও সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার এক বিবৃতিতে এ কথা বলেন।

বিবৃতিতে নেতারা বলেন, ডোনাল্ড ট্রাম্প তার মধ্যপ্রাচ্য পরিকল্পনার মাধ্যমে শুধু ফিলিস্তিনি জনগণের আত্মনিয়ন্ত্রণ অধিকার, স্বাধীনতা ও স্বাধীন রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার অধিকার বরাবরের মতোই অস্বীকার করেছেন।

তারা বলেন, ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যপ্রাচ্য পরিকল্পনা জাতিসংঘ, বিশ্ব জনমত ও ফিলিস্তিনিদের প্রতি নিষ্ঠুর তামাশা। জাতিসংঘের ১৯৬৭ পূর্ব সীমানা অনুযায়ী দুই রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার সিদ্ধান্তকে পাশ কাটিয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যপ্রাচ্য পরিকল্পনা মধ্যপ্রাচ্যে শান্তির বদলে অশান্তিকেই উৎসাহিত করবে।

জাসদ নেতারা আরও বলেন, জাসদ বিশ্বের শান্তিবাদী মানুষের সাথে কণ্ঠ মিলিয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যপ্রাচ্য পরিকল্পনা প্রত্যাখ্যান করছে এবং একই সাথে ডোনাল্ড ট্রাম্পের মধ্যপ্রাচ্য পরিকল্পনার বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছে।

ইসরায়েল-ফিলিস্তিন দ্বন্দ্ব নিরসনে ‘মধ্যপ্রাচ্য শান্তি পরিকল্পনা’ নামে সম্প্রতি প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প একটি রূপরেখা উন্মোচন করেছেন। তবে এটাকে একপাক্ষিক অভিহিত করে তা প্রত্যাখ্যান করেছে বিশ্বের বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা।

ট্রাম্পের দাবি, এ প্রথমবারের মতো ইসরায়েল একটি ধারণামূলক মানচিত্র প্রকাশ করতে রাজি হয়েছে। শান্তি স্থাপনের জন্য নিজেদের ভূখণ্ড ছেড়ে দিতে সম্মতও হয়েছে। ইসরায়েল অনেক করেছে। আমরা তাদের সঙ্গে একটি যৌথ কমিটি গঠন করব ধারণামূলক মানচিত্রের আরও বিস্তারিত ও নির্দিষ্ট করতে, যাতে দ্রুত স্বীকৃতি দেয়া সম্ভব হয়।

এইউএ/এমএসএইচ/এমকেএইচ