সরকারকে মান্নার সাত দিনের আলটিমেটাম

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:৫৬ পিএম, ২০ অক্টোবর ২০২০
ফাইল ছবি

নিজের ওপর হামলাকারীদের সাত দিনের মধ্যে কোনো ব্যবস্থা না নেয়া হলে ঢাকা মহানগরের সব জায়গায় অবরোধের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না।

মঙ্গলবার (২০ অক্টোবর) হামলার ঘটনার প্রতিবাদে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এক বিক্ষোভ সমাবেশে তিনি এ হুঁশিয়ারি দেন।

মান্না বলেন, ‘আমার ওপর যারা হামলা করেছে তাদের ভিডিও আমার কাছে আছে। তৈমুর আলম খন্দকার (খালেদা জিয়ার উপদেষ্টা) তাদের নামে জিডি করেছেন। সাত দিনের মধ্যে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। যদি না নেয়া হয়… সাত দিন, ১৫ দিন পরে ঢাকা মহানগরের সব জায়গায় অবরোধ করব। এই রকম মনে করবেন না যে এক মাঘে শীত যাবে। এরকম মনে করবেন না যে চুরি করে রক্ষা পাবেন। ১০ বছরে একদিন তো সভা হবে, সেদিন চলে এসেছে।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের রামদার ভয় দেখাবেন না। জেলের ভয় দেখাবেন না। মামলার ভয় দেখাবেন না। পান্তা ভাতের মধ্যে কাঁচামরিচ দিয়ে যেভাবে খাই, ওইভাবে হামলা-মামলা এত বছর ধরে খেয়ে এসেছি। আমরা যখন ধরব তখন কিন্তু পালানোর পথ পাবেন না।’

মান্না বলেন, ‘জাফরুল্লাহ চৌধুরী, জোনায়েদ সাকী, নুরুল হক নুর সবাই কথা বলছেন, কারোর কণ্ঠরোধ করতে পারেননি। আর কণ্ঠরোধ করতেও পারবেন না। আজ আমরা তিনজন, চারজন কথা বলছি, সাত দিন পরে সারাদেশের মানুষ একসঙ্গে কথা বলবে। ওই কণ্ঠ এত জোরে শোনা যাবে যে, গণভবনের দেয়াল ভেঙে পড়ে যাবে।’

এ সরকার ‘জাত-ডাকাত’ মন্তব্য করে ডাকসুর সাবেক এই ভিপি বলেন, ‘এরা কত বড় ডাকাত পৌরসভা নির্বাচনেও ভোট ডাকাতি করেছে। এরা আসলেই জাত ভোট ডাকাত।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্দেশে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক বলেন, ‘১৯৭৩ সালের নির্বাচনে খন্দকার মোশতাক ও ইঞ্জিনিয়ার রশিদের ব্যালট বাক্স ঢাকায় নিয়ে এসেছিল। ওখানে ভোট গণনা করে ইঞ্জিনিয়ার রশিদের জয় ছিল। আর ঢাকায় এনে যখন গণনা করে তখন খন্দকার মোশতাককে জয়ী করে। এত পিয়ারের খন্দকার মোশতাকই বঙ্গবন্ধুর হত্যার সঙ্গে জড়িত ছিল। ভেতরে ভেতরে আপনার গদি ধরে টানবার অসংখ্য লোক আছে। আপনি দেশ শাসনের যোগ্যতা রাখেন না। আপনি দেশ শাসনের আইনি অধিকার রাখেন না।’

বিক্ষোভ সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকী, ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুর প্রমুখ।

কেএইচ/এসআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]