হার্ট ভাল্ব পেসমেকারের মূল্য চূড়ান্ত : আনুষ্ঠানিক ঘোষণা কাল

মনিরুজ্জামান উজ্জ্বল
মনিরুজ্জামান উজ্জ্বল মনিরুজ্জামান উজ্জ্বল , বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০২:২৩ পিএম, ১৮ ডিসেম্বর ২০১৭

হার্ট স্ট্যান্টের (রিং) পর এবার সরকারিভাবে হার্ট ভাল্ব ও পেসমেকারের মূল্য নির্ধারণ করে দিচ্ছে সরকার। ইতোমধ্যেই বিভিন্ন ধরনের অর্ধশতাধিক হার্ট বাল্ব ও পেসমেকারের গ্রহণযোগ্য মূল্য চূড়ান্ত হয়েছে। বিভিন্ন ধরনের পেসমেকার মূল্যভেদে সর্বনিম্ন ৬৫ হাজার থেকে ১০ লাখ ও হার্ট বাল্বের মূল্য সর্বনিম্ন ৫০ হাজার থেকে ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা মূল্য নির্ধারণ করা হতে পারে।

আগামীকাল (মঙ্গলবার) রাজধানীর মহাখালীতে ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে অধিদফতরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোস্তাফিজুর রহমান আনুষ্ঠানিকভাবে নির্ধারিত ডিভাইসের নামের পূর্ণাঙ্গ তালিকা ও মূল্য ঘোষণা করবেন। নির্ভরযোগ্য সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সূত্র জানায়, জটিল হৃদরোগের অস্ত্রোপচার ও চিকিৎসায় বর্তমানে রাজধানীসহ সারাদেশের সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন হাসপাতালে ৫৮ প্রকারের পেসমেকার, ৮ প্রকারের হার্ট ভাল্ব ও ২ প্রকারের অ্যামপ্লাটজার সেপটাল ওকিউলারসহ (এএসডি) মোট ৬৮ প্রকারের মেডিকেল ডিভাইস ব্যবহৃত হলেও শুধুমাত্র এক প্রকারের এএসডি ছাড়া সরকারিভাবে কোনো ডিভাইসের রেজিস্ট্রেশন নেই।

গত ২৮ নভেম্বর ওষুধ প্রশাসন অধিদফতরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোস্তাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক সভায় পেসমেকার ও হার্ট ভাল্ব আমদানিকারক ও লোকাল এজেন্টদের প্রতিনিধিদের কাছ থেকে বর্তমানে বাজারে বার্ষিক পেসমেকার ও হার্ট ভাল্ব এর চাহিদা এবং দাম সম্পর্কে জানতে চান।

ব্যবসায়ীরা জানান, স্ট্যান্টের মতো পেসমেকার ও হার্ট ভাল্বের চাহিদা নেই। বর্তমানে বছরে ১ হাজার ২০০ হার্ট ভাল্ব ১ হাজার ৮০০ পেসমেকারের চাহিদা রয়েছে। চাহিদা কম থাকায় অনেক সময় ডিভাইস অবিক্রিতও থেকে যায়। ব্যবসায়িকভাবে তারা যেন ক্ষতিগ্রস্ত না হন, সেদিকে খেয়াল রেখে গ্রহণযোগ্য মূল্য নির্ধারণের অনুরোধ জানান। মহাপরিচালক তাদের এ ব্যাপারে আশ্বস্ত করেন।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ একজন কর্মকর্তা জাগো নিউজকে জানান, অপেক্ষাকৃত কম খরচে হৃদরোগীদের সুচিকিৎসা নিশ্চিত করতে হার্ট স্ট্যান্টের পর এবার হার্ট ভাল্ব ও পেসমেকারের দাম কমানোরও নির্দেশনা দেন প্রধানমন্ত্রী। তার নির্দেশনায় ইতোমধ্যেই ২২টি প্রতিষ্ঠানের ৫১ প্রকারের স্ট্যান্টের দাম বেধে দেয়ার কারণে ইতোমধ্যেই স্ট্যান্টের দাম কমে এসেছে।

এমইউ/জেএইচ/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :