নতুন মুখ নাঈম, ফিরলেন সাব্বির-তাসকিন

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৫:৪১ পিএম, ২৩ জানুয়ারি ২০১৯

জাগো নিউজের পাঠকরা আগে থেকেই জেনে গেছেন, নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের জন্য দলে ফেরানো হচ্ছে হার্ড হিটার ব্যাটসম্যান সাব্বির রহমানকে। তবে সাব্বিরের সঙ্গে দীর্ঘদিন পর ওয়ানডে দলে ফিরলেন পেসার তাসকিন আহমেদও।

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজের দলে নেয়া হয়েছে একটি নতুন মুখ। ইতিমধ্যেই টেস্ট খেলে ফেলা তরুণ অফ স্পিনার নাঈম হাসানকে নেয়া হয়েছে ওয়ানডে দলে। আজ বিকাল সাড়ে ৫টায় বিসিবিতে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে ১৫ সদস্যের এই দলটির ঘোষণা দেয়া হয়।

২০১৭ সালের অক্টোবরে ইস্ট লন্ডনে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সর্বশেষ ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছিলেন পেসার তাসকিন আহমেদ। এরপর অফ ফর্ম আর লম্বা ইনজুরির কারণে দল থেকে বাদ পড়েন এই গতি তারকা। টি-টোয়েন্টিতে গত বছর শ্রীলঙ্কার নিদাহাস ট্রফিতে খেললেও পরের পুরো সময়টা আর দলেই ফিরতে পারেননি তিনি।

অবশেষে বিপিএলে দুর্দান্ত পারফরম্যান্স করে এবং নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশনে তান পেস বোলিং কাজে আসতে পারে- এই বিবেচনায় প্রায় ১৫ মাস পরে ওয়ানডে দলে ফিরলেন এক সময়ের এই নিয়মিত পেস বোলার।

সাব্বির রহমান রুম্মনও ছিলেন বাংলাদেশ দলের নিয়মিত মুখ। কিন্তু কিছু শৃঙ্খলা বিরোধী কর্মকাণ্ডে যুক্ত হওয়ার কারণে নিষেধাজ্ঞার কবলে পড়েন সাব্বির। এরই মধ্যে বাংলাদেশ বেশ কয়েকটা সিরিজ খেলে ফেলেছে। কিন্তু সাব্বিরের অভাব তাতে ঘোচেনি মোটেও।
যে কারণে ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা বিশেষভাবেই দলে চেয়েছেন সাব্বিরকে।

৬ কিংবা ৭ নম্বরে ফিনিশার হিসেবে সাব্বিরের খুব প্রয়োজন রয়েছে। সে কারণেই অধিনায়ক মাশরাফির বিশেষ পছন্দ এবং অনুরোধেই সাব্বির রহমানকে ওয়ানডে একাদশে ফেরানো হয়েছে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদিন নান্নু।

এছাড়া ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে সুযোগ পাওয়া নাঈম হাসান তরুণ ক্রিকেটার হিসেবে সবারই নজর কেড়েছেন। আগামী দিনে জাতীয় দলের অন্যতম কান্ডারি হিসেবেই ভাবা হচ্ছে তাকে। যে কারণে নিউজিল্যান্ডের মত কন্ডিশনে তাকে অভ্যস্ত করে তুলতেই এবং একজন কার্যকর অফ স্পিনার হিসেবেই তাকে নেয়া হয়েছে দলে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সর্বশেষ ওয়ানডেতে দুর্দান্ত খেলেছিলেন সৌম্য সরকার এবং লিটন দাস দু’জনেই। বিপিএলে তাদের পারফরম্যান্স খারাপ থাকলেও জাতীয় দলের হয়ে তাদের সর্বশেষ পারফরম্যান্সই বিবেচনায় এনেছেন নির্বাচকরা। মাশরাফি, সাকিব, তামিম, মাহমুদউল্লাহ, মুশফিক, মিরাজ এবং মোস্তাফিজ অটোমেটিক চয়েজ।

সঙ্গে লিটন এবং সৌম্য সরকারও আগের পারফরম্যান্সের কারণে টিকে গেলেন। প্রশ্ন ছিল আরিফুল, মোসাদ্দেক হোসেন কিংবা মোহাম্মদ মিঠুনের কাকে নেয়া হবে দলে? আরিফুল সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সে আগেই বাদ। মোসাদ্দেক হোসেনও ৬ কিংবা ৭ নম্বরে নিজেকে খুব একটা কার্যকরি হিসেবে প্রমাণ করতে পারেননি। যে কারণে, তিনজনের প্রতিযোগিতায় টিকে গেলেন মোহাম্মদ মিঠুন। এছাড়া পেস বোলিং অলরাউন্ডার হিসেবে দলে জায়গা মিলে গেলো মোহাম্মদ সাইফউদ্দিনের। পেসার রুবেল হোসেনের জেনুইন পেস বোলিং নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশনে দলের কাজে আসবে বলেই নেয়া হয়েছে তাকে।

ফেব্রুয়ারির ১৩ তারিখ নেপিয়ারে স্বাগতিক নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে শুরু হবে বাংলাদেশের তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ। ১৬ ফেব্রুয়ারি ক্রাইস্টচার্চে অনুষ্ঠিত হবে দ্বিতীয় ম্যাচ এবং ২০ ফেব্রুয়ারি ডুনেডিনে অনুষ্ঠিত হবে তৃতীয় ম্যাচ।

ওয়ানডে সিরিজের পর ২৮ ফেব্রুয়ারি হ্যামিল্টনে শুরু হবে তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ। ৮ মার্চ ওয়েলিংটনে শুরু হবে দ্বিতীয় টেস্ট এবং ১৬ মার্চ শুরু হবে সিরিজের তৃতীয় টেস্ট।

 

নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে বাংলাদেশের ওয়নাডে দল

মাশরাফি বিন মর্তুজা (অধিনায়ক), সাকিব আল হাসান (সহ-অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, লিটন দাস, সৌম্য সরকার, মুশফিকুর রহীম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, মেহেদী হাসান মিরাজ, মোস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন, সাইফউদ্দিন, মোহাম্মদ মিঠুন, নাঈম হাসান, তাসকিন আহমেদ ও সাব্বির রহমান রুম্মন।

এআরবি/আইএইচএস/জেআইএম/এসজি

আপনার মতামত লিখুন :