সাকিব টেস্ট খেলতে চান না : জানেনই না ক্রিকেট অপস প্রধান

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৯:৪৫ পিএম, ২১ জুলাই ২০১৮

টেস্ট, ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি- এই তিন ফরম্যাটে জাতীয় দলের প্রধান চালিকাশক্তি সাকিব আল হাসান, কাটার মাস্টার মোস্তাফিজুর রহমান আর পেসার রুবেল হোসেনসহ কয়েকজন সিনিয়র ক্রিকেটারের টেস্ট খেলায় অনীহা- বিসিবি প্রধান নাজমুল হাসান পাপনের এ উক্তি এখন দেশের ক্রীড়াঙ্গনের সবচেয়ে আলোচিত বক্তব্য। রীতিমত ‘টক অব দ্য কান্ট্রি!’

এ যেন বিনা মেঘে বজ্রপাত! সাকিব ভক্তদের মাথায় বাজ। বাংলাদেশের ক্রিকেট অনুরাগি, ভক্ত ও সমথর্কদের বড় অংশ হতভম্ব! বিমূঢ়। তারা যোগ-বিয়োগ করে হিসেব মেলাতে গিয়ে হিমসিম খাচ্ছেন। এ নিয়ে রীতিমত মিশ্র প্রতিক্রিয়া। এক পক্ষ আকাশ থেকে পড়েছেন। তারা বিশ্বাসই করতে পারছেন না, সাকিব আল হাসানের মত শীর্ষ তারকা টেস্ট খেলতে অনীহা প্রকাশ করছেন আরেক পক্ষের ধারণা, এটা অতিরিত ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেটের প্রচার-প্রসার ও খেলার কুফল।

আজ শনিবার সারাদিন ক্রিকেট অনুরাগি তথা বাংলাদেশের ক্রিকেট ভক্ত ও সমর্থকদের মাঝে বিসিবি সভাপতির এই মন্তব্য নিয়ে জোর গুঞ্জন। জল্পনা-কল্পনা। এদিকে সকাল-দুপুর গড়িয়ে বিকেল নামার আগে ওই আলোচিত-আলোড়িত ইস্যুতে এসেছেন ভিন্ন মাত্রা।

সাকিবসহ জাতীয় দলের সিনিয়র ও অপরিহার্য ক্রিকেটারদের টেস্ট খেলতে না চাওয়া নিয়ে মুখ খুলেছেন বিসিবি পরিচালক ও জাতীয় দল পরিচালনা , পরিচর্য্যা ও তত্ত্বাবধায়ক স্ট্যান্ডিং কমিটি ক্রিকেট অপারেশন্স চেয়ারম্যান আকরাম খান। তার বক্তব্য আরও বিস্ময় জাগানিয়া। আরও সংশয়পূর্ণ। আকরাম খানের বক্তব্য শুনে প্রথমেই যে কথাটি মনে হবে, তাহলো- তিনি বিষয়টি সম্পর্কে কিছুই জানেন না বা পুরো ঘটনাপ্রবাহ তার অজানা।

আর তাই তার মুখে এমন কথাবার্তা, ‘সে (সাকিব) তো টেস্ট খেলছে। আর বর্তমানে বাংলাদেশ দলের টেস্টের অধিনায়কও সে। সে কিন্তু বলেনি যে, খেলতে চায় না। বোর্ড প্রেসিডেন্ট যা বলেছেন, এই ব্যাপারে আমি পুরোপুরি জানি না। সাকিব আমাদের জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ একজন ক্রিকেটার। আমাদের ক্রিকেট যে অবস্থায় আছে আমি মনে করি যে, সে তিনটি ফরম্যাটেই কিন্তু আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। ’

তিনি জাতীয় দলের সাবেক অধিনায়ক এবং বর্তমানে বিসিবির সবচেয়ে গুরুতত্বপূর্ণ বিভাগ এবং জাতীয় দল পরিচালনা কমিটি সেই ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটির প্রধান। জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের যাবতীয় খুঁটিনাটি তথ্য সবার আগে আকরাম খানেরই জানার কথা; কিন্তু ওপরের মন্তব্য প্রমাণ করে তিনি সাকিবদের টেস্ট খেলায় অনীহার মত একটি গুরুত্বপূর্ণ ও স্পর্শকাতর ইস্যু সম্পর্কে মোটেই অবগত নন। অথচ নিয়ম ও রীতি মানলে তারই আগে সব কিছু জানা উচিৎ।

ক্রিকেটারদের কার কি অবস্থা, কে ফিট, কে আনফিট? কার বিশ্রাম দরকার, কার ছুটি প্রয়োজন, তাদের কি কি দরকার- এসব খুঁটিনাটি তথ্য ক্রিকেট অপারেশন্স কমিটি প্রধানের ঠোটের অগ্রভাগে থাকার কথা। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য, সেই বাংলাদেশের ক্রিকেটের এক অতি গুরুত্বপূর্ণ সময়ের সফল সেনাপতি আকরাম খান আসলে ক্রিকেট অপারেশন্সের প্রধান হিসেবে এসব দরকারী বিষয়ে তেমন ওয়াকিবহাল নন।

আবার কারও কারও মত আকরাম খানের কাছে জাতীয় দলের খুটিনাটি খোঁজ-খবর তেমন থাকে না। তারচেয়ে বরং ক্রিকেট দল ও ক্রিকেটারদের সম্পর্কে বেশি খোঁজ খবর রাখেন বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। তার সাথে ক্রিকেটার, কোচিং স্টাফ, ক্রিকেটার ও নির্বাচকদের নিয়েমিত কথা হয়। বরং আকরাম খানেরই অনেক কিছু জানা নেই।

এআরবি/আইএইচএস/আরআইপি

আপনার মতামত লিখুন :