গাজীপুর জেলা ইজতেমা ১৫ ফেব্রুয়ারি : ৬ মুরব্বির অংশগ্রহণে ‘না’

ধর্ম ডেস্ক
ধর্ম ডেস্ক ধর্ম ডেস্ক গাজীপুর
প্রকাশিত: ০৮:০৭ পিএম, ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

জেলাভিত্তিক আঞ্চলিক ইজতেমার অংশ হিসেবে আগামী ১৫ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত হবে গাজীপুর জেলা ইজতেমা। সে লক্ষ্যে প্রস্তুতি চলছে। ইজতেমাকে সফল করতে গতকাল সকাল ১০টায় গাজীপুর জেলা তাবলিগের মুরব্বীরা এক পরামর্শ সভায় বসেন।

পরামর্শ সভায় গাজীপুরের ইজতেমায় তাবলিগের ৬ মুরব্বিকে অংশ না নেয়ার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হয়। সিদ্ধান্ত মোতাবেক কাকরাইল মারকাজে ৬ জনের নাম উল্লেখ করে গাজীপুরের আলেম-ওলামা ও তাবলিগের মুরব্বীদের স্বাক্ষরিত এক চিঠি পাঠানো হয়।

দিল্লির নিমাজমুদ্দিন মারকাজের জিম্মাদার মাওলানা সাদ কান্ধলবীকে নিয়ে সৃষ্ট জটিলতায় পক্ষপাতিত্ব, ফেতনা ও বিশৃঙ্খলার কারণে তাদেরকে গাজীপুরের ইজতেমায় অংশগ্রহণ না করার ব্যাপারে আহ্বান জানানো হয়েছে।

উল্লেখিত ৬ মুরব্বী হলেন- জনাব ইঞ্জিনিয়ার ওয়াসিফুল ইসলাম, জনাব মুহাম্মাদ শাহাবুদ্দীন নাসিম, প্রফেসর ইউনুস শিকদার, মাওলানা শেখ মো. আবদুল্লাহ, মাওলানা মুনির বিন ইউসুফ, মাওলানা মোশাররফ হোসাইন।

উল্লেখিত ৬ জনকে গাজীপুরের ইজতেমায় অংশগ্রহণ না করতে যে চিঠি কাকরাইল মারকাজে চিঠি পাঠানো হয়েছে। সে চিঠিতে গাজীপুরের ওলামায়ে কেরামের পক্ষ থেকে যারা স্বাক্ষর করেছেন, তারা হলেন- মুফতি লেহাজ উদ্দিন ভূঁইয়া, মাওলানা গোলাম মাওলা, মুফতি আতাউর রহমান, মাওলানা ছানাউল্লাহ, মাওলানা হাবিবুর রহমান মিয়াজী, মাওলানা ফজলুর রহমান, মুফতি আবদুল মান্নান, মুফতি জুলফিকার হায়দার প্রমুখ।

jagonews24

চিঠিতে কারণ হিসেবে উল্লেখ করা হয় যে, আগামী ১৫, ১৬ ও ১৭ ফেব্রুয়ারির গাজীপুর জেলা ইজতেমায় মাওলানা সাদের অনুসারীখ্যাত উল্লেখিত ব্যক্তিদের অংশগ্রহণ ফিতনা ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির কারণ হবে। তাই উল্লেখিত ব্যক্তিদের গাজীপুরের জেলা ইজতেমায় না আসাই ভালো।

চিঠিতে আরও বলা হয়, আপনাদের জানা থাকার কথা, মাওলানা সাদের আপত্তিকর কথাবার্তার কারণে কাকরাইল মারকাজে আভ্যন্তরীন সমস্যা বিরাজ করছে। এ সমস্যার সমাধানের পূর্বে আমাদের গাজীপুর জেলার আসন্ন ১৫, ১৬, ১৭ ফেব্রয়ারি ইজতেমায় যেন উল্লেখিত ব্যক্তিগণ অংশগ্রহণ করা থেকে বিরত থাকে।

উল্লেখ্য যে, গাজীপুরের আলেম-ওলামাদের স্বাক্ষরিত এ চিঠি কাকরাইল মারকাজে পাঠানোর পাশাপাশি গাজীপুর জেলা প্রশাসক, উপ-পরিচালক, জয়দেবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকেও প্রেরণ করা হয়েছে।

আমিনুল ইসলাম/এমএমএস/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :