কানেকটিকাটে ২৬ পদের ভর্তা-ভাত খেয়ে ১৪২৬ বরণ

কৌশলী ইমা কৌশলী ইমা , নিউইয়র্ক প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০১:৪২ পিএম, ২৯ এপ্রিল ২০১৯

২৬ পদের রকমারি ভর্তা-ভাত ও ভাজা ইলিশে অতিথিদের আপ্যায়নের মধ্য দিয়ে বাংলা নববর্ষ ১৪২৬ বরণ করলো যুক্তরাষ্ট্রের ম্যানচেস্টারের প্রবাসীরা।

স্থানীয় সাংস্কৃতিক কর্মী রেখা রোজারিও গত শনিবার কানেকটিকাটের ম্যানচেস্টারে নিজ বাসভবনে অতিথিদের রাতের খাবারের আয়োজন করেন। এতে তিনি ২৬ পদের রকমারি ভর্তা রাখেন, যাতে তিনি আলোচিত হয়েছেন নিজ শহরে।

manchester-boishak

রেখা রোজারিও কানেকটিকাটের ম্যানচেস্টার প্রবাসী ও একজন সাংস্কৃতিক কর্মী। তিনি গত কয়েক বছর ধরে ব্যক্তিগত উদ্যোগে স্থানীয় ম্যানচেস্টার শহরে প্রবাসীদের নিয়ে বাংলা নববর্ষ উদযাপন করে আসছেন। তারই ধারাবাহিকতাই গত শনিবার দেড় শতাধিক প্রবাসী নিয়ে নিজ বাড়িতেই বৈশাখী আড্ডার আয়োজন করেন। তার আহ্বানে সাড়া দিয়ে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ বর্ষবরণ পালন করতে সেখানে উপস্থিত হন। সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত চলে আড্ডা, নাচ ও গান। সাংস্কৃতিক পর্বে সংগীত পরিবেশন করেন ফ্রান্সিস সরকার, লিটন গ্রেগরী, রাশিদা আখন্দ লাকী, কৌশলী ইমা ও রেখা রোজারিও। শিল্পীদের তবলায় সঙ্গত করেন মার্ক হাওলাদার রনি। অনুষ্ঠানের শুরুতেই নৃত্য পরিবেশন করেন রোকাইয়া রেখা।

manchester-boishak

রেখা রোজারিও জানান, আগামী ১৪২৭ সালে নববর্ষ উদযাপনেও থাকবে ২৭ পদের রকমারি ভর্তা ও ভাজা ইলিশে রাতের খাবার।

manchester-boishak

গত রোববার কানেকটিকাটের ম্যানচেস্টার প্রবাসী বাংলাদেশি নারীরাও পালন করেন বাংলা নববর্ষ ১৪২৬। অবিরাম বৃষ্টির কারণে নির্দিষ্ট মাঠের পরিবর্তে বাড়িতেই উদযাপন করা হয় বাংলা নববর্ষ ১৪২৬। রকমারি ভর্তা আর ঐতিহ্যবাহী খাবারে আপ্যায়ন করা হয় অতিথিদের।

manchester-boishak-4

এদিকে, গত ৩ মাস আগে ঘোষণা করা ব্যক্তিগত উদ্যোগে নববর্ষ বরণকে প্রতিহত করতে প্রতিহিংসায় জড়িয়ে পড়েন স্থানীয় বাংলাদেশি আমেরিকান অ্যাসোশিয়েশন অব কানেকটিকাট (বাক)। কানেকটিকাটে প্রবাসীদের প্রিয় এ সংগঠনে জড়িত কতিপয় স্বার্থান্বেষীর কুপরামর্শে একই দিনে আরেকটি বৈশাখী মেলার আয়োজন করার কথা গত ১০ এপ্রিল ঘোষণা করা হয়। বাক-এর এ ধরনের হীনম্মন্য কর্মকাণ্ড দেখে অনেকেই অবাক হয়েছেন। ব্যক্তিগত ও সাংগঠনিক প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে পড়লেও বাক-এর নেতৃত্ব প্রদানকারী কতিপয় নির্লজ্জ ব্যক্তির নানা কু-কর্মে প্রবাসীদের প্রিয় সংগঠন বাক যেমন ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে, তেমনিভাবে সুনামও বিনষ্ট হচ্ছে বলে অনেকেই মত প্রকাশ করেন।

জেডএ/পিআর

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - [email protected]

আপনার মতামত লিখুন :